বৃহস্পতিবার ২১ মার্চ, ২০১৯ ইং , ৭ চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৩ রজব, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

স্মার্টফোনের খেলাটাই পাল্টে দেবে গ্যালাক্সি ফোল্ড

মার্চ ৪, ২০১৯ | ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ

গ্যালাক্সি ফোল্ড স্মার্টফোন কিংবা ট্যাবলেট ফোল্ডিং ফোন। যে কোনও নামে ডাকা যাবে। আবার দুই নামেই তার পরিচয়। এই ফোনের খবর বাজারে ছেড়ে স্মার্টফোনের জগতে সাড়া ফেলে দিয়েছে স্যামসাং। দাম ২০০০ ডলার।

বাজারে সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপল’র আগেই স্যামসাং এই বাজিমাত করে ফেললো। এই প্রথম অ্যাপলকে ছাড়িয়ে আগেই কোনও বড় প্রোডাক্ট বাজারে আনলো স্যামসাং। সে জন্য অবশ্য লেগে গেছে গোটা একটি দশক।

তবে এই ফোনই যে হতে যাচ্ছে পরবর্তী প্রজন্মের সেরা পছন্দের ডিভাইস তাতে সন্দেহ মাত্র নেই স্যামসাংয়ের।

সাধারণ দৃষ্টিতে এটি স্বাভাবিক ৪.৬ ইঞ্চি মাপের স্ক্রিন গ্যালাক্সি ফোল্ড। কিন্তু সেতো ফোনের আধেকটা মাত্র। বইয়ের পাতার মতো উল্টে নিলে পুরো ফোনের স্ক্রিন আপনার সামনে উন্মুক্ত। বর্ডার কাটছাট করলে সে মাপ পুরো ৭.৩ ইঞ্চি।

ভাবছেন- মাঝে তাহলে একটা দাগতো থেকেই যাবে! মোটেই না। সে স্ক্রিনে নেই সামান্য কোনও দাগ কিংবা লাইন, নেই কোনও রিঙ্কলস, চোখে পড়ার মতো কোনও ক্রিঙ্কলস।

ফোনের এমন বিলাসি ঢং আগে কখনো দেখা যায়নি। যা বাজারে আসছে ফোন বিলাসিদের জন্য নিঃসন্দেহে আকর্ষণীয় দামে। মাত্র ২০০০ ডলার।
সিসিএস ইনসাইটের প্রধান গবেষক বেন উড বলছেন এটা গ্যাজেটপ্রেমীদের চুম্বকের মতো আকর্ষণ করবে। তবে যতই আকর্ষণীয় বলা হোক নতুন ফোনের দাম গ্যালাক্সির সবশেষ সংস্করণ গ্যালাক্সি এস১০+ এর চেয়ে দ্বিগুন।

দাম দরের প্রসঙ্গ বাদ দিলে বলা যায়, স্মার্টফোন নিয়ে পুরো ইন্ডাস্ট্রি যে একটি প্যাটার্নে আটকা পড়েছিলো গ্যালাক্সি ফোল্ড সে সীমানাটি ভেঙ্গে দিল।
আইডিসি অ্যানালিস্ট এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ফ্রান্সিসকো জেরোনিমো সে কথাটিই বলেছেন। তিনি বলেছেন, এর মধ্য দিয়ে মানুষ ভবিষ্যতের স্মার্টফোনের আকারটি প্রথম দেখতে পেলো।

স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি এস ফোন তৈরি শুরুর ১০ বছর পূর্তি উদযাপনেই বানানো হয়েছে এই গ্যালাক্সি ফোল্ড। গত দশকটি আইফোনের সঙ্গে সমানে সমান লড়ে গেছে এই গ্যালাক্সি এস।

নতুন এই প্রোডাক্ট দিয়ে গ্যালাক্সি ব্র্যান্ড আরও নতুন উচ্চতায় যাবে বলেই মনে করছে দক্ষিণ কোরীয় কোম্পানি স্যামসাং।

সারবাংলা/এমএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন