রবিবার ১৯ আগস্ট, ২০১৮, ৪ ভাদ্র, ১৪২৫, ৭ জিলহজ্জ, ১৪৩৯

যুদ্ধ দিনের জহির রায়হান

জানুয়ারি ৩০, ২০১৮ | ১:২৬ অপরাহ্ণ

রাহাত মিনহাজ, শিক্ষক ও গবেষক

যুদ্ধের অন্যতম অপরিহার্য অনুসঙ্গ প্রচারণা। যুদ্ধ মানেই তথ্য সন্ত্রাস, তথ্য বিকৃতি। যুদ্ধ মানেই বিকৃত ও মিথ্যা তথ্যে মনোজগৎ দখলের নিরন্তর চেষ্টা। বিংশ শতাব্দিতে যুদ্ধ নিয়ে প্রচার-প্রচারণার অনন্য নজীর স্থাপন করেছিলেন হিটলারের প্রোপাগান্ডা মিনিট্রি’র (Reich Ministry of Public Enlightenment and Propaganda) প্রধান জোসেফ গোয়েবেলস্। যার মূল দর্শণ ছিল `If you tell a lie big enough and keep repeating it, people will eventually come to believe it`.

ডাহা মিথ্যা তথ্য প্রচার ও জনগণের ভাবজগৎ দখলের সেই মডেল ১৯৭১ সালে অনুসরণ করে ইয়াহিয়ার পাকিস্তান। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কাল রাতে ক্র্যাকডাউনের পর পাকিস্তানিরা তাদের গণহত্যাকে জায়েজ করার চেষ্টা শুরু করে। তারা দেখাতে চায় ভারতের মদদপুষ্ট দুষ্কৃতিকারীরা ঢাকা তথা পূর্ব পাকিস্তানে বর্বর আক্রমণ পরিচালনা করছে। যার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নিচ্ছে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী।

পাকিস্তানি সেনা জান্তার এই মতবাদকে প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করেছিল এক শ্রেণীর ভাড়াটে সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবীরাও। তবে এই প্রচারণার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন একজন বাঙালি। যার নাম জহির রায়হান। বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম উজ্জ্বল চলচ্চিত্র নির্মাতা, সাহিত্যিক। ভিনদেশী এক বহুল প্রচলিত গণমাধ্যমকে জহির রায়হান এক সাক্ষাৎকার দেন। তাতে তিনি বলেন `In Bangladesh the most surprising aspect that was when a military unit was moving for an operation, they were (Pakistani army) destroying and killing people, they were taking shots by a movie camera of the dead body, after burning a house they were taking shots of the burnt house by a movie camera, after unveiling the people to loot a shop they were taking shots of those looters by a movie camera and later on when I heard and when I saw they edited those portion and release it to our people telling and showing that the bangalis killing non bangalis and because of this chaos and confusions, they had to intervene, It was an utter lie’

বিশ্ব গণমাধ্যমে জহির রায়হানের এই বক্তব্য বিশেষ প্রভাব রেখেছিল। পূর্ব পাকিস্তানে যে গণহত্যা চলছে তা সাইমন ড্রিং ও এ্যান্থনী মাসকারেনহাসের মাধ্যমে বিশ্ববাসী আগে থেকেই জানতো। পরে পাকিস্তানিদের বর্বরতা সবাই আরও নানাভাবে জেনেছে। যাতে জাহির রায়হানের এই বক্তব্য মিলে যাওয়ায় পাকিস্তানিদের নৃসংশতা উপলব্ধি করা সহজ হয় বিশ্ববাসীর।

যুদ্ধ দিনে জাহির রায়হানের আরও এক অনন্য অবদান ‘স্টপ জেনোসাইড’। যা পূর্ব বাংলায় সংঘঠিত গণহত্যার অন্যতম প্রধান প্রামাণ্য দলিল। মাত্র ১৮ মিনিটের এই তথ্য চিত্রে জহির রায়হান বাংলার বুকে পাকিস্তানিদের বর্বরতাকে তুলে ধরেছেন। যা তুলনা করা হয়েছে হালাকু খান ও এ্যাডলফ হিটলারের গণহত্যার সাথে। এই তথ্য চিত্রে ভারতে আশ্রয় নেওয়া লাখ লাখ শরণার্থীর চরম দু:খ, দুর্দশার উঠে এসেছে। মানুষ কিভাবে প্রতিকূল পরিবেশে বিপদ সঙ্কুল পথ পাড়ি দিয়ে প্রাণভয়ে সীমান্ত পাড়ি দিচ্ছে তার জীবন্ত বর্ণনা রয়েছে স্টপ জেনোসাইডে। তথ্য চিত্রে তুলে ধরা কাদা মাখা প্রতিকূল পথের যে বর্ণনা তুলে ধরা হয়েছে তা এক কথায় অসাধারণ। এই তথ্যচিত্র নির্মাণে জহির রায়হানকে একান্তভাবে সহযোগিতা করেন আরেক গুণী চলচ্চিত্রকার আলমগীর কবীর। আর এতে স্পষ্ট প্রভাব ছিল কিউবান চলচ্চিত্র নির্মাতা সান্টিয়াগো আলভারেজের (Santiago Álvarez)। ৩৫ মিলিমিটার ফরমেটে সাদা-কালো এই তথ্য চিত্রের মূল লক্ষ্যই ছিল বিশ্বব্যাপী বাঙালির মুক্তি সংগ্রাম নিয়ে বিশ্ব জনমত তৈরী করা।

১৯৭১ সালে ১৭ এপ্রিল আনুষ্ঠানিকভাবে মুজিবনগর সরকার গঠিত হওয়ার পর এই সরকারের অধীনে ‘চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা দফতর’ নামের একটি বিভাগ চালু করা হয়। সে সময় কলকাতায় আশ্রয় নেওয়া অনেক গুণী মানুষ এই বিভাগের সাথে যুক্ত ছিলেন। তবে দু:খের বিষয় স্টপ জেনোসাইড করতে গিয়ে এই বিভাগের কোন সহযোগিতা পাননি জহির রায়হান। সে সময়ে কলাকতায় অবস্থান করা যুব নেতারা তাঁর বিরোধীতা করেছেন। জহির রায়হানের সাথে ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। এ বিষয়ে তিনি তাঁর অকুন্ঠ সমর্থন পান। সাথে এই চলচ্চিত্র সম্পর্কে আগ্রহ দেখান ভারতের সেই সময়ের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধি। তিনি এই চলচ্চিত্র ক্রয় করে তা দেশে বিদেশে প্রদর্শন করার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত বিভাগকে নির্দেশ দেন। মাত্র ১৮ মিনিটের এই তথ্যচিত্র ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মাটিতে সংঘঠিত গণহত্যার প্রমাণ্য দলিলে পরিণত হয়। যা বাংলাদেশের পক্ষে জনমত তৈরীতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এই তথ্যচিত্রের মূল চিত্রধারণ সম্পন্ন হয় কলকতায় স্থাপিত শরণার্থী ক্যাম্পগুলোতে। যা এক বিশেষ আবেদন তুলে ধরে বিবেকবান বিশ্ববাসীর কাছে।

যুদ্ধদিনে কলকাতায় জহির রায়হান বিশেষ ভূমিকা রাখলেও স্বাধীন বাংলাদেশে তাঁর জন্য অপেক্ষা করছিল ভীষণ এক খারাপ খবর। বিজয়ের ঊষালগ্নে জহির রায়হানের ভাই সাংবাদিক, সাহিত্যিক শহীদুল্লা কাউসারকে তুলে নিয়ে যায় আল বদর বাহিনী। এই ভাইকে খুঁজতেই পাগলের মত এখানে সেখানে চষে বেড়িয়েছেন জহির রায়হান। সবশেষ ১৯৭২ সালে ৩০ জানুয়ারি ভাইয়ের সন্ধানে একদল সেনার সাথে গিয়েছিলেন মিরপুরে। মিরপুর তখনও এক বিপদসঙ্কুল এলাকা। পারাজিত পাক সেনারা তাদের প্রচুর অস্ত্র বিহারীদের হাতে তুলে দেয়। যার মাধ্যমে পুরো মিরপুরকে তারা একটা দূর্গে পরিণত। শত্রুদের এই দূর্গেই ভাইয়ের সন্ধানে গিয়ে শহীদ হন জহির রায়হান।

এক জেনারেলের সাক্ষাতে জহির রায়হানের মৃত্যু

জহির রায়হানের অন্তর্ধান বা মৃত্যু নিয়ে নানা কথা প্রচলিত আছে। এ বিষয়ে বহুল আলোচিতসব ষড়যন্ত্র তত্ত্ব অনেকেই প্রতিপক্ষকে ব্রিবত করতে ব্যবহার করে থাকেন। তবে জহির রায়হানের মৃত্যু নিয়ে এক বিশেষ গ্রহণযোগ্য বর্ণনা পাওয়া যায় মেজর জেনারেল মইনুল হোসেন চৌধুরি (অব:) বীর বিক্রমের ‘এক জেনারেলের নীরব সাক্ষ্য’ বইতে। তাতে তিনি উল্লেখ করেন ‘তিনি (জহির রায়হান) ভাই শহীদুল্লাহ কায়সারের খোঁজেই মিরপুর যান। ভোরবেলায় তিনি মিরপুরে গেলে সৈন্যরা তাঁকে ভেতরে যেতে বাধা দেয়। পরে সৈনিকেরা তাঁকে ২নং সেকশনে কোম্পানি অধিনায়ক ক্যাপ্টেন হেলাল মোর্শেদের কাছে নিয়ে যায়।
ক্যাপ্টেন মোর্শেদ তখন পুলিশ ও তাঁর প্লাটুন কমান্ডারদের সাথে সমন্বয় সভায় ব্যস্ত। ক্যাপ্টেন মোর্শেদকে তাঁর আসার উদ্দেশ্য জানানোর পর তিনি বলেন ‘ঠিক আছে তিনি পুলিশের সাথে ভেতরে যেতে পারেন।’ এই বলে ক্যাপ্টেন মোর্শেদ তাঁর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। প্রাথমিক তদন্তের সময় সাড়ে ১১ নং সেকশনে মোতায়েন সৈন্যদের কয়েকজন জানান, সকাল ৯টা/১০টার দিকে তাঁরা হালকা-পাতলা গড়নের একজন বেসামরিক লোককে সাড়ে ১১ ও ১২ নং সেকশনের মাঝামাঝি রাস্তায় একা একা হাঁটতে দেখেন। এছাড়া জহির রায়হানের ছবি দেখার পর সৈন্যদের কয়েকজন ওই রকম গড়নের একজনকে দেখেন বলেও জানান। ১১ টার দিকে বিহারীরা সৈন্যদের ওপর আক্রমণ করে। অতর্কিত সেই আক্রমণে সৈন্যদের সাথে তিনিও নিহত হন। তবে ঠিক কোন জায়গায় তিনি নিহত হন তখন তা সঠিক কেউ বলতে পারেনি। ৪২ জন সেনাসদস্যদের মধ্যে তিন চারজনের মৃতদেহ পাওয়া যায়। জহির রায়হায়নসহ বাকি কারোই মৃতদেহ পাওয়া যায়নি।’(পৃষ্ঠা ৩৩-৩৪)

জহির রায়হানের অন্তর্ধান নিয়ে এটাই আজও অধিকতর গ্রহণযোগ্য ঘটনাপ্রবাহ।

 

(লেখক, শিক্ষক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় minhaz_uddin_du@yahoo.com)

যুদ্ধ দিনের জহির রায়হান
যুদ্ধ দিনের জহির রায়হান