শুক্রবার ২৬ এপ্রিল, ২০১৯ ইং , ১৩ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ শাবান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

গণভবনে সাড়ে ৩ ঘণ্টার সংলাপ

নভেম্বর ১, ২০১৮ | ১০:৪৪ অপরাহ্ণ

।। সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট।।

ঢাকা: আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের সঙ্গে  জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের সংলাপ শেষ হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে বৃহস্পতিবার (১ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হয়ে এ সংলাপ শেষ হয় রাত ১০টা ৪০ মিনিটে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- এখন সবাই মিলে দেশটাকে এগিয়ে নিতে হবে, সংলাপের সূচনায় শেখ হাসিনা

এর আগে, সন্ধ্যায় ৬টা ২০ মিনিট থেকে গণভবনে প্রবেশ করতে থাকেন ঐক্যফ্রন্ট এবং আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের নেতারা। পরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে ব্যাংকুয়েট হলে প্রবেশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার সূচনা বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে সংলাপ শুরু হয় এবং তার সমাপনী বক্তব্য দিয়েই শেষ হয় সংলাপ প্রক্রিয়া।

আরও পড়ুন- প্রলম্বিত হচ্ছে সংলাপ, ডিনার সম্পন্ন

এর মাঝে কিছুটা বিরতি নিয়ে নৈশভোজ সেরে নেন আওয়ামী লীগ, ১৪ দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। নৈশভোজের আগে ও পরে উভয় পক্ষের মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

সংলাপ শেষে গণভবন থেকে বের হওয়ার সময় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী কাজী জাফরউল্লাহ বলেন, ‘ভালো। এ বিষয়ে আমাদের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের কথা বলবেন।’

সাড়ে তিন ঘণ্টার এই সংলাপে উভয় পক্ষের মোট ৪৩ জন নেতা অংশ নেন। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের পক্ষে ছিলেন মোট ২৩ জন। তারা হলেন— দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মতিয়া চৌধুরী, আবদুল মতিন খসরু, কাজী জাফরুল্লাহ, ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম, আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

এছাড়াও আওয়ামী লীগের ড. মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক, রমেশ চন্দ্র সেন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মাহবুব উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, আব্দুর রহমান, ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ, ড. হাছান মাহমুদ ও অ্যাডভোকেট শ. ম. রেজাউল করিম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও মঈনুদ্দিন খান বাদল, সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া এবং ওয়াকার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন বৈঠক অংশ নেন।

অন্যদিকে, ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে সংলাপে ২১ জনের অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় আসতে পারেননি। ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে অংশ নেওয়া বাকি ২০ নেতার মধ্যে ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস ও ড. মঈন খান। তাদের সঙ্গে ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না ও এস এম আকরাম; গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খান ও অ্যাডভোকেট জগলুল হায়দার আফ্রিদ এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ও ম শফিকুল্লাহ। আরও ছিলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন ও সহসভাপতি তানিয়া রব; ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মনসুর ও আ ব ম মোস্তফা আমিন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

আরও পড়ুন-

সংলাপের স্বস্তিতে ইতিহাসের অস্বস্তি

সংলাপ কি ধাপ্পাবাজির? প্রশ্ন মান্নার

সন্ধ্যায় সংলাপ, সবার চোখ গণভবনে

সন্ধ্যায় সংলাপ, সবার চোখ গণভবনে

সংলাপে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২৩ জন

এবার সংলাপের আমন্ত্রণ পেলেন এরশাদ

বিকল্পধারাও সরকারের সঙ্গে সংলাপ চায়

সারাবাংলা’য় আজকের কার্টুন: সংলাপের খাবার

অর্থবহ পরিবর্তনের জন্য সংলাপ হবে: ড. কামাল

ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপে বসবে আ.লীগ: কাদের

এবার জাপার সংলাপের চিঠি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে

সংলাপে ১৬ সদস্য, নেতৃত্বে ড. কামাল, বিএনপির ৫

সংলাপে বসতে প্রধানমন্ত্রীকে এবার বিকল্পধারার চিঠি

‘সংলাপ হয় দু’চার জনে, ২১ জন নিয়ে সংলাপ হয় না’

সংলাপে বসার অহ্বান জানিয়ে আ.লীগকে ঐক্যফ্রন্টের চিঠি

সংলাপে কী মেন্যু পছন্দ? জেনে নেওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর!

প্রধানমন্ত্রীর চিঠি পেলেন ড. কামাল, ১ নভেম্বর গণভবনে সংলাপ

দাওয়াত পেলেন বি. চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপ ২ নভেম্বর

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে সংলাপ ফলপ্রসূ হবে না: বিএনপি

সারাবাংলা/এনআর/একে/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন