বৃহস্পতিবার ২১ মার্চ, ২০১৯ ইং , ৭ চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৩ রজব, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

তিন দিনের ছুটিতে বাড়ির পথে কর্মজীবী মানুষ

মার্চ ১৫, ২০১৯ | ২:০৭ পূর্বাহ্ণ

।। সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট।।

ঢাকা: টানা তিন দিনের ছুটিতে ঢাকা ছাড়ছেন কর্মজীবী মানুষের একাংশ। পরিবার-পরিজন নিয়ে গ্রামের পথে রওয়ানা হয়েছেন অনেকেই। কেউ কেউ আবার ছুটি পেয়ে কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরতে বের হয়েছেন। শুক্র ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন। তার সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে (১৭ মার্চ) সরকারি ছুটি যোগ হয়েছে। এ কারণে বৃহস্পতিবার অফিস শেষে রাজধানী ছাড়তে শুরু করে কর্মজীবী মানুষেরা। ফলে বাড়তি চাপ সৃষ্টি হয়েছে রাজধানীর বাস টার্মিনাল, লঞ্চ টার্মিনাল, রেল স্টেশনগুলোতে।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) রাত সাড়ে ১১টার দিকে মহাখালী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায় যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। যাত্রীবাহী বাসগুলো ছেড়ে যাচ্ছে গন্তব্য স্থলে।

বিজ্ঞাপন

টার্মিনালে কথা হয় মগবাজারের বাসিন্দা রফিকুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, তিনদিনের ছুটি পেয়ে পরিবার নিয়ে গ্রামের বাড়ি জামালপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন। দীর্ঘক্ষণ টার্মিনালে অপেক্ষা করে বাসের টিকেট পেয়েছেন।

পাশেই দাঁড়ানো জহির উদ্দিন জানান, তিনি যাবেন নেত্রকোনা। অফিস শেষ করে বাসা থেকে বের হতে একটু দেরি হয়ে গেছে। এখানে এসে দেখেন অনেক ভিড়। তারপরও তিনি অপেক্ষা করছেন বাসের জন্য।

এনা পরিবহনের কাউন্টার মাস্টার মজিবর বলেন, ‘আজকে বিকেল থেকেই টিকেটের লাইনে অনেক ভিড় ছিল। তাদের প্রত্যেকটি গাড়িই এখান থেকে যাত্রী নিয়ে ছেড়ে গেছে।’

ইমাম পরিবহন বাসের হেলপার সুরুজ মিয়া জানান, প্রতি সপ্তাহের বৃস্পতিবার আসলে এমনিতেই অনেক যাত্রী থাকে। টানা তিনদিন ছুটির কারণে আজকে যাত্রীদের ভিড় অনেকটা বেশি।

তবে ভিন্নচিত্র এই বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাওয়া সৌখিন পরিবহন, আলম এশিয়াসহ নিম্ন আয়ের মানুষজনের যাতায়াতের ভরসা হিসেবে পরিচিত অন্য কয়েকটি সার্ভিসের।

কমলাপুর স্টেশনে কথা হয় সরকারি কর্মকর্তা আবদুস সাত্তারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘তিন দিনের ছুটি পাওয়ায় পরিবার নিয়ে চট্টগ্রামে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছি। তিনদিন টানা ছুটি পাওয়ায় ছুটি কাজে লাগালাম।’

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা খায়রুল বাশার জানান, ‘বন্ধুদের নিয়ে এক মাস আগে থেকেই পরিকল্পনা করে আসছিলাম মার্চের এ তিন দিনের ছুটিতে খাগড়াছড়ি ঘুরতে যাবো। আগে থেকেই টিকেট কেটে রাখা ছিল তাই কোন ঝামেলা হয়নি বলেও তিনি জানান।

নগর জীবনের ব্যস্ততা ছেড়ে কিছুটা সময়ের জন্য হলেও মানুষ প্রকৃতির টানে ছুটে যেতে চায় গ্রামে। ছুটির তালিকা দীর্ঘ হলে রাজধানী ঢাকা হয়ে পড়ে অনেকটা ফাঁকা। স্বস্তি নেমে আসে ঢাকার সড়কে।

সারাবাংলা/এজেডকে/এমএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন