সোমবার ২৩ জুলাই, ২০১৮, ৮ শ্রাবণ, ১৪২৫, ৯ জিলক্বদ, ১৪৩৯

উষ্ণতার আগুনেই নিভে গেল প্রাণ প্রদীপ

জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ | ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ

ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট

তীব্র শীতে খড়কুটা জ্বালিয়ে একটু উষ্ণতা পেতে চেয়েছিলেন রংপুরের মনিরা বেগম (২৫)। তার মতো একই চাওয়া নিয়ে আগুনের পাশে বসেছিলেন নীলফামারীর মারুফা খাতুন (৩০)। তবে তাদের এ সাধারণ চাওয়ার মূল্য পরিশোধ করতে হলো নিজেদের জীবন দিয়ে। আগুন পোহাতে গিয়ে সে আগুনেই পুড়ে মারা গেলেন তারা।

শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. মারুফুল ইসলাম জানান।

ডা. ইসলাম জানান, মারুফা ৮ জানুয়ারি ও মনিরা ১০ জানুয়ারি এই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তাদের শরীরের প্রায় ৭০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল।
এবার শীতের আগুনে পুড়ে এখন পর্যন্ত আটজন রোগী প্রাণ হারিয়েছে বলে জানান তিনি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি আছেন ৮০ জন অগ্নিদগ্ধ রোগী। তাদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আছেন ৪ জন। রোগীদের অধিকাংশের শরীর ৩০ থেকে ৭০ ভাগ পুড়ে গেছে।

অগুণে পুড়ে মারা যাওয়া সবাই নারী এছাড়া যারা চিকিৎসা নিচ্ছেন তাদের মধ্যে তিন শিশু ছাড়া বাকিরাও নারী বলে জানান মারুফুল ইসলাম।

জানুয়ারির শুরুতে সারা দেশে হঠাৎ তাপমাত্রা নেমে যায়। এ সময় দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে চলতে থাকে তীব্র শৈত্য প্রবাহ। ৮ জানুয়ারি পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় রেকর্ড করা হয় দেশের ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহটি এখনও  টাঙ্গাইল ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, যশোর, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, বরিশাল, সীতাকুণ্ড ও রাঙ্গামাটি অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে।

সারাবাংলা/এসআরপি/এমএ

উষ্ণতার আগুনেই নিভে গেল প্রাণ প্রদীপ
উষ্ণতার আগুনেই নিভে গেল প্রাণ প্রদীপ