সোমবার ২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং , ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১২ই সফর, ১৪৪০ হিজরী

অপার মুগ্ধতার অরুনিমা

সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৮ | ২:৫৬ অপরাহ্ণ

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা ।। 

উইকএন্ডে কিংবা কোন সুযোগে যারা বেড়াতে ভালবাসেন, তারা টুক করে বেরিয়ে পড়তে চান। কিন্তু যাবেন কোথায়? প্রথমেই মাথায় আসে কক্সবাজার বা সুন্দরবন। কিন্তু কত আর যাওযা চলে এই দুটি স্পটে? আর ভরসা বিদেশ, মধ্যবিত্তের জন্য থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া বা সিঙ্গাপুর, কখনো বা ভুটান আর মালদ্বীপ। ঘরের কাছে একটা ধানের শীষে শিশির বিন্দুর হদিস নেই আমাদের তালিকায়। তালিকায় নেই তাই অরুনিমা রিসোর্টের নামও।

নামটা আমি অনেক শুনছিলাম পর্যটন খাতের বন্ধুদের মুখে। সবাই বলেছিল এটি এক নিভৃত নিসর্গ। নিজে যখন গেলাম, তখন মনে হয়েছে, না এরা কিছুটা কমই বলেছে। নগরের আওয়াজ নেই, কিন্তু পাখির কাকলি আছে। যারা পাখি দেখতে ভালবাসেন, তারা ডিসেম্বরে গেলে দেখবেন, পাখির কারণে গাছের কোন পাতা দৃশ্যমান নেই, অজস্র পাখি মুহুর্তে মুহুর্তে আকাশের চিত্র বদলে দিচ্ছে। প্রকৃতিকে যারা ভালবাসেন, তাদের রুটম্যাপে নড়াইলের এই অরুনিমার নাম কবে উঠবে কে জানে? তবে আমার উঠেছে।

অরুনিমা রিসোর্ট

কোলাহল, ব্যস্ততায় বিরক্ত হয়ে কিছুটা সময় দূরে, নিভৃতে প্রকৃতির কাছাকাছি কাটাতে কার না ইচ্ছে হয়! এমন জায়গায় যেতে পারলে শরীরের ক্লান্তি জুড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে মনও চাঙ্গা হয়ে ওঠে। যেতে চাইলেই যাওয়া হয়না। খরচ, সময় আর বিদেশ হলে ভিসা জটিলতা, সবই মাথায় রাখতে হয়। যাদের আমার মতো পকেটের অবস্থা, তাদের জন্য পাখি আর সবুজ দেখার উপায় অরুনিমা।

সেকথাই আসলে বলছিলাম। বেশি অর্থ নেই, তাই বলে প্রকৃতির সান্নিধ্য থেকে বঞ্চিত হতে হবে? না, উদাস হওয়ার কোনও কারণ নেই। নাগালের মধ্যেই এমন বেশ কিছু জায়গা রয়েছে, যেখানে গেলে আর ফিরে আসতে মন চাইবে না।

এমনই একটি জায়গা নড়াইলের অরুনিমা। শান্ত প্রকৃতির মাঝে একাকিত্বের স্বাদ নিতে, বা পরিবারের সাথে কিছুটা নতুন করে সময় কাটাতে জল, প্রকৃতি, পাখি, কৃষির সাথে মাঝে দু’-এক দিন কাটিয়ে নিতে গোপালগঞ্জ থেকে সামান্য দূরে এই রিসোর্টটির জুড়ি মেলা ভার। হাতে দিন দুয়েক সময় নিয়ে এলে প্রকৃতির সান্নিধ্য নিতে চাইলে শীতে বেড়ানোর প্রস্তুতি নিতে পারেন এখনই।

নড়াইলের এক প্রত্যন্ত গ্রামে ব্যাক্তি উদ্যোগে তৈরী হওয়া অরুনিমা ইকো এবং গলফ রিসোর্টে পৌঁছেই চমৎকৃত হলাম। রিসোর্টের কর্ণধার খবিরউদ্দিন অহমেদ জলাশয়ের ধারে আমাকে অভ্যর্থনা জানিয়েছেন। অপার নৈঃশব্দ আর অগাধ সৌন্দর্যের পশরা সাজিয়ে যেন বসে আছে জায়গাটি। ঘন বৃক্ষরাজি ঘেরা জলাশয় আর রিসোর্টের আকাশে ভেসে বেড়াচ্ছে পরিযায়ী পাখির দল। হাওয়ার পরশে ছোট ছোট ঢেউ উঠছে জলে। জলাশয়ের গভীরতায় মনের সুখে খেলা করে রুই, কাতলা, কালবোস, গ্র্যাসকার্প, বাঁশপাতি, মাগুর, শোল ইত্যাদি মাছ।

এই রিসোর্টটি মূলত কৃষিভিত্তিক। বাংলাদেশে প্রকৃতিভিত্তিক রিসোর্টের কথা বিবেচনা করলে এই রিসোর্টটিকে প্রথম স্থানে জায়গা করে দিতে হবে। এটি দেশের একমাত্র কৃষি, নদী, খেলাধুলা এবং পরিবেশভিত্তিক রিসোর্ট। বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে রিসোর্টের পক্ষ থেকে সফরের আয়োজন করা হয়ে থাকে। ফলানো হয়েছে নানান সব্জি ও ফল-ফুলের গাছ। আম, জাম, কুল, পেয়ারা, বেদানা, কমলালেবু, সবেদা, আঙুর, লিচু, নাশপাতি, বাতাবি লেবু ইত্যাদি ফলগাছের পাশাপাশি কুমড়ো, লাউ, বিন্‌স, করলা, টমেটো, মটরশুঁটি, পালংশাক, ধনেশাক, ঢ্যাঁড়স, মুলো, বেগুন প্রভৃতি শাকসব্জির চাষও হয়েছে পুরো এলাকা জুড়ে। দারুচিনি, তেজপাতার গাছও দেখতে পেলাম কিছু।

অরুনিমা রিসোর্টটির যাত্রা শুরু হয় ২০০৯ সালের ১৪ মে। ৫০ একর জমি নিয়ে এর অবস্থান। ছোট বড় মোট ১৯টি পুকুর আছে এখানে। একটি বড় লেক আছে। এর মাঝে একটি কৃত্তিম দ্বীপ আছে। দ্বীপের মধ্যে রয়েছে রেস্টুরেন্ট, কটেজ ও কনফারেন্স রুম। খবিরউদ্দিন আহমেদ শুধুমাত্র পর্যটনের প্রতি ভালবাসা থেকে নিজের পৈতৃক ভিটায় এই রিসোর্টটি গড়েছেন।

রাত্রিযাপনের জন্য এখানে আছে এস এম সুলতান হল, রয়েল কজেটসহ বেশ কিছু ভাসমান কটেজ। আর সময় কাটানের জন্য আছে গলফ, টেনিস, টেবিল টেনিস, দাবা, লুডু, ব্যাডমিন্টন, বাস্কেট বল খেলার ব্যবস্থা। আছে কয়েক প্রকারের নৌকা, ঘোড়ার গাড়ীও।
মাছ ধরা যাদের শখ, তারা রিসোর্টের ভেতরে পুকুর ও লেকের পানিতে বিভিন্ন প্রজাতির প্রচুর মাছ পাবেন। বসে যেতে পারেন বড়শি দিয়ে।

অরুনিমা রিসোর্ট

প্রথম যখন পানিতে ভাসমান কটেজগুলো দেখলাম, মনে হচ্ছিল আমি যেন প্রাকৃতিক ভেনিস দেখছি। পুকুর, লেকের পাড়ে নানা গাছ। বাঁধা আছে ছোট্ট ডিঙি নৌকা। সকালের নাস্তা সেরে লেকে নৌকা নিয়ে বেড়িয়ে দুপুরে ফিরে আসা অব্দি কত পাখি দেখা যায়, আর জলের বিশালতা কিভাবে উপভোগ করা, তা আসলে শুধু যে গিয়েছে সে-ই ভাবতে পারে। যারা যাননি, তাদের বলছি মুগ্ধতার চূড়ান্ত অধিকারটুকু সহজেই কেড়ে নেবে অরুনিমা। আমি বেশ টের পাই – ঋণী হয়ে পড়ছি আমার ছোট্ট ছুটির সময় কাটানো অরুনিমার কাছে।

সারাবাংলা/আরএফ

Tags: , , , ,

অপার মুগ্ধতার অরুনিমা
অপার মুগ্ধতার অরুনিমা
অপার মুগ্ধতার অরুনিমা