রবিবার ২১ এপ্রিল, ২০১৯ ইং , ৮ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৪ শাবান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক আশাব্যঞ্জক: মোদি

ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ | ৮:০১ অপরাহ্ণ

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ।।

ঢাকা: বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সহযোগিতার সম্পর্ক অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ভারতের নদীয়ায় তেল ও গ্যাস খাতে এশিয়ার সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক কনফারেন্স ও প্রদর্শনী ‘পেট্রোটেক ২০১৯’ দ্বিবার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। তিন দিনের এই সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন

সম্মেলনে নরেন্দ্র মোদি বলেন, আশা করা যায়, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের এই অংশীদারিত্ব আনুপাতিক হারে বাড়বে।

মন্ত্রী পর্যায়ের সেশনে তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ২০০৯ সাল থেকে বিদ্যুৎ ও জ্বালনি খাতকে এগিয়ে নেওয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ও আঞ্চলিক সহযোগিতার অংশ হিসেবে যেন সব স্তরের মানুষের কাছে এই সুবিধা পৌঁছানো যায়, সে চেষ্টা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুত অগ্রগতির কারণ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা বলেন, গত ১০ বছরে শেখ হাসিনা সরকার মানবসম্পদ উন্নয়ন সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে বলেই এসব অর্জন সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও, অভূতপূর্ব উন্নয়ন হিসেবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিও এই জায়গা দখল করে নিয়েছে। ২০০৯ সালের পর ৪৫ শতাংশের জায়গায় বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে ৯০ শতাংশ মানুষের কাছে। আশা করা হচ্ছে, ২০২০ সাল নাগাদ এটি সার্বজনীন হবে।

উন্নয়নশীল দেশের জন্য সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী সমাধানের মাধ্যমে দেশের চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করার ওপর জোর দেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা। তিনি বলেন, দেশের ৫০ লাখ বাড়িতে এখন সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহার হয়। বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারকারী দেশে পরিণত হচ্ছে।

ভারত সরকারের আমন্ত্রণে অনুষ্ঠিত বৈশ্বিক এই সম্মেলনে ৬০ দেশের ১৮ মন্ত্রী ও ৭ হাজার অংশগ্রহণকারী অংশ নিয়েছিলেন।

সারাবাংলা/এইচএ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন