বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ইং , ১২ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ শাবান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

এফবিসিসিআইয়ে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদের প্যানেলের নেতৃত্বে ফাহিম

মার্চ ২৫, ২০১৯ | ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) ২০১৯-২১ মেয়াদের দ্বিবার্ষিক নির্বাচনে শেখ ফজলে ফাহিমের নেতৃত্বে ‘সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদে’র প্যানেল ঘোষণা করা হয়েছে।

রোববার (২৪ মার্চ) রাতে রাজধানীর আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরার (আইসিসিবি) রাজদর্শন হলে এক অনুষ্ঠানে এই প্যানেল ঘোষণা করা হয়।

বিজ্ঞাপন

শেখ ফজলে ফাহিমের নেতৃত্বে প্যানেলে চেম্বার গ্রুপের সদস্যরা হলেন— হাসিনা নেওয়াজ, মাসুদুর রহমান মিলন, আজিজুল হক, দিলিপ কুমার আগারওয়াল, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান (ইমরান), মোহাম্মদ আনোয়ার সাদাত সরকার, মো. রেজাউল করিম রেজনু, গাজী গোলাম আশরিয়া, তাবারাকুল তোসাদ্দেক হোসাইন খান টিটো, মো. কহিনুর ইসলাম, প্রবীর কুমার সাহা, মো. আতাউর রহমান ভুঁইয়া, মোহাম্মদ বজলুর রহমান, মোহাম্মদ রিয়াদ আলী, মো. হাসানুজ্জামান, হুমায়ুন রশিদ খান পাঠান, এএইচ আহমেদ জামাল, শারিতা মিল্লাত ও সুজীব রঞ্জন দাস। গাজী গোলাম আশরিয়া কিশোরগঞ্জ চেম্বার থেকে পরিচালক পদে নির্বাচন করছেন। এই গ্রুপের বাকি তিন সদস্যের নাম পরে ঘোষণা করা হবে।

অন্যদিকে এই প্যানেলের অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের সদস্যরা হলেন— মুনতাকিম আশরাফ, খন্দকার রুহুল আমিন, আবু মোতালেব, মীর নিজাম উদ্দিন আহমেদ, মো. শফিকুল ইসলাম ভরসা, শমী কায়সার, রাশেদুল হোসাইন চৌধুরী রনি, মো. হাবিব উল্লাহ ডন, শাফকুয়াত হায়দার, হেলেনা জাহাঙ্গীর, আমজাদ হুসাইন, নিজাম উদ্দিন রাজেশ, এসএম জাহাঙ্গীর হোসাইন, মো. আবুল আয়েস খান, আবু নাসের, খন্দকার মইনুর রহমান (জুয়েল), হাফেজ হারুন অর রশিদ, আবদুল হক, মেহেদী আলী, মো. মুনির হোসাইন এবং কাজী শোয়েব রশিদ। অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের বাকি দুই সদস্যের নাম পরে ঘোষণা করা হবে।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৭ এপ্রিল এফবিসিসিআই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এবার সভাপতি ও সহসভাপতি নির্বাচিত হবেন চেম্বার গ্রুপ থেকে। আর অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে নির্বাচিত হবেন জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি।

এদিকে, চেম্বার প্রতিনিধিদের পূর্ণ সমর্থন পাওয়ায় ফাহিমের সভাপতি নির্বাচিত হওয়া এখন অনেকটাই নিশ্চিত বলে জানাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া এফবিসিসিআইয়ের এক সভায় বর্তমানে জ্যেষ্ঠ সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করা ফাহিমকে ২০১৯-২১ মেয়াদের নির্বাচনের সভাপতি পদে পূর্ণ সমর্থন দিয়েছেন কাউন্সিল অব চেম্বারের প্রতিনিধিরাও। ফলে সংগঠনটির পরবর্তী সভাপতি হতে যাচ্ছেন তিনিই।

প্যানেল ঘোষণার সময় বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরে সূচনা বক্তব্যে শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, বহু বেসরকারি ব্যাংক এখনও সিঙ্গেল ডিজিটে ঋণ দেয় না। আমরা তা নিয়ে আলোচনা করছি। সরকারের মতো আমাদের ২০৪১ সালের ভিশন রয়েছে। এফবিসিসিআই ইউনিভার্সিটি নির্মাণের লক্ষ্য রয়েছে আমাদের, যার লক্ষ্য চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী করে আরও দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা। এছাড়াও আমরা আইসিটি কারিকুলাম নিয়ে কাজ শুরু করেছি।

সংগঠনের সাবেক নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ফাহিম বলেন, আপনারা সংগঠনের ভিত্তি গড়ে দিয়েছেন। আপনাদের অনুপ্রেরণায় আমরা সংগঠনকে আরও ওপরে নিয়ে যেতে চাই।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, ব্যবসা উন্নয়ন সূচকের উন্নতি ঘটাতে সরকার কাজ করছে। চলতি বছরের ৩০ এপ্রিলের মধ্যে আমরা বেশ কিছু রিফর্ম আনব। এর ফলে ‘ডুয়িং বিজনেস’ সূচকে আমরা ১১৫-এর মধ্যে চলে আসতে পারব। আবার আগামী বছর ব্যবসার কিছু আইনে সংশোধন আনা হবে। তখন আমরা এই সূচকে একশ’র নিচে নেমে আসতে পারব।

সালমান এফ রহমান বলেন, ওয়ান স্টপ সার্ভিসের মাধ্যমে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টার মধ্যে ট্রেড লাইসেন্স দেওয়ার চেষ্টা চলছে। আগামী ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে আমরা এই ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করতে পারব বলে আশা করছি। এসময় সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদে প্যানেলের সাফল্য কামনা করেন তিনি।

এফবিসিসিআইয়ের বর্তমান সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, সরকার বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর চেষ্টা করছে। সেটা একেবারেই অযৌক্তিক। আমরা বলেছি বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম নিয়ে আগামী ১০ বছরের একটি সম্ভাব্য পরিকল্পনা আমাদের সামনে তুলে ধরতে হবে। কবে কত দাম বাড়বে, আমরা জানতে চাই। আমরা বিদ্যুতের দাম জানতে চাই। আমাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ভ্যাট আইন স্থগিত করা হয়েছিল। এবার সেটি কার্যকর করা হবে। আমরা এখন পর্যন্ত এটি নিয়ে ঐক্যমতে পৌঁছাতে পারিনি। ফাহিমের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের সাফল্য কামনা করে বর্তমান এফবিসিসিআই সভাপতিও।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (মেয়র) আতিকুল ইসলাম, বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ, আরেক সাবেক সভাপতি এ কে আজাদও ফাহিমের নেতৃত্বে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ প্যানেলের সাফল্য কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এফবিসিসিআইয়ের তালিকাভুক্ত ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের একটি প্ল্যাটফর্ম সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এফবিসিসিআই ব্যবসায়ী ও দেশের স্বার্থে যে বহুমুখী ভিশন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে, সেসব লক্ষ্য অর্জন ও দূরদর্শী নেতৃত্ব নির্বাচনের মাধ্যমে এফবিসিসিআইকে আরও বেশি সামনে এগিয়ে নিতে সংগঠনটির পাশে থাকছে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ। বিগত দিনের ধারাবাহিকতায় আগামীতেও এফবিসিসিআইকে আরও কার্যকর, গতিশীল ও ব্যবসায়ীবান্ধব রাখতে এবং বাংলাদেশের ভিশন-২০৪১ অর্জনের অংশীদার হতে এবারের এফবিসিসিআই নির্বাচনকে সামনে রেখে উদ্যোগ নিয়েছে ‘সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ’। এই পরিষদের নেতৃত্বে থাকা শেখ ফজলে ফাহিম ফেডারেশনে ২০১৫-২০১৭ সেশনে নির্বাচিত পরিচালক এবং ২০১৭-২০১৯ সেশনে সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী, এম এ সাত্তার, এম এ কাশেম, মাহবুবুর রহমান, ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, নাসির হোসাইন, কাজী আকরাম উদ্দিনসহ অন্যরা।

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন