শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৬ আশ্বিন, ১৪২৫, ৯ মুহররম, ১৪৪০

হলে ছবি প্রদর্শনের খরচ কমছে

জুন ২০, ২০১৮ | ৫:৫৬ অপরাহ্ণ

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট ।।

সিনেমা নির্মাণের মতো প্রেক্ষাগৃহে তা প্রদর্শনও বেশ খরচের ব্যাপার। প্রজেক্টর ও সাউন্ড সিস্টেম ভাড়া করার কারণে প্রতিটি সফল সিনেমার জন্য প্রযোজককে গুনতে হয় কমপক্ষে ২৫ থেকে ৩০ লক্ষ টাকা। এ কারণে সিনেমায় অর্থলগ্নিকারীরা অনেক দিন থেকেই রয়েছেন বিপাকে।

এবার প্রযোজকদের কিছুটা স্বস্তি দিতে এগিয়ে এসেছে লাইভ এস.কে টেকনোলজিস। সাধারন প্রযোজকের কথা চিন্তা করে প্রতিষ্ঠানটি সিনেমা হলে ডিজিটাল সিনেমা প্রজেকশন সিস্টেম বসাচ্ছে। ইতোমধ্যেই সর্বাধুনিক প্রজেক্টর, সাউন্ড ও সার্ভার মেশিন বিতরণ শুরু করেছে তারা। প্রথমে সার্ভার সিস্টেম বিতরণের মাধ্যমে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে লাইভ এস.কে টেকনোলজিস পরিচালক ইয়াসির আরাফাত বলেন, ‘বাংলাদেশে চলচ্চিত্রের ব্যবসার উন্নয়নের জন্য এই উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। ৩৫ এম.এম এর সময় হলে সিনেমা প্রদর্শনের জন্য প্রযোজককে টাকা দিতে হতো না কিন্তু এখন দিতে হয়। শুধুমাত্র তাই নয় প্রদর্শন মেশিনের ভাড়ার জন্য অনেক হল মালিক ছবি চালাতে পারে না। এতে করে দিনে দিনে হলের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে।’

প্রতিষ্ঠানটির ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর তামজিদ-উল-আলম অতুল বলেন, ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের অনেকের সাথে আলোচনা করেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি।সিনিয়র  অভিনেতা ফারুকের সঙ্গে আলোচনা করেছি। তেমনি আলোচনা করেছি হল মালিক সমিতি, প্রদর্শক, বুকিং এজেন্ট সমিতি এবং প্রযোজকদের সঙ্গে। এখান থেকে কোনওভাবে মুভি পাইরেসি করা সম্ভব নয়।’

প্রসঙ্গত, এই পদ্ধতিতে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের জন্য প্রযোজককে এককালীন মাস্টারিং চার্জ পঞ্চাশ হাজার টাকা এবং আমদানী, যৌথ প্রযোজনা ও বিদেশী ছবির জন্য এককালীন মাস্টারিং চার্জ দুই লাখ টাকা দিতে হবে। পুরনো বাংলাদেশি ছবির জন্য কোন মাস্টারিং চার্জ লাগবে না।

সারাবাংলা/টিএস/পিএ

হলে ছবি প্রদর্শনের খরচ কমছে
হলে ছবি প্রদর্শনের খরচ কমছে