রবিবার ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ক্রোয়েশিয়ার চোখের গরম জল মুছে দিয়েছে বৃষ্টি

জুলাই ১৬, ২০১৮ | ৮:১৬ অপরাহ্ণ

।। স্পোর্টস ডেস্ক ।।

বিজ্ঞাপন

মস্কোর লুঝনিকিতে দৃষ্টি ছিল পুরো ফুটবল বিশ্বের। আর ক্যামেরার চোখে কোটি কোটি ফুটবলপ্রেমী দৃষ্টি রেখেছিলেন টেলিভিশনের পর্দায়। রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনাল শেষে লুঝনিকিতে উড়ে ফ্রান্সের পতাকা। আর চোখের কোণে পানি নিয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে ক্রোয়েশিয়া, হয়তো রেকিটিচ-মদ্রিচ-মানজুকিচদের চোখের কোণা দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়েছিল। সেটা দেখা যায়নি, ফুটবল বিশ্বের দেখা সম্ভব হয়নি বৃষ্টির কারণে। ফাইনাল ম্যাচ শেষ হতে না হতেই প্রবল বর্ষণ শুরু হয় লুঝনিকিতে।

পুরো ম্যাচে দাপট দেখিয়ে খেললেও প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠে রূপকথা সৃষ্টি করা ক্রোয়েশিয়া হারে ৪-২ ব্যবধানে। আর্জেন্টাইন রেফারি নেস্তর পিতানার শেষ বাঁশি বাজার সঙ্গেই ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে দেখা যায় মাঠে থাকা হাজার হাজার ক্রোয়েট সমর্থকদের। বাঁশি বাজার পর সেই কান্নায় যোগ দেন ক্রোয়েশিয়ার ফুটবলাররা।

বিজ্ঞাপন

তাদের চোখের পানিকে মুছে দিতে বিধাতাও যেন তৈরি ছিলেন। চোখে গরম জল নিয়ে একে অপরকে জড়িয়ে ধরেন ক্রোয়েট নায়করা। আর তাদের বুকের সব কষ্ট ধুয়ে মুছে দিতে হাজির হয়েছিলেন বৃষ্টি রানী। হয়তো ক্রোয়েশিয়ার চোখের পানিকে মুছে দিতেই সৃষ্টিকর্তার দান ছিল এটি।

ফরাসিদের হয়ে পেনাল্টি থেকে গোল করেন অ্যান্তোনিও গ্রিজম্যান, অপরটি আত্মঘাতী (মানজুকিচ)। দলের তৃতীয় গোলটি করেন পল পগবা। চতুর্থ গোলটি করেন কাইলিয়ান এমবাপে। এদিকে, ক্রোয়েশিয়ার হয়ে একটি গোল করেন পেরিসিচ। ক্রোয়েটদের দ্বিতীয় গোলটি করেন মানজুকিচ।

ম্যাচের ১৮ মিনিটে ফ্রি-কিক পায় ফরাসিরা। ক্রোয়েশিয়ার ডি-বক্সের বাইরে থেকে শট নেন গ্রিজম্যান। ক্রোয়েশিয়ার তারকা মানজুকিচের মাথায় লেগে বল নিজেদের জালেই জড়িয়ে যায়। ফাইনালের মহারণে আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়ে ক্রোয়েটরা (১-০)। ২৮ মিনিটের মাথায় সমতায় ফেরে ক্রোয়েশিয়া। ভিদার থেকে ফরাসি ডি-বক্সে বল পান পেরিসিচ। বাম পায়ের জোরালো শটে ফ্রান্সের জালে বল জড়িয়ে দেন পেরিসিচ। ম্যাচ ফিরে আসে ১-১ সমতায়। হ্যান্ডবলের সুবাদে ৩৮ মিনিটে পেনাল্টি পেলে শট নেন গ্রিজম্যান। ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক সুবাসিচ বল আকটাতে ব্যর্থ হলে ফ্রান্স এগিয়ে যায় ২-১ গোলে।

এরপর ৫৯ মিনিটে পল পগবার গোলে ৩-১ এ লিড নেয় ফরাসিরা। তার নেওয়া জোরালো শট ক্রোয়েট ডিফেন্সে বাধা পেলে ফিরতি বলে আবারো শট নেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের তারকা পগবা। ক্রোয়েট গোলরক্ষকের পাশ দিয়ে বল জালে জড়িয়ে যায়। খেলার ৬৯ মিনিটে ব্যবধান কমায় ক্রোয়েশিয়া। ফ্রান্সের গোলরক্ষক হুগো লোরিসের ভুলে বল পান মানজুকিচ। প্রতিপক্ষের গোলরক্ষকের পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে জালে জড়িয়ে দেন তিনি (৪-২)। তবে, শেষ অবধি রূপকথার জন্ম দিলেও প্রথমবার শিরোপার কাছে গিয়েও তাতে চুমু দেওয়া হয়নি ক্রোয়েশিয়ার।

সারাবাংলা/এমআরপি

বিজ্ঞাপন
Advertisement
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন