বৃহস্পতিবার ১৯ জুলাই, ২০১৮, ৪ শ্রাবণ, ১৪২৫, ৫ জিলক্বদ, ১৪৩৯

বৈঠক ব্যর্থ, মাদ্রাসা শিক্ষকদের অনশন চলবে

জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ | ৬:১৭ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

বেতন-ভাতা নিয়ে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষকদের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের বৈঠক ব্যর্থ হয়েছে। বৈঠকে দাবি মানার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না আসায় আন্দোলনকারী শিক্ষকরা অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

রোববার সচিবালয়ে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে তিন দফায় বৈঠক হয়। বৈঠকে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীও উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে শিক্ষকদের সুনির্দিষ্ট কোনো আশ্বাস না দিয়ে অনশন ভাঙার প্রস্তাব দেন দুই মন্ত্রী। তবে মন্ত্রীদের সে আশ্বাস প্রত্যাখ্যান করে শিক্ষকরা অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকেন।

বৈঠক শেষে বিকেলে শিক্ষক সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেসুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সকাল থেকে কয়েকদফা বৈঠক হয়েছে। কিন্তু প্রতিবারই আমাদের কেবল আশ্বাস দিয়ে অনশন তুলে নেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। আমরা শিক্ষামন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সে প্রস্তাবে রাজি হইনি। আমরা অনশন চালিয়ে যাব। দাবি আদায় না হওয়া পর‌্যন্ত অনশন চলবে।’

এ বিষয়ে শিক্ষক নেতা আবু সাঈদ সারাবাংলাকে বলেন, ‘সরকার মনে করছে আমরা প্রতিকূল পরিবেশে অনশন চালিয়ে যেতে পারবো না। বাধ্য হয়েই রণেভঙ্গ দেব। তাই তারা আমাদের সঙ্গে এক ধরণের প্রতারণামূলক খেলা খেলছে। আমরা এসব বুঝি। অনশন চলবে।’

তিনি আরও বলেন, বেলা ১১টা থেকে আমাদের শিক্ষক নেতারা মন্ত্রীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন। কিন্তু তারা শুন্য হাতে ফিরে এসেছেন। সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী ও মহাসচিব কাজী মোখলেসুর রহমানসহ পাঁচ জন শিক্ষক নেতা মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

টানা ৬ দিনের আমরণ অনশনের পর রবিবার শিক্ষামন্ত্রীর দফতর থেকে আলোচনার জন্য ডাক আসে শিক্ষকদের। এরপরে এক ধরণের স্বস্তি ফিরে আসে শিক্ষকদের মধ্যে। তবে আলোচনা ব্যর্থ হওয়ায় শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা নেমে এসেছে।

দিনের শুরুতে প্রথমে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও মহাসচিব প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলীর সঙ্গে এককভাবে বৈঠক করেন। এরপর দুপুর ১টার দিকে আবারো বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ উপস্থিত ছিলেন। সে বৈঠকেও কোনো সিদ্ধান্তে আসেনি। পরে বিকেল ৩টার দিকে আবারো বৈঠকের জন্য ডাকা হয় শিক্ষকদের। এসময় সভাপতি ও মহাসচিবসহ ৫ শিক্ষক নেতা অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের নিবন্ধিত সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা জাতীয়করণের দাবিতে ১ জানুয়ারি থেকে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি শুরু হয়। কিন্তু দাবি পূরণ না হওয়ায় ৯ জানুয়ারি থেকে তারা আমরণ অনশন শুরু করেন।

সারাবাংলা/এমএস/এনএস

বৈঠক ব্যর্থ, মাদ্রাসা শিক্ষকদের অনশন চলবে
বৈঠক ব্যর্থ, মাদ্রাসা শিক্ষকদের অনশন চলবে