মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, ৮ ফাল্গুন, ১৪২৪, ২ জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯

কম দামে ভারত থেকে বিদ্যুৎ : চুক্তি নবায়ন এ মাসেই

জানুয়ারি ২০, ২০১৮ | ৩:০৮ অপরাহ্ণ

হাসান আজাদ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা : ভারতের উন্মুক্ত বাজার থেকে কম দামে ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনতে যাচ্ছে সরকার। এ জন্য চলতি মাসে বিদ্যুৎ ক্রয় চুক্তি (পিপিএ) আগামী ছয় মাসের জন্য নবায়ন করা হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের নেতৃত্বে গঠিত বিশেষ কমিটির গত বৃহস্পতিবার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিদ্যুতের দাম অনুমোদনের জন্য শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে। মন্ত্রিপরিষদের অনুমোদন পাওয়ার পরই ভারতের সরবরাহকারী কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করা হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের উর্ধ্বর্তন এক কর্মকর্তা এ তথ্য জানান।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) এর চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ এ প্রসঙ্গে সারাবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ভারতের খোলাবাজার থেকে আগের চেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ কিনতে পারব। ভারত আমাদের সেরকমই আভাস দিয়েছে।

তিনি বলেন, এ জন্য বেসরকারিখাতে করা চুক্তি আরও ছয়মাসের জন্য নবায়ন করা হবে। এ ছাড়া ভারতের বেসরকারি খাত থেকে বিদ্যুৎ ক্রয়ে আমরা দীর্ঘমেয়াদী চুক্তির উদ্যোগ নিচ্ছি।

বিভাগের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে ভারতের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী অথরিটি পাওয়ার ট্রেডিং করপোরশেন অব ইন্ডিয়া (পিটিসি) এর কর্মকর্তাদের আলোচনা হয়েছে। তারা আগের চেয়ে কম দামে আগামী ছয় মাসে বিদ্যুৎ রপ্তানি করার আশ্বাস দিয়েছে। গত এপ্রিল মাসে পিটিসি ইন্ডিয়া এ আশ্বাস দেয়। বর্তমানে ভারত থেকে বিদ্যুৎ আমদানিতে খরচ হয় ইউনিট প্রতি শূন্য দশমিক ০৭৫৯ মার্কিন ডলার। আর নতুন ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনতে খরচ হবে শূন্য দশমিক ০৭৪৯ মার্কিন ডলার।

এ কর্মকর্তা জানান, এই বিদ্যুৎ আনতে হলে বর্তমানে থাকা বিদ্যুৎ ক্রয় চুক্তি নবায়ন করতে হবে। কারণ আগের চুক্তি এই মাসেই শেষ হচ্ছে। পাশাপাশি ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির দাম অনুমোদনের জন্য এ সপ্তাহেই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে।

ওই কর্মকর্তা জানান, একইসঙ্গে ভারতের খোলা বাজার থেকে দীর্ঘমেয়াদে বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে ভারতের পিটিসি রাজি হয়েছে। তারা ভারতের বাজারে দরপত্র উন্মুক্ত করার বিষয়ে সায় দিয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের বাজারে দরপত্র উন্মুক্ত করার আগে বিদ্যুৎ বিভাগ ও পিডিবি দরপত্র মুল্যায়ন করার কাজ শুরু করেছে।

বর্তমানে সরকার ভারত থেকে মোট ৬৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছে। ২০১৩ সালের ভারত সরকারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেরে ভেড়ামারায় আন্তঃগ্রীড সংযোগের মাধ্যমে ৫শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছে। এর মধ্যে ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বেসরকারি খাতের এবং বাকি ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনে সরকারি খাত থেকে। সরকারি খাত থেকে আমদানি করা বিদ্যুতের দাম ইউনিট প্রতি দুই টাকা ৭৮ পয়সা। আর ত্রিপুরা-কুমিলা গ্রীড লাইনের মাধ্যমে ত্রিপুরা থেকে বাকি বিদ্যুৎ আমদানি করা হয়।

২০১৫ সালের ১৫ জানুয়ারি ভারতের বেসরকারি খাত থেকে বিদ্যুৎ আমদানির ভারতের বাজারে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। লক্ষ্য ছিল, এই দরপত্রের বিপরীতে ভারতের বিদ্যুৎ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দীর্ঘমেয়াদে বিদ্যুৎ কিনবে বাংলাদেশ। কিন্তু ওই সময় পিটিসি ইন্ডিয়ার অনুমোদন পাওয়ায় তা বেশিদূর এগুয়নি। কিন্তু গত এপ্রিলে বাংলাদেশের সঙ্গে বৈঠকে পিটিসির কর্মকর্তারা বাংলাদেশে বিদ্যুৎ রফতানির আগ্রহ প্রকাশ করে। এসময় তারা পশ্চিম বাংলার হালদিয়ার একটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে অতিরিক্ত ৪’শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দেওয়ার বিষয়েও আগ্রহ দেখায় বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা জানান।

সারাবাংলা/এইচএ/একে

 

Tags: ,