মঙ্গলবার ২১ আগস্ট, ২০১৮, ৬ ভাদ্র, ১৪২৫, ৯ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

EID MUBARAK

টাইগ্রেসদের অনুপ্রেরণায় বিসিবি প্রেসিডেন্ট পাপন

জুলাই ৯, ২০১৮ | ৪:৩৪ অপরাহ্ণ

।। স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট ।।

পাপুয়া নিউ গিনিকে ৮ উইকেটে উড়িয়ে দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই অভিযান শুরু করেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নেদারল্যান্ডসকেও উড়িয়ে দিয়েছেন সালমারা। মাত্র ৪৩ রানের লক্ষ্যটা বাংলাদেশ টপকে গেছে ৭ উইকেট ও ৭৩ বল হাতে রেখে। টাইগ্রেসদের এমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে খুশি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। এই সফরে দলের সঙ্গী না হলেও তিনি অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছেন।

ভারতকে হারিয়ে টাইগ্রেসদের এশিয়া কাপ জয়ের স্মৃতিটা এখনো তরতাজা। মালয়েশিয়ার সেই সুখস্মৃতি সঙ্গী করেই বাংলাদেশের মেয়েদের সামনে আসে নতুন চ্যালেঞ্জ। নেদারল্যান্ডসে হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব। সেখানেও তারা টানা দুই ম্যাচ জিতেছে।

২০১৪ সালে দেশের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলেছিলেন সালমারা। তবে সেবার ছিল স্বাগতিক, এবার চ্যালেঞ্জটা আরও বড়। আর বড় চ্যালেঞ্জকে গ্রহণ করেছে সালমারা, তাতে সমর্থন আর অনুপ্রেরণা দিয়ে যাচ্ছেন বিসিবি সভাপতি পাপন। এশিয়া কাপে জেতার পর দলের মানসিকতায় আমূল পরিবর্তন এনেছেন বিসিবি প্রধান। দলের উন্নতি ধরা দিয়েছে তার চোখে।

এইতো কদিন আগেই আয়ারল্যান্ডকে ২-১ ব্যবধানে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। দেশের বাইরে সেটাই টাইগ্রেসদের প্রথম কোনো সিরিজ জয়। ফলে, বসে থাকেননি পাপন, দলের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে নিজেই ছুটে গিয়েছিলেন আয়ারল্যান্ডে, ডাবলিনের মাঠে। নিজের মেয়েদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন ম্যাচ সেরার ট্রফি। বল হাতে সেই সিরিজে বাংলাদেশের পেসার জাহানারা আলম ছিলেন উজ্জ্বল, ডাবলিনে নিয়েছিলেন ২৮ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট, যা তার ক্যারিয়ার সেরা পারফরম্যান্স। পাপন তার হাতে পুরস্কার তুলে দিয়েছিলেন। আইসিসির বার্ষিক কনফারেন্সে যোগ দিতে সে সময় ডাবলিনে ছিলেন পাপন। ব্যস্ততার মাঝেও সময় বের করেই মাঠে উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি।

গত কিছুদিনে সবকিছু বদলে যাওয়াতে নিজেদের দায়িত্বটা বেড়েছে টাইগ্রেসদের। নেদারল্যান্ডসে উড়াল দেওয়ার আগে সেটা জানিয়েছেন রুমানা আহমেদ, ‘আসলে আমরা শুরু করেছি ২০০৭ সাল থেকে তার মানে আমাদের ১০-১১ বছর হয়ে গেছে। নারী ক্রিকেট শুরু হওয়ার পর থেকে সবাই জানে একটু অবহেলার উপরেই ছিলাম। তারপরও আমাদের নিজেদের পরিশ্রম ছিল। সাফল্যের পেছনে ছুটতাম আমরা। এটা (এশিয়া কাপ) আমাদের বিরাট অর্জন। এই অর্জনের পর বোর্ড আমাদের দিকে বিশেষভাবে তাকাচ্ছে। বিসিবি প্রধান আমাদের বেতন বাড়িয়ে দিয়েছেন। হঠাৎ করে প্রধানমন্ত্রীও আমাদের ডেকে নিয়েছিলেন। সব কিছুতেই পরিবর্তন আসছে। এটা কিন্তু শুধু আমাদের জন্য তা না, টোটাল ওমেন্স উইংয়ের জন্য কাজে দেবে। এই সাফল্য সামনের দিনের জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করবে।’

চারটি দল ভাগ হয়ে খেলছে দুই গ্রুপে। সেখান থেকে সেমিফাইনালের পর দুই ফাইনালিস্ট খেলবে নভেম্বরে, ওয়েস্ট ইন্ডিজে হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। বাছাইপর্বে বাংলাদেশের পরের ম্যাচটি আরব আমিরাতের মেয়েদের বিপক্ষে। টানা দুটি ম্যাচ জিতে এরই মধ্যে সালমা-রুমানারা ফাইনালের পথে পা দিয়ে রেখেছেন। বিসিবি প্রধানের অনুপ্রেরণা বাংলাদেশের মেয়েদের আরও সাহস যোগাবে, সেটা বলাই যায়।

সারাবাংলা/এমআরপি

টাইগ্রেসদের অনুপ্রেরণায় বিসিবি প্রেসিডেন্ট পাপন
টাইগ্রেসদের অনুপ্রেরণায় বিসিবি প্রেসিডেন্ট পাপন