বিজ্ঞাপন

৭০ বছরের দাম্পত্যে একটি রাতও আলাদা থাকেননি তারা!

July 16, 2018 | 9:11 am

।। আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।।

বিজ্ঞাপন

আলবার্ট টোয়িনলি ও ফিলিস— দু’জনেই কাজ করতেন ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর রয়েল সিগন্যাল বিভাগে। তাদের প্রথম দেখা লন্ডনে, আজ থেকে ৭২ বছর আগে। সেটা ১৯৪৬ সাল। এরপর প্রেম। প্রেমের টানে সেনাবাহিনীর চাকরিটাও ছেড়ে দিলেন। সাসেক্সে গিয়ে একসাথে শুরু করলেন মাংসের ব্যবসা। বছর দুয়ের পরই বিয়ে। অবাক করার বিষয়— ৭০ বছরের সুদীর্ঘ এই দাম্পত্য জীবনে তারা দু’জন একটি রাতের জন্যও একে অপরকে ছাড়া থাকেননি!

গত বুধবার (১১ জুলাই) ৭০ বছর পূর্ণ হয়েছে টোয়িনলি-ফিলিসের দাম্পত্যের।

বিজ্ঞাপন

সম্পর্কের রসায়ন জানাতে ফিলিস (৯১) বলেন, আমাদের সম্পর্কে বলার মতো গোপন কিছু নেই। আমরা শুধুই একটি সুখী দম্পতি। আমি বলব না আমাদের খারাপ সময় কাটেনি। কিন্তু আমরা ভীষণভাবে আমাদের জীবন উপভোগ করেছি।

সন্তানদের বড় করে সফল ব্যবসায়ী আলবার্ট ও ফিলিস ৩০ বছর আগেই কর্মজীবন থেকে অবসর নেন। এরপর তারা স্থায়ীভাবে বসবাস করতে শুরু করেন এসেক্সে। তাদের লক্ষ্য ছিল, যেন আরও অন্তরঙ্গ হয়ে বাকি জীবনটা কাটাতে পারেন।

বিজ্ঞাপন

৭০ বছরের দাম্পত্যে একটি রাতও আলাদা থাকেননি তারা!

বাবা-মায়ের এই দীর্ঘ দাম্পত্য নিয়ে তাদের মেয়ে ক্যারোলিন গার্ড বলেন, দু’বছর আগেও বাবা গাড়ি চালাতেন। মা’কে নিয়ে একসাথে ঘুরে বেড়াতেন। এখন ঘরেই তাদের বেশিরভাগ সময় কাটে। টিভিতে খেলাধুলা দেখতে পছন্দ করেন তারা। পছন্দ করেন বই পড়তে ও ধাঁধা মেলাতে।

বিজ্ঞাপন

মা-বাবাকে নিয়ে ক্যারোলিনের বিশ্লেষণ খুব সহজ— তাদের দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনের পেছনে রয়েছে পারস্পরিক সহনশীলতা ও যৌথ সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা। অমিলগুলো তারা খুব বেশি সময় মনে রাখে না। এ ছাড়া সম্পর্ক ধরে রাখতে সূক্ষ্ণ রসবোধ ও একসাথে প্রচুর হাসি প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে আমার বাবা-মায়ের কোনো কমতি ছিল না।

এদিকে, নতুন দম্পতিদের প্রতি আলবার্টের (৯৫) পরামর্শ, পরস্পরের প্রতি সম্মান বজায় রাখতে হবে ও কোনো কিছু গোপন করা যাবে না। কিছু ভুল হলে তা মেনে নিতে হবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এনএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন