সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ১ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

সৌদি আরবে স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত

মার্চ ২৭, ২০১৯ | ১:০১ অপরাহ্ণ

সেলিম আহমেদ

সৌদি আরব থেকে: সৌদি আরবের রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস ও জেদ্দা কনস্যুলেটে যথাযথ মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে ৪৯তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সকালে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে রিয়াদ দূতাবাস চত্বরে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন ও পতাকা উত্তোলন করেন রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ। এসময় দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা উপস্থিত ছিলেন।

স্বাধীনতা দিবসের আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের বাণী পাঠ করা হয়। এ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ গভীর শ্রদ্ধায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধে নিহত সকল শহিদকে স্মরণ করেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার আহ্বানে সাড়া দিয়ে দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে আমাদের বিজয় অর্জিত হয়েছিল। স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।

রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ বলেন, সৌদি আরবে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন ধরনের সেবা দ্রুত ও সহজে দেওয়ার জন্য দূতাবাস আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সৌদি অভিবাসী বাংলাদেশিদের দ্রুত পাসপোর্ট সেবা দেওয়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, একযোগে জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট প্রাঙ্গণেও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে পতাকা উত্তোলন করেন কনসাল জেনারেল এফ এম বোরহান উদ্দিন। এসময় কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রবাসী কমিউনিটির নেতা ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর কনস্যুলেট প্রাঙ্গণে কনসাল জেনারেল এফ এম বোরহান উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও কনসাল সালাউদ্দিনের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। কোরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া এই সভাতেও দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়।

এ সময় বাংলাদেশ স্বাধীনতার তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য দেন কনসাল জেনারেল এফ এম বোরহান উদ্দিন। আলোচনা শেষে মহান মুক্তিযুদ্ধে নিহত বীর শহিদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া করা হয়।

এছাড়া সৌদি আরবের বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক ও সৌদি আরবের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও সম্মানিত নাগরিকদের জন্য রিয়াদ ও জেদ্দায় কূটনৈতিক পাড়ায় সংবর্ধনা ও নৈশভোজের আয়োজন করেছে রিয়াদ দূতাবাস ও কনস্যুলেট জেনারেল জেদ্দা।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন