বৃহস্পতিবার ১৮ জানুয়ারি, ২০১৮, ৫ মাঘ, ১৪২৪, ৩০ রবিউস-সানি, ১৪৩৯

Live Score

আমার জীবটা শুধুই অবহেলা ও অসম্মানের: মমতা ব্যানার্জি

জানুয়ারি ১১, ২০১৮ | ৬:০২ অপরাহ্ণ

কলকাতা থেকে

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে সাম্মানিক ডি’লিট (ডক্টর অফ লিটারেচর) উপাধিতে সম্মানিত করল কলকাতা বিশ্বিবিদ্যালয়। সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে বিশেষ অবাদনের জন্য মমতাকে এই ডি লিট দেওয়া হল।

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কলকাতার নজরুল মঞ্চে বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মমতার হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাজ্যের রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর সোনালী চক্রবর্তী ব্যানার্জি, রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, নগরায়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, বিদ্যুৎ মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর সুরঞ্জন দাস, কবি সুবোধ সরকার, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরাসহ সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

মমতা জানান ‘আমি সমাবর্তনে এসে গর্ববোধ করছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে আজ যে স্বীকৃতি, সম্মান দেওয়া হয়েছে- এর থেকে বড় সম্মান আমি আর কিছু চাই না। আমার জীবন আজ ধন্য হয়ে গেছে। আমি নিশ্চই এই সম্মানের যোগ্য নই, কারণ আমার জীবটা শুধুই অবহেলা ও অসম্মানের’।

মমতা জানান, আমি কোনদিনই এই ডিগ্রিটা ব্যবহার করবো না। এটা সাম্মানিক হিসাবেই থাকবে। যে মর্যাদা দেওয়া হয়েছে সেটা ইতিহাসের মণিকোঠায় লেখা থাকবে। কারণ আমি অনেক কষ্ট করে এই জায়গাটায় এসেছি।

তিনি আরও জানান ‘আমি শুধু কৃতজ্ঞই নই, এটা আমার কর্মপ্রেরণাকে আরও বাড়িয়ে তুলবে। আমি অন্য কিছু চাই না, আমি ভালবাসার কাঙাল। সারাজীবন লড়াই করতে করতে একটা জায়গা গিয়ে দাঁড়িয়েছি। সারা শরীরে এমন কোন জায়গা নেই যেখানে মারা হয়নি, যেখানে আঘাতের চিহ্ন নেই। কিন্তু এত আঘাত নিয়েও শুধুমাত্র মানুষের ভালবাসার জন্যই আমি বেঁচে আছি’।

এর আগে বিভিন্ন সময়ে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর থেকে শুরু করে সাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দোপাধ্যায়, পরিচালক সত্যজিৎ রায় ও মৃণাল সেন, পন্ডিত রবি শঙ্কর, কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, ঐতিহাসিক রোমিলা থাপার, সঙ্গীতশিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়কে ডি’লিট সম্মানে সম্মানিত করেছে ঐতিহ্যবাহী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। ২০১৪ সালে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জিকেও ডি’লিট সম্মান প্রদান করা হয়। ২০০৭ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্মানিক ‘ডক্টরেট অফ ল’ সম্মান প্রদান করা হয় পশ্চিমবঙ্গের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত জ্যোতি বসুকেও।

সারাবাংলা/এমআই