বুধবার ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ , ১২ বৈশাখ, ১৪২৫, ৮ শাবান, ১৪৩৯

স্বর্ণের দাম বাড়ায় বিপাকে ক্রেতারা, কমেছে বিক্রি

জানুয়ারি ১২, ২০১৮ | ৯:০৬ পূর্বাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিয়ের মৌসুমে ফের সোনার দাম বাড়ায় গহনা কেনায় বেগ পোহাতে হচ্ছে ক্রেতাদের। দোকানীরা বলছেন, স্বর্ণের দাম বাড়ায় বিক্রি কমেছে তাদের। তবে কোনো কোনো বিক্রেতা বলছেন বাজারে এখনো তেমন কোন প্রভাব পড়েনি।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ১০ জানুয়ারি থেকে সোনার নতুন দাম ঠিক করে। এতে সবচেয়ে ভালো ২২ ক্যারেট ওজনের প্রতি ভরি স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে ৫০ হাজার ৭৩৮ টাকায়। এর আগে একই মানের স্বর্ণ বিক্রি হতো ৪৯ হাজার ৩৩৮ টাকায়।

বায়তুল মোকাররম মার্কেটে লালবাগ থেকে গয়না কিনতে আসা রুমা সারাবাংলাকে বলেন, নিকট আত্মীয়ের জন্য স্বর্ণের চেইন উপহার দেওয়ার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু দাম বাড়ায় এখন উপযুক্ত অর্নামেন্ট পাচ্ছি না। যারা নিন্ম শ্রেণীর তাদের গহনা ক্রয়ে আরও বেশি কষ্ট হচ্ছে। একই ধরনের কথা জানান বসুন্ধরা শপিং মলে গহনা কিনতে আসা আরেকজন  ক্রেতাও।

বিক্রেতারা বলছেন সোনার দাম বাড়ায় বেচাকেনা কমেছে। বায়তুল মোকাররমের অনন্যা জুয়েলার্সের বিক্রয়কর্মী অতুল প্রাসাদ দাস সারাবাংলাকে বলেন, ‘গত দুইদিনে আগের চেয়ে বেচাকেনা কমেছে। দাম বাড়ায় কিছুটা প্রভাব পড়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিয়ের মৌসুমে সব সময় দাম বাড়ে। তবে অন্য সময় বেচাকেনা ভালো হলেও এখন ক্রেতা নেই বললেই চলে।’

ঢাকা জুয়েলার্সের কর্মচারী খোকন ঘোষ বলেন, ‘কাল থেকে আজ পর্যন্ত বেচাকেনা কমেছে। স্বর্ণের দাম স্থিতিশীল থাকলে বেচাকেনা ভালো হয়।’ তবে ফার্মেগেটের ফার্মভিউ মার্কেটের চৈতি জুয়েলার্সের এক কর্মচারী জানান, সবে কাল (বুধবার) দাম বেড়েছে। বাজারে এর প্রভাব পড়তে কয়েকদিন সময় লাগবে।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) দাবি, অন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ার কারণে দেশীয় বাজারে তা সামঞ্জস্য করতেই সোনার দাম বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া সোনার কাঁচামাল আমদানিতে খরচ বেড়ে যাওয়া ও বৈশ্বিক অস্থিরতাও দাম বাড়ার  কারণ। ক্রেতা বিক্রেতা উভয়েই বিয়ের মৌসুমের কথা বললেও বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা জানান, দাম বাড়ানোর পেছনে কোনো কারণেই বিয়ের মৌসুমকে ইস্যু করা হয়নি।

নতুন মূল্য তালিকা অনুযায়ী, বর্তমানে ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৪৮ হাজার ৪০৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের ৪৩ হাজার ১৫৬ টাকা, সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি ২৬ হাজার ৫৬৫ টাকা ও ২১ গ্রামের প্রতি ভরি রুপা ১ হাজার ৪৯ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজুসের তথ্যমতে, সর্বশেষ ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে সোনার দাম কমে। তবে একই বছরের ২৫ ডিসেম্বর থেকে দাম বাড়িয়ে নতুন দাম ঠিক করা হয়। আর এ বছরের ১০ জানুয়ারি থেকে ২২ ক্যারেট প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয় ৪ হাজার ৩৫০ টাকা।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা সারাবাংলাকে বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ার পরেও আমরা ১০ দিন অপেক্ষা করেছি। রেট বাড়াতে চায়নি। রেট না বাড়ানোয় ব্যবসায়ীদের একটা শ্রেণীর মধ্যেও অসন্তোষ ছিল।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিয়ের মৌসুম হওয়ায় সোনার দাম বাড়ানো হয়নি। আন্তর্জাতিক বাজারের সাথে সামঞ্জস্য করতেই দাম বাড়াতে হয়েছে। তবে স্বর্ণ নীতিমালা ও আমদানিতে ট্যাক্স কমানো হলে ভবিষ্যতে স্বর্ণের দাম কমতে পারে।

সারাবাংলা/ইএইচটি/জেডেএফ

 

আরও পড়ুন