শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৬ আশ্বিন, ১৪২৫, ১০ মুহররম, ১৪৪০

জমজমাট জয় বাংলা কনসার্টে প্রাণের উচ্ছ্বাস

মার্চ ৮, ২০১৮ | ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট ।।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের দিনটিকে স্মরণ করে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘জয় বাংলা কনসার্ট’। প্রতিবছরের মতো এবারও দিনটিকে স্মরণ করে গান গান করেছে তরুণ প্রজন্মের রক ব্যান্ডগুলো। ঢাকা আর্মি স্টেডিয়ামে এই কনসার্ট আয়োজন করে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই)- এর ইয়ং বাংলা প্ল্যাটফর্ম।

কনসার্টে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র এবং গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) ট্রাস্টি রেদওয়ান মুজিব সিদ্দিক ববি এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ খান বিপু।

আয়োজনের শুরুতেই তারা বলেন, ‘শুধু গান নয় এই কনসার্টের মাধ্যমে আমরা তরুণদের মাঝে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসের বার্তা পৌঁছে দিতে চাই। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ সম্পর্কে তরুণদের অবগত করতে চাই।’

এর আগে দেড়টার দিকে খুলে দেয়া হয় স্টেডিয়ামের সবগুলো গেট। সাড়ে ৩টায় ‘পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে’ গানটির মাধ্যমে শুরু হয় মূল আয়োজন। গোবিন্দ হালদারের কথা ও সমর দাশের সুরে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের এই গানটি তরুণ মিউজিশিয়ানরা গিটার বাজিয়ে পরিবেশন করেন।

জয় বাংলা কনসার্টের এবারের আয়োজনে প্রথমেই মঞ্চে ওঠে ব্যান্ডদল পাওয়ারসার্জ। প্রথমেই তারা পরিবেশন করে ‘মা গো ভাবনা কেনো’। তারপর একে একে গেয়ে শোনায় ‘অপ্রস্তুত যুদ্ধ’ ও নগর বাউল জেমসের কয়েকটি গান।

এরপর মঞ্চে আসে রক ব্যান্ড আরবোভাইরাস। শুরুতেই তারা পরিবেশন করে ‘আমরা করবো জয়’ গানটি। এছাড়াও দলটির জনপ্রিয় গান ‘জ্বালো আগুন জ্বালো’, ‘শহর’, ‘ইশকুল’ গানগুলোও দর্শকদের উদ্বেলিত করে। আরবোভাইরাসের পর জনপ্রিয় ব্যান্ড শূন্য পরিবেশন করে ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’, ‘শত আশা’, ‘সোনা দিয়া বান্ধাইয়াছি ঘর’, ‘ঝরিয়ে দাও’ শিরোনামের গানগুলো।

নেমেসিরের প্রথম পরিবেশনায় ছিলো ‘রক্ত দিয়ে নাম লিখেছি বাংলাদেশের নাম’। এরপর তরুণদের মাঝে তুমুল জনপ্রিয় এই দলটি ‘জয়ধ্বনি’, ‘কবে’ প্রভৃতি গান পরিবেশন করে।

নেমেসিস নেমে যাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু ও তার ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ নিয়ে বেশ কিছু ভিডিওচিত্র উপস্থাপন করা হয় প্রজেক্টরে। সেই সঙ্গে ৭ মার্চে দেয়া বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে ‘বিশ্ব ঐতিহ্য’ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়ার পর ইউনেস্কো প্রধানের বক্তব্যের একটি ক্লিপ প্রদর্শন করা হয়।

এরপর মঞ্চে আসে ব্যান্ড ক্রিপটিকফেইট। তাদের পরিবেশনায় ‘জাগো, জেগে ওঠো বীর বাঙালি’, ‘তীর হারা এই ঢেউয়ের সাগর পাড়ি দেব রে’, ‘চলো বাংলাদেশ’ গানগুলো শ্রোতা-দর্শকদের ফিরিয়ে নিয়ে যায় যুদ্ধ দিনে।

‘লালন’ ব্যান্ডের ‘এ শহর’ এবং ‘চিরকুট’ এর গানগুলো মুগ্ধ হয়ে শুনেছে শ্রোতারা। সবশেষে মঞ্চে ওঠে আর্টসেল। আর্টসেলে ভাঙনের পর এটিই তাদের প্রথম কনসার্ট। তবে পরিবেশনায় ভাঙ্গনের ছাপ পড়েনি মোটেও। দলটি এদিন নিজেদের জনপ্রিয় সবগুলো গান পরিবেশন করে। এরপরই পর্দা নামে কনসার্টের।

ছবি: আশীষ সেনগুপ্ত

সারাবাংলা/টিএস/পিএম

জমজমাট জয় বাংলা কনসার্টে প্রাণের উচ্ছ্বাস
জমজমাট জয় বাংলা কনসার্টে প্রাণের উচ্ছ্বাস