বিজ্ঞাপন

রুটদের জয়ে বাধা হয়ে দাঁড়ালেন স্মিথ

December 30, 2017 | 1:50 pm

সারাবাংলা ডেস্ক

বিজ্ঞাপন

হলো না। জয়টা দেখা দিয়েই মিলিয়ে গেল দূর দিগন্তে। মেলবর্নে বক্সিং ডে টেস্টে সান্ত্বনার জয়টা আর পাওয়া হলো না ইংল্যান্ডের। আবারও স্টিভ স্মিথ বুক চিতিয়ে দাঁড়িয়ে যাওয়ায় রুটদের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে। পার্থক্য একটাই, আগের কবার স্মিথের ইনিংস দলকে জিতিয়েছে, এবার হার ঠেকিয়েছে।

পঞ্চম দিনের উইকেট নিশ্চয় ব্যাটসম্যানদের দিকে বন্ধুতার হাত বাড়িয়ে দেবে না। কিন্তু মেলবোর্নে শেষদিকেও উইকেটে খুব একটা ফাটল ছিল না। বেশ স্লথ হয়ে এসেছিল এই যা, এমন কোনো ব্যাটিং-বিভীষিকা হয়ে যায়নি। তারপরও লাঞ্চের আগেই যখন চার উইকেট পড়ে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার, রুট নিশ্চয় আশায় বুক বেঁধেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়া অবশ্য জানত, এই ম্যাচে ড্রই জয়ের সমান হবে। সকাল থেকে কোনো ঝুঁকি নেননি স্মিথ-ওয়ার্নার। প্রথম ২৭ ওভার দেখেশুনেই পার করেছিলেন দুজন। এর মধ্যেই এক পশলা বৃষ্টি এলো, তবে ওয়ার্নার সেঞ্চুরিটা পেয়ে যাবেন বলেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু ৮৬ রানে গিয়েই যেন মতিভ্রম হয়ে গেল। পার্টটাইমের রুটকে কভারের ওপর দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে টাইমিং হলো না। জন্মদিনে দারুণ একটা উপহার পেলেন রুট, ওয়ার্নার ফিরে গেলেন ২২৭ বলে ৮৬ রানের স্বভাববিপরীত এক ইনিংস খেলে।

এরপর শন মার্শও বেশিক্ষণ টেকেননি। তবে ওয়ার্নারের মতো উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসেননি। অফ স্টাম্পের বাইরে ব্রডের বলটা তাঁকে ব্যাটে লাগাতে বাধ্য করেছে। স্টাম্পের পেছনে দারুণ একটা ক্যাচ নেওয়ার জন্য জনি বেইরস্টোর কৃতিত্বও কম নয়। ১৭৮ রানে তখন চার উইকেট হারিয়ে লাঞ্চে গেছে অস্ট্রেলিয়া, হঠাৎ করেই যেন পড়ে গেছে চাপে।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু স্মিথ ছিলেন ক্রিজে। মিচেল মার্শকে নিয়ে পরের এক ঘণ্টা কাটিয়ে দিয়েছেন দেখেশুনে। কোনো ঝুঁকি নেননি বাড়তি, চা বিরতি পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন ছিলেন দুজন। এর পরেই স্মিথ পেয়ে গেছেন আরেকটি সেঞ্চুরি, টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে অ্যালান বোর্ডার ও স্টিভ ওয়াহর ১৫টি সেঞ্চুরির কীর্তিও ছুঁয়ে ফেলেছেন। অধিনায়ক হিসেবে স্মিথের চেয়ে বেশি সেঞ্চুরি আছে শুধু দুজনের, রিকি পন্টিং (১৯) ও গ্রায়েম স্মিথ (২৫)।

তবে মার্শের কৃতিত্বও কম নয়। ২৯ রানে অপরাজিত ছিলেন ঠিকই, তবে তার জন্য খেলেছেন ১৬৬ বল। স্মিথ অন্য পাশ থেকে এই সঙ্গ না পেলে গল্পটা আজ অন্যরকমও হতে পারত। তাতেই নিশ্চিত হয়ে গেছে, চার বছর পর অ্যাশেজের কোনো ম্যাচ ড্র হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএম

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন