রবিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং , ১২ ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৭ জমাদিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের চোখ কমনওয়েলথে, ক্রিকেট-আর্চারি নিয়ে স্বপ্ন

ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৯ | ৯:১৮ অপরাহ্ণ

।। স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট।।
ঢাকাঃ এখনও তিন বছর বাকী কমনওয়েলথ গেমসের। বার্মিংহামে ২০২২ সালে হবে জায়ান্ট এই ক্রীড়াযজ্ঞ। দেশের ক্রীড়াবিদদের জন্য কমনওয়েলথ গেমস একটি বিশেষ সম্মানের। অলিম্পিক অধরা হলেও কমনওয়েলথে পদক আছে বাংলাদেশের। তবে, এশিয়ান অঞ্চলে তুমুল জনপ্রিয় ক্রিকেট নেই কমনওয়েলথ গেমসে।

যদিও কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোরই ক্রিকেটে দাপট দেখাচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া থেকে শুরু করে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে নিউজিল্যান্ড-ভারত-পাকিস্তান ও বাংলাদেশের দাপট বিশ্বজুড়ে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে, জনপ্রিয় এই ইভেন্টটিই নেই এই গেমসে। তবে, অন্তর্ভূক্তির কথা ভাবছে দেশগুলো। বাংলাদেশ অন্তত চায় ক্রিকেট অন্তর্ভূক্ত হোক।

সবশেষ ১৯৯৮ সালের কুয়ালালামপুর কমনওয়েলথ গেমসে প্রথম এবং শেষবারের মতো অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল খেলাটি। বাংলাদেশও সেই গেমসের ক্রিকেটে দল পাঠিয়েছি। হার অবশ্য প্রতি ম্যাচেই।

তবে ২০২২ সালের বার্মিংহাম কমনওয়েলথ গেমসে ফের ক্রিকেটকে অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা চলছে। আর সেই প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। ২৭-২৮ জানুয়ারি বার্মিংহামে অনুষ্ঠিত হয় কমনওয়েলথ গেমস কমিটির সভা ও ওয়ার্কশপ। এই সভায় আগামী কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেটকে পুনরায় আন্তর্ভুক্ত করার জোর দাবি জানান তিনি। সাথে আরচারিও। পাশাপাশি শুটিংকে ডিসিপ্লিনের মধ্যে রাখার জন্যও দাবি জানান তিনি। শাহেদ রেজা বললেন এই কথা।

বিজ্ঞাপন

ক্রিকেটের মতো এই গেমসে অনিয়মিত জনপ্রিয় অলিম্পিক ইভেন্ট আরচারিও। মাত্র দুই বার অ্যারচারি অন্তর্ভুক্ত ছিল কমনওয়েলথ গেমসে। তা ১৯৮২ সালের ব্রিসবেন এবং ২০১০ এর দিল্লি গেমসে। আগামী বার্মিংহাম গেমসে এই আরচারিকেও অন্তর্ভুক্ত করার দাবি শাহেদ রেজার। তিনি কমনওয়েলথ গেমসে এশিয়া অঞ্চলের নির্বাচিত প্রতিনিধি। তাই দাবিটা তিনিই করেন। বিওএ মহাসচিব জানান, মে মাসের মধ্যে বার্মিংহাম কমনওয়েলথ গেমস কমিটির সভা। তখন ২০২২ সালের ডিসিপ্লিন চূড়ান্ত হবে।

শাহেদ রেজা এক সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘ক্রিকেট তো কমনওয়েলথ দেশগুলোর খেলা। দীর্ঘ দিন ধরেই এই দেশগুলোতে চর্চা হচ্ছে খেলাটি। তাই কমনওয়েল গেমসে কেন তা থাকবে না। একই সাথে বলেছি আরচারিকেও অন্তর্ভুক্ত করতে।’ গেমসটির সাথে লম্বা সময়ের সম্পর্ক শুটিংয়ের। এই গেমসে দু’টি স্বর্ণসহ বাংলাদেশের যা কিছু পদক প্রাপ্তি এই ডিসিপ্লিন থেকেই।

সর্বশেষ ২০১৮ এর গোল্ডকোস্ট কমনওয়েলথ গেমসে বাংলাদেশের দুটি রৌপ্য আসে শুটিং থেকে। অথচ ২০২২ সালের গেমসে থেকে বাদ দেয়া হয় এই শুটিংও।

বিওএ মহাসচিব জানান, আমি বলেছি শুটিংতো সব সময়ই হয়ে আসছে কমনওয়েলথ গেমসে। তাহলে এখন কেন তা বাদ দেয়া হবে। তাই আমি শুটিংকে বাদ না দেয়ার জন্য আবেদন করে বক্তব্য দিয়েছি।’ তার মতে, আমার এই দাবির প্রতিবাদ করেনি কোনো দেশ। যার অর্থ সবারই সমর্থন আছে। আমি সব দেশের স্বার্থ দেখেই প্রস্তাব দিয়েছি। জানান, আমার বক্তব্য আমি দিয়েছি। এখন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত পরে জানা যাবে।

আগামী কমনওয়েলথ গেমসে হ্যান্ডবলকে অন্তর্ভুক্তির জন্য আবেদন করেছেন আফ্রিকা মহাদেশের প্রতিনিধি। এখন গেমস কমিটি মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে সভা করে তাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে।

বার্মিংহাম কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেট এবং আরচারি অন্তর্ভুক্ত হলে বাংলাদেশের পদক জয়ের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হবে। শুটিং থাকলে তো কথাই নেই।

সারাবাংলা/জেএইচ

বাংলাদেশের চোখ কমনওয়েলথে, ক্রিকেট-আর্চারি নিয়ে স্বপ্ন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন