বিজ্ঞাপন

থ্রো ব্লাংকেটে ঘর সাজানো

July 7, 2018 | 7:07 pm

রাজনীন ফারজানা ।।

বিজ্ঞাপন

 

কম্বল যে শুধু গায়ে দেয় তাই নয়, ঘর সাজাতেও কম্বল ব্যবহার করা যায়। আপনার বাসার সাজসজ্জায় নতুনত্ব আনতে পুরনো ফার্নিচার না বদলেই থ্রো ব্লাংকেটের সাহায্যে দিতে পারেন নতুন একটা মেকওভার।

বিজ্ঞাপন

থ্রো ব্লাংকেট সোফা কিংবা চেয়ারে কিছুটা রঙ আনার একসসেসরি হিসেবে একদম পারফেক্ট। একরঙা সোফায় কিছুটা বৈচিত্র্য যোগ করতে নানাভাবে ভাঁজ করে রাখা যায় এসব থ্রো ব্লাংকেট। যদি থ্রো ব্লাংকেট খুঁজে না পান তবে রঙ বেরঙের ঝালরযুক্ত শীতের চাদর দিয়েই বানিয়ে ফেলতে পারেন থ্রো ব্লাংকেট।

আসুন দেখে নেই কী কী ভাবে কম্বল ভাঁজ করে সাজানো যায় সোফা কিংবা চেয়ার

বিজ্ঞাপন

 

ভাঁজ করে পেছন থেকে ঝুলিয়ে দেওয়া

বিজ্ঞাপন

যদি অর্গানাইজড অর্থাৎ ছিমছাম ও পরিচ্ছন্ন ভাব পছন্দ করেন তবে এই নিয়মে কম্বল ভাঁজ করে সাজালে ভালো লাগবে দেখতে। প্রথমে চাদর কিংবা কম্বল নিয়ে লম্বালম্বি ভাবে তিন ভাঁজ দিন। অর্থাৎ প্রথমে একটা ভাঁজ দিয়ে সেটাকে মুড়িয়ে আরেকটা আর দ্বিতীয় অংশ মুড়িয়ে তৃতীয় ভাঁজ দিন। এবার একে মাঝ বরাবর ভাঁজ করে সোফা কিংবা চেয়ারের এক পাশে রাখুন। টানটান করে দিন। কিছুটা চওড়া কম্বল বা চাদর না হলে আবার এটা দেখতে ভালো লাগবেনা। চিকন চাদর হলে এভাবে সাজানোর প্রয়োজন নাই। কম্বলের উপর দিয়েই সাজাতে পারেন রঙ বেরঙের কুশন। এইভাবে শুধু সোফাই নয়, সাজাতে পারেন চেয়ার কিংবা আরামকেদারাও। এক্ষেত্রে কম্বল চেয়ারের হেলান দেওয়া অংশের পাশাপাশি হাতলের উপর রাখলেও ভালো দেখাবে।

বিজ্ঞাপন
থ্রো ব্লাংকেটে ঘর সাজানো

 

ফ্লিপ ফ্লপ পদ্ধতি

প্রথমেই কম্বলটাকে আড়াআড়ি ভাবে আধাআধি ভাঁজ করে নিন। এবার হাতের কনুই থেকে কব্জির অংশের বরাবর নিন। তারপর হাতের এই অংশের সাহায্যেই সোফার এক পাশে আলগাভাবে রাখুন। রাখার সময় কিছুটা এলোমেলো হলেও সমস্যা নাই। এবার কম্বল বা চাদরের উপর দিয়েই কুশন সাজাতে পারবেন। থ্রো ব্লাংকেট না পেয়ে যদি শীতের চাদর ব্যবহার করেন তবে এই পদ্ধতিতে সাজালে ভালো লাগবে। একইভাবে ফ্লিপ ফ্লপ পদ্ধতিতে ভাঁজ করে থ্রো ব্লাংকেট রাখতে পারেন চেয়ার কিংবা আরামকেদারাতেও।

থ্রো ব্লাংকেটে ঘর সাজানো

ফ্লিপ এন্ড টস পদ্ধতি

ফ্লিপ ফ্লপের মতোই আড়াআড়ি ভাঁজ করে নিন কম্বল কিংবা চাদরটাকে। তারপর হাত দিয়ে উপর থেকে ছুঁড়ে দেওয়ার মত করে সোফা কিংবা চেয়ারের এক কোনে কিছুটা ছড়িয়ে ফেলে দিন। এতে কিছুটা এলোমেলো আর আন্তরিক লাগবে ঘরটাকে। এবার এর উপর দিয়েই কুশন কিংবা পিলো সাজিয়ে ফেলুন।

থ্রো ব্লাংকেটে ঘর সাজানো

ভাঁজ করার ঝামেলায় না যেতে চাইলে এমনিতেই নিজের ইচ্ছামত সোফার যেকোন এক কোণে, মাঝে কিংবা চেয়ারের হাতলেও ছড়িয়ে ফেলে রাখতে পারেন থ্রো ব্লাংকেট কিংবা চাদর।

থ্রো ব্লাংকেটে ঘর সাজানো

আর দেরী কেন। আজই থ্রো ব্লাংকেট কিংবা চাদর দিয়ে আপনার গৃহকোণকে দিয়ে ফেলুন দারুণ একটা মেকওভার।

 

 ছবি- সংগৃহীত

সারাবাংলা/আরএফ

 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন