রবিবার ১৬ জুন, ২০১৯ ইং , ২ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১২ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

রুশোর আউটেই রংপুরের কপাল পুড়েছে

জানুয়ারি ১১, ২০১৯ | ৯:২৯ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ডায়নামাইটসের দেয়া ১৮৪ রানের লক্ষ্য তারা করতে নেমে দলীয় ২৫ রানে গেইল ও মেহেদি মারুফকে হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় রংপুর রাইডার্স। দলের  এমন অবস্থায়  তৃতীয় উইকেটে দলের হাল ধরেন রাইলি রুশো ও মোহাম্মদ মিঠুন। দুজনের ১২১ রানের জুটিতে জয়ের সুবাস বইতে থাকে রংপুর শিবিরে। কিন্তু হঠাতই ছন্দপতন। অভিষিক্ত আল হাসান আলিসের ঘূর্ণিতে ৪৪ বলে ৮৩ রানের এক ঝড়ো ইনিংস খেলে ক্রিজ ছাড়া হলেন রুশো।

ওই যে শুরু। এরপর তার বলেই বিদায় নিলেন আরেক সেট ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন। উইকেটে দাঁড়াতে পারেননি প্রায়শই জ্বলে ওঠা মাশরাফি এবং অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজাও। প্রথম বোলার হিসেবে বিপিএলে অভিষেক হ্যাটট্টিকের ইতিহাস গড়লেন আলিস। তারপরেও ম্যাচ গড়ালো শেষ ওভারে। এক পর্যায়ে স্বপ্নও দেখেছিলো রংপুর। কিন্তু নাজমুল ইসলাম অপু ও শফিউলের ব্যাটে শেষ রক্ষা হয়নি। উত্তেজনায় ঠাসা ম্যাচটি ২ রানে হেরে গেল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। যার মুল কারণ হিসেবে রুশোর আউটকেই দেখছেন দলপতি মাশরাফি।

বিজ্ঞাপন

‘আমার মনে হয় রুশোর আউট টা। তাও আবার দুটো সেট ব্যাটসম্যান আউট হয়ে যাওয়া। রুশোর পর মিঠুন। আমার কাছে মনে হয় যে রান টা এত হওয়ার কথা না ওদের। আমরা অনেক বাজে ফিল্ডিং করছি। নইলে হয়তো বা আরও ক্লোজ হতো। বিপিএলে মনে হয় আজকেই সেরা ম্যাচটা হয়েছে। উইকেট যেরকম ছিল এরকম থাকলে আরও অনেক ম্যাচ দেখা যাবে এমন। আজকে উইকেটটাও অনেক ভালো ছিল সত্যি কথা।’

শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

বিপিএলের চলতি আসরে নিজেদের তিন ম্যাচের সবক’টিতে জিতেছে সাকিবের ঢাকা। সেখানে রংপুর ৪ ম্যাচে ২টিতে। কাজেই নিজেদেরর চাইতে টুর্নামেন্টে সাকিবদেরই এগিয়ে রাখছেন মাশরাফি। সেটা সব বিবেচনায়ই।

হ্যাঁ, অবশ্যই। আপনি যদি দেখেন তারা অনেক ভারসাম্যপূর্ণ।  কারণ তারা টপ অর্ডারে প্রথম ৬ ওভারে ব্যবহার করার মতো প্লেয়ার আছে। মাঝে সাকিব আছে, রনিও (রনি তালুকতার) ভালো খেলছে। এছাড়া উপরের ছয়ে অনেকে ভালো খেলছে। শুধু রনি ছাড়া। নারিন, যাযাই এরা অনেক ভাল করছে আর বটমে ধরেন সাকিব সেট থাকলে আর শেষদিকে বিশ্বের সেরা দুই খেলোয়াড়ই ওদের সো ওরা টিম ওয়াইজ ব্যাটিং বোলিং সব দিকেই ব্যালেন্সড।’

‘অবশ্যই কুমিল্লাও ভালো। আমরাও খারাপ করছিনা। আমরা যদিও ক্লোজ ম্যাচ হেরেছি। যদিও দুইটা ম্যাচ খুব কাছে গিয়েই হেরেছি সো আমার কাছে মনে হয় না শুরুর স্টেজটা লড়াই করে যাওয়াটা আমার কাছে মনে হয় না খারাপ। কারণ টিমের দূর্বলতাগুলো সামনে আসে। কিন্তু এক দুইয়ে থাকতে হলে এই ম্যাচগুলো জেতাটা উচিত।’ যোগ করেন ম্যাশ।

সারাবাংলা/এমআরএফ

Advertisement
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন