মঙ্গলবার ১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং , ২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪০ হিজরী

‘ক্যাপ্টেন আবিদকে নিয়ে কাঠমান্ডু পোস্টের সংবাদ ভিত্তিহীন’

আগস্ট ২৭, ২০১৮ | ৫:৪৩ অপরাহ্ণ

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ।।

ঢাকা: ক্যাপ্টেন আবিদকে নিয়ে নেপালের ‘দ্য কাঠমান্ডু পোস্ট’ পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ।

গত ১২ মার্চ ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিএস-২১১ ফ্লাইট বিধ্বস্ত হয়। নেপাল সরকারের বরাত দিয়ে কাঠমান্ডু পোস্ট সোমবার (২৭ আগস্ট) প্রকাশ করে, তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ‘ইউএস-বাংলার পাইলট ছিলেন বিপর্যস্ত ও বেপরোয়া’

এর প্রেক্ষিতে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ বলে, প্রতিবেদনে ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান সম্পর্কে কিছু মনগড়া তথ্য দেওয়া হয়েছে যা ভিত্তিহীন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ আরো বলে, সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান প্রচণ্ড ব্যক্তিগত মানসিক চাপ ও উদ্বেগের মধ্যে ছিলেন। তার ধারাবাহিক কয়েকটি ভুল সিদ্ধান্তের কারণেই বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। নেপাল সরকারের করা তদন্তে এমন তথ্য উঠে এসেছে।’

কাঠমান্ডু পোস্ট আরো জানায়, ‘নেপালি কর্মকর্তারা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, উড্ডয়নকালে বিমানের ভেতর আবিদ সুলতান এমন সব অস্বাভাবিক আচরণ করছিলেন, যা তার স্বভাববিরুদ্ধ। আর সে কারণেই তিনি তাৎক্ষণিকভাবে লাল পতাকা উড়িয়ে দিয়েছিলেন।’

ইউএস-বাংলা তাদের বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, (আইকাও কর্তৃক প্রণোদিত) যেকোনো দুর্ঘটনা পরবর্তী পূর্ণাঙ্গ তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত এই ধরনের অসমর্থিত মতামত প্রকাশ কোনো গণমাধ্যমের কাছেই কাম্য নয়। আইকাও-এর এনেক্স ১৩ অনুসারে, নেপালের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এবং বিমান চলাচল বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় তদন্ত এখনো চলছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই ধরনের একটি প্রতিবেদন দু’টি অভিপ্রায় ব্যক্ত করে। প্রথমত, অযাচিতভাবে এয়ারলাইন্স এবং ক্রুদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা এবং দ্বিতীয়ত দুর্ঘটনা ঘটে থাকার প্রকৃত কারণকে আড়াল করার চেষ্টা করা।

এতে বলা হয়, “এই প্রতিবেদনে প্রকাশিত কোনো তথ্যের ভিত্তি নেই। কারণ দুর্ঘটনা সম্পর্কে গঠিত তদন্ত কমিটি এখন পর্যন্ত অফিসিয়ালি কোনো তদন্ত প্রতিবেদন বা কোনো বক্তব্য দেয়নি।”

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ মনে করে ‘দ্য কাঠমান্ডু পোস্ট’র প্রতিবেদন দূরভিসন্ধিমূলক। বাংলাদেশের গণমাধ্যম, সম্মানিত যাত্রী ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।

সারাাবংলা/জেএ/এটি

Tags:

‘ক্যাপ্টেন আবিদকে নিয়ে কাঠমান্ডু পোস্টের সংবাদ ভিত্তিহীন’
‘ক্যাপ্টেন আবিদকে নিয়ে কাঠমান্ডু পোস্টের সংবাদ ভিত্তিহীন’
‘ক্যাপ্টেন আবিদকে নিয়ে কাঠমান্ডু পোস্টের সংবাদ ভিত্তিহীন’