শনিবার ২০ জানুয়ারি, ২০১৮, ৭ মাঘ, ১৪২৪, ২ জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯

Live Score

হাথুরুকে কৃতিত্ব দিচ্ছেন মাশরাফি, কিন্তু…

জানুয়ারি ১৪, ২০১৮ | ৩:৪৫ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বিপক্ষ শিবিরে ফেরায় প্রশ্নটা উঠে আসছে বার বার। বাংলাদেশের সবকিছু তো এই শ্রীলঙ্কান জানেন, কতটা বাড়তি সুবিধা পাবেন তিনি? বাংলাদেশের গত তিন বছরের ভালো করার কতটুকু কৃতিত্বই বা তার? সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বিন মুর্তজা স্পষ্ট করেই বললেন, কৃতিত্ব কোচের থাকলেও মাঠে করে দেখানোর কাজটা খেলোয়াড়েরাই করেছেন।

হিথ স্ট্রিক, হাথুরুসিংহে দুজনেই গত কয়েকটা বছর বাংলাদেশকে দেখেছেন খুব কাছ থেকে। সাকিবদের অন্ধিসন্ধির খবর তাদেরও খুব ভালো জানার কথা। তবে স্ট্রিক, হাথুরুসিংহে দুজনেই যেমন বললেন আধুনিক ক্রিকেটে এটা বাড়তি কোনো সুবিধা খুব একটা দেবে না। মাশরাফিও তা মানলেন, তবে হাথুরু-স্ট্রিকের কথা মাথায় রেখে যে তারা পরিকল্পনা করেছেন, সেটাও জানিয়ে দিলেন।

টাইগার অধিনায়ক জানান, ‘আমাদের পুরো দল সম্পর্কে তাদের ধারণা থাকতে পারে। হিথ স্ট্রিক প্রায় দেড়-দুই বছর হলো বাংলাদেশ থেকে গিয়েছে। হাথুরুসিংহে সম্প্রতি গিয়েছে। তার বিশ্লেষণ কিছুটা হলেও কাছাকাছি হতে পারে। সে আমাদের শেষ সিরিজেও ছিল। ওদের চিন্তা ভাবনা যে পরিকল্পনা করতে পারে সেটা আমাদেরও সবাই জানে। আমাদেরকেও ওভাবে পরিকল্পনা করতে হবে। যদি আমাদের পরিকল্পনার মিনিমাম ৭০-৮০ ভাগ মাঠে প্রয়োগ করতে পারি তাহলে আশা করি সমস্যা হবে না।’

তবে বাংলাদেশ দলে গত দুই আড়াই বছরের সাফল্যের জন্য হাথুরুকে কৃতিত্ব দিতে আপত্তি নেই মাশরাফির, ‘দেখেন বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমে যারা খেলোয়াড় আছে তাদের মানসিকতা অনেক বড়। খেলোয়াড়দের পক্ষ থেকে আমি হাথুরুসিংহকে স্যালুট জানাই। অবশ্যই তার অধীনে খেলে আমরা ভালো ফল পেয়েছি। অবশ্যই কৃতিত্ব তাকে দিতে আমাদের বিন্দুমাত্র সংকোচ নেই।’

কিন্তু সেই সঙ্গে মনেও করিয়ে দিলেন, ‘আবার আমাদের বলতে হবে ২২ গজে আমরাই করে দেখিয়েছি। আমাদের তামিমের রেকর্ড, মুশফিকের রেকর্ড শেষ বছরে যদি দেখেন সাকিবের ক্যারিয়ার, মোস্তাফিজ… এগুলো যদি আলাদা আলাদা করে দেখেন… ২২ গজে কোচ তাদেরকে বিশেষ কিছু করে দেয়নি। তাদের নিজেদের এটা করে নিতে হয়েছে। চাপটা তাদের নিতে হয়েছে। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ যখন সেঞ্চুরি করে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তখন আমার কাছে মনে হয়নি কেউ ওখানে গিয়ে তাদেরকে আলাদা করে ধরে খেলিয়ে দিয়ে আসছে। সে তার সামর্থ্য অনুযায়ী খেলার চেষ্টা করেছে।’

এই সিরিজের জন্য অবশ্য মাশরাফিদের দায়িত্বও অনেক বেড়ে যাচ্ছে। প্রধান কোচ নেই, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন তো বলেই দিয়েছেন, সাকিব-মাশরাফিসহ সিনিয়ররাই এবার কোচ। সঙ্গে খালেদ মাহমুদ সুজনের নেতৃত্বে কোচিং স্টাফ তো আছেনই। মাশরাফি ভরসা রাখছেন তাদের ওপরেই।

‘এখন যারা কোচিং স্টাফ আছেন; হ্যালসল, চাচা (খালেদ মাহমুদ সুজন) আছেন, আমরা ওনাদেরও ১০০ পারসেন্ট ব্যাক আপ দেওয়ার চেষ্টা করবো। উনারাও আমাদের ১০০ পারসেন্ট ব্যাকআপ করছে। অবশ্যই পেশাদারিত্ব দেখিয়ে সবকিছু চলবে। এবং চলছে। হাথুরুকে শুভকামনা, কিন্তু আমরা আমাদেরটা নিয়ে বেশি চিন্তা করছি।’যোগ করেন ম্যাশ।

সারাবাংলা/এএম