শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৬ আশ্বিন, ১৪২৫, ৯ মুহররম, ১৪৪০

‘নেইমারের কাছে একটু বেশিই প্রত্যাশা করি’

জুলাই ১১, ২০১৮ | ৮:৪৯ অপরাহ্ণ

।। স্পোর্টস ডেস্ক ।।

জার্মানি, স্পেন, আর্জেন্টিনার বিদায়ের পর এবারের বিশ্বকাপ আসরের হট ফেভারিট ছিল লাতিন আমেরিকার শেষ ভরসা ব্রাজিল। লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো বিদায় নেওয়ার পর পাদ-প্রদীপের আলোয় ছিলেন নেইমার। তবে, রাশিয়া ছেড়েছেন হতাশ হয়ে। দেশে ফেরার সময় তার চোখে মুখে ছিল হতাশার ছাপ। কারণ খালি হাতেই দেশে ফিরতে হয়েছে নেইমারকে। দেশে ফিরেও আলোচিত-সমালোচিত নেইমার। তবে, সব সময়ের মতো তার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন দেশটির কিংবদন্তি ফুটবলার রোনালডো।

বেলজিয়ামের কাছে হেরে নেইমারের মতো স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে ব্রাজিল সমর্থকদের। কোয়ার্টার ফাইনালে হারার পর তিনি কোনো কথাই বলেননি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে। মিক্সড জোনেও এড়িয়ে গেছেন সাংবাদিকদের। দেশে ফিরেও বিমানবন্দরে দেখা দেননি অপেক্ষারত সাংবাদিক-সমর্থকদের। তাতে ক্ষেপেছেন উপস্থিত ব্রাজিল ভক্তরাও।

তবে, সময় গড়ানোর সাথে সাথে নেইমার গণমাধ্যমে কথা না বললেও নিজের স্বপ্ন ভঙ্গের কথা জানান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবল তারকা তার নিজের ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন নিজের কষ্টের কথা, ‘আমার ক্যারিয়ারের সবেচেয়ে দুঃখের দিন এটি। এটা অনেক বড় যন্ত্রণার। আমরা অনেক দূর যেতে পারতাম, ইতিহাস গড়ার সুযোগ ছিল আমাদের সামনে। কিন্তু সেটা এবার হলো না। নতুন করে ফুটবল খেলার শক্তিটাই যেন আর পাচ্ছি না।’

এদিকে, যতই টুর্নামেন্ট গড়িয়েছে, নেইমার যেন নিজেকে ধীরে ধীরে ফিরে পাচ্ছিলেন। গ্রুপ পর্বে কোস্টারিকার বিপক্ষে একটি গোল করার পর শেষ ষোলোর ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে একটি গোল করার পাশাপাশি করিয়েছেন একটি। নেইমারের খামখেয়ালী আচরণে খানিকটা বিরক্ত নেইমারের ব্রাজিলিয়ান পূর্বসূরি রোনালডো। তবে, দ্য ফেনোমেনন মনে করছেন, নেইমারকে নিয়ে এত সমালোচনার কোনো মানে নেই।

রোনালডো নতুন করে জানালেন, আমরা নেইমারের কাছে একটু বেশিই প্রত্যাশা করি। কারণ, সে দলের সেরা ফুটবলার। পায়ের মারাত্মক ইনজুরি থেকে সেড়ে উঠেই সে বিশ্ব মঞ্চে খেলতে নেমেছিল। এটা খুব সাধারণ কিছু নয়। পায়ে অস্ত্রপচারের পর পুরোপুরি ফিটনেস পেতেই যেখানে সময় লাগে, সেখানে নেইমার বিশ্বকাপে খেলেছে দুর্দান্ত। প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে তাকে কঠিন পরীক্ষা দিতে হয়েছিল। তবে, ধীরে ধীরে নেইমার ফিরে আসছিল নিজের চেনা ছন্দে।

রোনালডো আরও যোগ করেন, নেইমার দুটি বিশ্বকাপ থেকে অনেক কিছুই শিখেছে। ২৫-২৬ বছরের একটা ছেলে এরই মধ্যে বিশ্ব সেরাদের টপকে যাচ্ছে। দারুণ মেধাবী এক খেলোয়াড় নেইমার। সে বেশ ভালো করেই জানে ব্রাজিলের অগনিত ভক্ত-সমর্থক তার কাছে কী চায়, সে জানে দেশের জার্সিতে তার দায়িত্ব কী। আমি বলতে চাই নেইমারের আরও কিছু শেখার বাকি আছে, বাকি আছে নিজের আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করার।

সারাবাংলা/এমআরপি

‘নেইমারের কাছে একটু বেশিই প্রত্যাশা করি’
‘নেইমারের কাছে একটু বেশিই প্রত্যাশা করি’