শনিবার ২৫ মে, ২০১৯ ইং , ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ রমজান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

বিধ্বস্ত চেলসি, সারি বললেন ‘সরি’

ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ | ১:০৪ অপরাহ্ণ

।। স্পোর্টস ডেস্ক ।।

এমন হারটা অবশ্য কোচ হিসেবে কখনোই আশা করেননি মাউরিজিও সারি। অথচ ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে রোববার (১০ ফেরুয়ারি) রাতে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত হতে হয়েছে তার দল চেলসিকে। তাই ম্যাচের পর দুঃখপ্রকাশ করা ছাড়া আর কিছুই ছিলনা তার।

১৯৯১ সালের এপ্রিলে নটিংহাম ফরেস্টের বিপক্ষে ৭-০ গোলে হারের পর চেলসির সবচেয়ে বড় পরাজয় এটিই।

বিজ্ঞাপন

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে পেপ গার্দিওলার দল সিটির বিপক্ষে প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে নেমে ২৫ মিনিটের মধ্যেই ৪-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে চেলসি। চতুর্থ মিনিটেই গোল করেন রহিম স্টার্লিং। এরপর ম্যাচের ১৩ ও ১৯ মিনিটে দুটি গোল করেন সার্জিও আগুয়েরো। আর ২৫ মিনিটে সে ব্যবধান আরো বাড়ান গুন্ডোগান।

এরপর ম্যাচের ৫৬ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করেন আগুয়েরো। আর ৮০ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন স্টার্লিং। তাতেই ৬-০ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সিটি।

এই ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন চেলসি কোচ সারি। এমন হারের পর হয়তো দুঃখপ্রকাশ করা ছাড়া তেমন কিছুই বলার ছিলনা তার। ৬৯ বছর বয়সী ইতালিয়ান এই কোচ সেটাই বলেন, ‘আমরা প্রতিপক্ষের মাঠে শেষ তিনটি ম্যাচে খুব খারাপভাবে খেলেছি, তাই দুঃখিত বলা ছাড়া আর কিছু নেই।’

নিজের ক্যারিয়ারে এমনভাবে কখনো হারতে হয়নি বলেও মন্তব্য করেন এই কোচ, ‘এটা ছিল আমার জীবনের সবচেয়ে দুঃস্বপ্নের রাত। এমন হারের বর্ননা কীভাবে করতে হয়, সেটা আমার জানা নেই।’

ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলি থেকে এই মৌসুমেই চেলসিতে যোগ দেন সারি। দলের এমন পারফরম্যান্সে এই ক্লাবে কোচের দায়িত্ব নিয়ে সমস্যায় পড়তে হবে কিনা, এমন প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়েছে সারিকে। জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি জানি না। এটা আসলে আমার সিদ্ধান্তের বাইরের প্রশ্ন। আপনারা এটা ক্লাবকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। আমি সেকথা ভাবছি না। আমি ভাবছি, আমাদের দলীয় পারফরম্যান্সের কথা। আমি শিখতে চাই, বুঝতে চাই। আমি খেলোয়াড়দের মাধ্যমে নিজের সেরাটা দিতে চাই। এমন মুহূর্তের জন্যই আমাকে ‘দুঃখিত’ বলতে হচ্ছে।’

সারাবাংলা/এসএন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন