বৃহস্পতিবার ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং , ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৫ই রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

২-০’তে সিরিজ হারলো স্বাগতিকরা

ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৮ | ৬:৫৯ অপরাহ্ণ

সারাবাংলা ডেস্ক

দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে জিতে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা শ্রীলঙ্কা সিরিজের শেষ ম্যাচেও জিতেছে। তাদের ছুঁড়ে দেওয়া ২১১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে স্বাগতিক বাংলাদেশ ১৮.৪ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে তোলে ১৩৫ রান। লঙ্কানরা ৭৫ রানে ম্যাচ জেতার পাশাপাশি সিরিজ জেতে ২-০ ব্যবধানে।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এই প্রথমবার বাংলাদেশ জাতীয় দল খেলতে নামে। টস জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নির্ধারিত ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে সফরকারীরা তোলে ২১০ রান।

লঙ্কানদের ওপেনিংয়ে নামেন দানুসকা গুনাথিলাকা এবং কুশল মেন্ডিস। ওপেনিং জুটি ভাঙেন অনিয়মিত বোলার সৌম্য সরকার। দলীয় ৯৮ রানের মাথায় সৌম্য ফিরিয়ে দেন ৩৭ বলে তিনটি চার আর দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৪৩ রান করা গুনাথিলাকাকে। ইনিংসের ১৬তম ওভারে দলীয় ১৪৯ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেট হারায় লঙ্কানরা। অভিষিক্ত আবু জায়েদ রাহী ফিরিয়ে দেন ১৭ বলে ৩১ রান করা থিসারা পেরেরাকে। সাজঘরে ফেরার আগে পেরেরার ব্যাট থেকে আসে তিনটি বাউন্ডারি আর একটি ওভার বাউন্ডারি।

১৭তম ওভারে নিজের তৃতীয় ওভার করতে এসে মোস্তাফিজ পান প্রথম উইকেট, লঙ্কানরা হারায় তৃতীয় উইকেট। ব্যক্তিগত ৭০ রান করে ওপেনার কুশল মেন্ডিস বিদায় নেন। তার ৪২ বলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার আর ৩টি ছক্কার মার। শেষ ওভারে সাইফউদ্দিন ফেরান উপুল থারাঙ্গাকে। আউট হওয়ার আগে ১৩ বলে ৪টি চার আর ১টি ছক্কায় ২৫ রান করেন তিনি। দাসুন শানাকা ১১ বলে ৫টি চার আর ১টি ছক্কায় ৩০ রান করে অপরাজিত থাকেন।

সিলেটের এই ভেন্যুর আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়েছে আরও চার বছর আগে। এখানে বিপিএলের উত্তেজনা দেখা গেছে ক’দিন আগেই। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টি দিয়ে এই স্টেডিয়ামের সঙ্গে স্বাগতিকদের পথচলা শুরু হলো। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় শুরু হয় সিরিজের শেষ ম্যাচটি।

ওপেনিংয়ে নামেন তামিম ইকবাল এবং সৌম্য সরকার। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে কোনো রান না করেই ফেরেন সৌম্য সরকার। দলীয় ১৪ রানের মাথায় বিদায় নেন ৬ রান করা মুশফিকুর রহিম। তৃতীয় ওভারে বিদায় নেন ৫ রান করা মোহাম্মদ মিঠুন। দলীয় ২২ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। অষ্টম ওভারে ফেরেন দুটি চার আর দুটি ছয়ে ২৩ বলে ২৯ রান করা তামিম। নিজেকে প্রমাণে ব্যর্থ আরিফুল হক বিদায় নেন মাত্র ২ রান করে। দলীয় ৬৮ রানেই বাংলাদেশ ৫ উইকেট হারায়।

এরপর জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ-সাইফউদ্দিন। দলীয় ১১০ রানে রান আউট হয়ে বিদায় নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার আগে ৩১ বলে ৪টি চার আর একটি ছক্কায় করেন ৪১ রান। স্কোরবোর্ডে আর ৩ রান যোগ হতেই সাজঘরে ফেরেন ২১ বলে ২০ রান করা মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। দলীয় ১৩২ রানের মাথায় বিদায় নেন ১১ বলে ১১ রান করা মেহেদি হাসান। এরপর বিদায় নেন ৮ রান করা মোস্তাফিজুর রহমান। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায় নেন আবু জায়েদ রাহী।

বাংলাদেশ দলে চারটি পরিবর্তন আসে। তামিম ইকবাল চোট কাটিয়ে দলে ফিরেছেন, বাইরে চলে গেছেন ওপেনার জাকির হাসান। আফিফ হোসেনের জায়গায় দলে আসেন আরেক অফ স্পিনার মেহেদী হাসান। সাব্বির রহমান বাজে ফর্মের খেসারত দিয়ে বাদ পড়েন, তার জায়গায় এসেছেন মোহাম্মদ মিঠুন। আর রুবেল হোসেনের জায়গায় ঘরের মাঠে অভিষেক হয় আবু জায়েদ রাহীর। ত্রিদেশীয় সিরিজের ব্যর্থতা, লঙ্কানদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের হার আর দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে দলীয় রানের রেকর্ড গড়েও পরাজয় বাংলাদেশকে একরকম কোণঠাসা করে রেখেছিল। শেষ ম্যাচে হেরেও সেটা বজায় থাকলো।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, আরিফুল হক, মেহেদী হাসান, সাইফ উদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান, আবু জায়েদ রাহী, নাজমুল ইসলাম অপু।

শ্রীলঙ্কা একাদশ: উপুল থারাঙ্গা, দানুসকা গুনাথিলাকা, কুশল মেন্ডিস, দিনেশ চান্দিমাল, জীবন মেন্ডিস, থিসারা পেরেরা, দাসুন শানাকা, আকিলা ধনাঞ্জয়া, শিহান মাদুসানকা, ইসুরু উদানা, আমিলা আপোনসো।

সারাবাংলা/এমআরপি

২-০’তে সিরিজ হারলো স্বাগতিকরা
২-০’তে সিরিজ হারলো স্বাগতিকরা
২-০’তে সিরিজ হারলো স্বাগতিকরা