সোমবার ১৮ জুন, ২০১৮, ৪ আষাঢ়, ১৪২৫, ২ শাওয়াল, ১৪৩৯

‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ কী আসলেই নকল?

মার্চ ৫, ২০১৮ | ৭:৫৭ অপরাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট ডেস্ক ।।

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সবচেয়ে আখাঙ্ক্ষিত পুরস্কারের নাম অস্কার। এটি পেতে সারাবছর ধরে উন্মুখ হয়ে বসে থাকেন হলিউডি সিনে-মানুষরা। অন্য দেশের অনেক পরিচালকও চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন এই পুরস্কার জেতার লক্ষ্য নিয়ে। কারণ এই ‘সোনালী মানব’ যেমন ভবিষ্যতের তারকা নির্ধারণ করে দেয়, তেমনি অনেক কিংবদন্তীর স্বীকৃতিও আসে এই পুরস্কারপ্রাপ্তির সূত্র ধরে!

একাডেমি অফ মোশন পিকচার আর্টস এন্ড সায়েন্সেস প্রদত্ত পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো এই পুরস্কারের ৯০তম আসরের পর্দা নামলো সোমবার। এবারের অস্কারে ১৩টি বিভাগে মনোনয়ন পেয়ে সেরা পরিচালক, অরিজিন্যাল স্কোর, প্রোডাকশন ডিজাইনসহ সেরা সিনেমার বিভাগে পুরস্কার ঘরে তোলে ‘দ্য শেপ অব ওয়াটার’ ছবিটি।

পদক দেয়ার ক্ষেত্রে একাডেমি পুরস্কারের জুরিবোর্ড সবসময় মৌলিক গল্পের সিনেমাকেই বেছে নেয়। তবে এবারে সেরা ছবির পদক জেতা ‘দ্য শেপ অব ওয়াটার’ ছবিটির বিরুদ্ধে এসেছে নকলের অভিযোগ। কেবল অভিযোগই নয়, সত্যিই বেশ কয়েকটি সিনেমার দৃশ্য, গল্পের প্রেক্ষাপট ও বিস্তারের সঙ্গে মিল রয়েছে ছবিটির। তাই ছবিটি পুরস্কৃত হওয়াতে অবাক হয়েছেন সিনেমাপ্রেমীরা!

‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ গিয়েরমো দেল তোরো পরিচালিত একটি কল্পনা নির্ভর ড্রামা ফিল্ম, যেখানে একজন প্রতিবন্ধী নারী অসুস্থ রিভার গড বা জলমানবের প্রেমে পড়েন। নির্মাণের মুন্সিয়ানার কারণে চলতি মৌসুমের সব নামী দামী পুরস্কারই নিজের করে নিয়েছে ছবিটি। তবে ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে স্বর্ণসিংহ জেতার পরই ছবিটি নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। এরপর সিনেমাটি অন্যান্য বড় পুরস্কারগুলোও নিজের দখলে নিতে শুরু করলে অভিযোগের বিস্তারও একটু একটু করে বাড়তে থাকে!

সমালোচকেরা বলছেন, পুলিৎজার পুরস্কার জেতা নাট্যকার পল জিন্ডেলের লেখা জনপ্রিয় মঞ্চনাটক ‘লেট মি হিয়ার ইউর হুইসপার’ থেকে ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’-এর গল্প চুরি করা হয়েছে! ১৯৬৯ সালে লেখা এ নাটক থেকে ১৯৯০ সালে একটি টেলিছবিও বানানো হয়েছিল!

২০১৫ সালে নেদারল্যান্ড ফিল্ম একাডেমি থেকে মুক্তি পায় ‘স্পেস বিটুইন আস’ নামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। নেদারল্যান্ডের চলচ্চিত্র পড়ুয়া শিক্ষার্থী মার্ক এস. নলকায়েম্পার এর বানানো ১৩ মিনিট ব্যাপ্তির এই ছবিটির সঙ্গেও ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ ছবির গল্পের মিল রয়েছে।

এছাড়াও, ফ্রেন্স পরিচালক জিয়ান পিয়েরে জনেট সম্প্রতি অভিযোগ করেছেন, ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ ছবির একটি দৃশ্যের সঙ্গে তার ‘দেলিকেতেসেন’ ছবির একটি দৃশ্যের মিল রয়েছে। দুটি দৃশ্যেই একজন নারী ও পুরুষ ঘনিষ্ট হয়ে একসঙ্গে বসে হালকা চালের একটি নাচের দৃশ্যে অভিনয় করেন, যেখানে পেছনে টেলিভিশনে একটি পুরনো সংগীত নির্ভর নাটক চলতে দেখা যায়। ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ ছবিতেও এমন একটি দৃশ্য রয়েছে। তবে অস্কার জেতা সিনেমাটিতে পায়ের নাচ দেখানো হলেও ‘দেলিকেতেসেন’ ছবিতে দেখানো হয়েছে পুরো শরীর।

ছোটদৈর্ঘ্যের সিনেমা ‘স্পেস বিটুইন আস’ ছবিটির সঙ্গে ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ সিনেমার গল্পের পটভূমির মিল রয়েছে। দুটো ছবিতেই একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী এক বন্দী উভচর মানুষের প্রেমে পড়ে এবং তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে। তবে মঞ্চনাটক ‘লেট মি হিয়ার ইউর হুইসপার’ এর সঙ্গে ছবিটির আরো বেশি মিল রয়েছে।

প্রয়াত পল জিন্ডেলের পুত্রবধূ র‌্যাচেল স্টাইলের বরাত দিয়ে হলিউড রিপোর্টার লিখেছে, ‘লেট মি হিয়ার ইউর হুইসপার’ নাটকটিতে মূল নারী চরিত্রটি বেশি রকমের অন্তর্মূখী স্বভাবের, অপর দিকে ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’-এর মূল চরিত্রে স্যালি হকিন্স অভিনয় করেছেন একজন বাকপ্রতিবন্ধীর ভূমিকায়।

এছাড়াও দুটি গল্পেই স্নায়ুযুদ্ধের সময়কার একটি ল্যাব দেখানো হয়েছে যেটি সামরিক বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা পরিচালিত হয়। ১৯৬৯ এবং ২০১৭ সাল ভিন্ন সময় হলেও দুটোতেই উভচর মানবকে খাওয়ানো এবং নাচ দেখানোর কাজটি করেন অভিনেত্রী। এমনকি দুই জায়গাতেই বন্দী জলচরকে উদ্ধারে লন্ড্রীকার ব্যবহার করা হয়, এবং উদ্ধারকত্রীর নাম থাকে এলিসা।

তবে ‘লেট মি হিয়ার ইউর হুইসপার’ এর সঙ্গে এবারের অস্কারের সেরা ছবিটির অমিলও রয়েছে বেশ। সিনেমার নারী চরিত্রটি বাকপ্রতিবন্ধী হলেও নাটকে ‘এলিসা’ চরিত্রটি একজন স্বাভাবিক নারী। যদিও লজ্জাজনিত কারণে তাকে কথা বলতে শোনা যায়না। এছাড়া নাটকেরে জলজ প্রাণীটি একটি ডলফিন আর সিনেমায় সেটি জলমানব। দুটো কাহিনীর সমাপ্তিতে বেশ নাটকীয়তা থাকলেও পরিণতি ছিল ভিন্ন।

এই ছবিটি অস্কার পুরস্কার জেতার পর পলের ছেলে ডেভিড জিন্ডেল অবশ্য বেশ সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা অনেক আশাহত যে এমন একটি নকল সিনেমা পুরস্কৃত হয়েছে। আমার বাবার কাজ নকল করে তোরো সামান্য ধন্যবাদও দেয়নি।’ তবে সমালোচনা করলেও ‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ ছবির নির্মাণের প্রসংশা করেছেন ডেভিড।

অন্তর্জাল অবলম্বনে তুহিন সাইফুল ইসলাম

‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ কী আসলেই নকল?
‘দ্য শেপ অফ ওয়াটার’ কী আসলেই নকল?