সোমবার ১৭ জুন, ২০১৯ ইং , ৩ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৩ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

জুয়েলারি ব্যবসার আড়ালে ডাকাতি, গ্রেফতার ৬

জানুয়ারি ১১, ২০১৯ | ৭:২৩ অপরাহ্ণ

।। স্টাফ করেসপন্ডেন্ট।।

গাজীপুর: টঙ্গীর আফতাব প্লাজায় পোদ্দার জুয়েলারি দোকানে ব্যবসার আড়ালে গড়ে উঠেছিল ডাকাত চক্র। সংঘবদ্ধ এ চক্রের ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১।

শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান র‍্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম।

ডাকাত চক্রের ছয় সদস্যের নেতৃত্বে ছিলেন জুয়েলারি দোকানের মালিক প্রদীপ পোদ্দার (৪১)। তার সহযোগীরা হলেন কাপড় ব্যবসায়ী দুলাল হোসেন (৩০), ও তার স্ত্রী হাজেরা বেগম ওরফে আজান, মো. রাসেল (২২) জাকির হোসেন (২৬), ও কোকিলা বেগম। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৫ ভরি স্বর্ণের অলঙ্কার, চারটি মোবাইল সেট ও ১১ হাজার টাকাসহ বেশকিছু কষ্টিপাথর উদ্ধার করে র‌্যাব।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘চক্রের মূল হোতা প্রদীপ পোদ্দার টঙ্গীর আফতাব প্লাজার দ্বিতীয় তলায় পোদ্দার জুয়েলারির আড়ালে তিনি এই ডাকাত চক্রের নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন। গত তিনবছর ধরে সে ডাকাতির স্বর্ণালঙ্কার ক্রয় করে আসছিল। একপর্যায়ে পুরো চক্রটিকে তিনি হাত করে ফেলেন। এরপরে চক্রের যে কারও আর্থিক সাহায্য থেকে শুরু করে, কেউ মামলায় ফেঁসে গেলে কারাগার থেকে বের করে নিয়ে আসার জন্য উকিলও ঠিক করতেন তিনি।’

র‌্যাব অধিনায়ক বলেন, ‘এ চক্রের অন্য সদস্য দুলাল হোসেন। সে পেশায় একজন কাপড় ব্যবসায়ী। সে বিভিন্ন বাসায় বাসায় ঘুরে কাপড় বিক্রি করে থাকেন। বিক্রির সময় ওই বাসা ফাঁকা পেলে বা বাসায় শুধু বৃদ্ধ মহিলা থাকলে দলবল নিয়ে পরিকল্পিতভাবে ওই বাসায় ডাকাতি করেন। এজন্য সে দীর্ঘদিন ধরে এসব বাসা টার্গেট করেন।’

র‍্যাবের এই অধিনায়ক বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে উত্তরা এবং টঙ্গি এলাকায় বাসাবাড়িতে ডাকাতি হচ্ছে এমন একটি অভিযোগ পেয়ে আসছি আমরা। তার ভিত্তিতে অনেকদিন ধরে গোয়েন্দা নজরদারি চালিয়ে গতকাল রাতে বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তার আগে সর্বশেষ একটি ডাকাতির ঘটনায় সিসি টিভি ফুটেজে আসামি দুলাল শনাক্ত করি আমরা। পরে তাদের বিরুদ্ধে ছায়া তদন্ত করে চক্রের মূল হোতাসহ বাকিদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হই আমরা।’

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আসামি পোদ্দার গত দশবছর ধরে জুয়েলারি ব্যবসার পাশাপাশি ইয়াবার ব্যবসাও করে আসছিল। আসামি দুলাল এর আগে তিনবার গ্রেফতার হয়ে জেল খেটেছিল। জামিন পাওয়ার পর আবার অপরাধে জড়িয়ে পড়ে।’

সারাবাংলা/এসএইচ/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন