শনিবার ২৫ মে, ২০১৯ ইং , ১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ রমজান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের সেরা এজেন্সিকে তার্কিশ এয়ারলাইন্সের পুরস্কার

মার্চ ২৯, ২০১৯ | ৫:১২ অপরাহ্ণ

সারাবাংলা ডেস্ক

ঢাকা: বাংলাদেশে নিজেদের সেরা এজেন্সিদের পুরস্কৃত করল তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা তার্কিশ এয়ারলাইন্স। গত বুধবার (২৭ মার্চ) সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল রেডিসন ব্লুর হলরুমে অনুষ্ঠিত ‘এওয়ার্ড নাইট ২০১৯’ অনুষ্ঠানে ২০১৮ অর্থবছরের শীর্ষ ১০ এজেন্সিকে পুরস্কার দেওয়া হয়।

এছাড়া সর্বোচ্চ গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করায় বাংলাদেশ ব্যাংক, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক), বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ও তার্কিশ এয়ারলাইন্সের সরাসরি বিক্রয় প্রতিনিধি এয়রোমেটকে সম্মাননা জানানো হয়।

তার্কিশ এয়ারলাইন্সের কান্ট্রি ডিরেক্টর এমরাহ কারাজা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পুরস্কার বিতরণ করেন। তার্কিশ কার্গো মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ার আঞ্চলিক প্রতিনিধি হালিত তুনজার, তার্কিশ এয়ারলাইন্সের বাংলাদেশের জিএসএ এরোম্যাট সার্ভিস লি: এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আল লতিফ শাহরিয়ার জাহিদী ও নির্বাহী পরিচালক কাসফিয়া জাহিদী, তার্কিশ এয়ারলাইন্স ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন ম্যানেজার দেনিজ কাট এবং আঞ্চলিক অর্থ নির্বাহী ইয়াহহিয়া দেভেলিওউলু অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে জানানো হয়- ১৯৩৩ সালে প্রতিষ্ঠিত তার্কিশ এয়ারলাইন্স ৩৩৮ বিমানের বহর নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছে যাত্রী ও কার্গো বিভাগ দুটিতে। বর্তমানে ৪১টি অভ্যন্তরে এবং ২৫৭টি আন্তর্জাতিক গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা করছে বিমানসংস্থাটি। যাত্রী পরিবহন গন্তব্যের হিসাবে পৃথিবীর ১ম অবস্থানে থাকা তার্কিশ এয়ারলাইন্স ১২৪টি দেশের মোট ৩০৬টি গন্তব্যে যাতায়াত করে থাকে। আন্তর্জাতিক বিমানসংস্থা স্টার এলাইয়েন্স এর সদস্য তার্কিশ এয়ারলাইন্স পরপর ৬ বার ইউরোপের ১ম বিমানসংস্থার পুরস্কার খেতাব অর্জন করে।

প্রধান অতিথি তার্কিশ এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ কান্ট্রি ম্যানেজার এমরাহ কারাজা বলেন, যাত্রী সেবাই মূল উদ্দেশ্য নিয়ে পথ চলার আশি বছর পেরিয়ে নতুন প্রজন্মের জন্য যুগোপযোগিভাবে তৈরি হচ্ছে তার্কিশ এয়ারলাইন্স।

আগামী মাসে তুরস্কের ইস্তানবুলে উদ্বোধন হতে যাওয়া নতুন বিমানবন্দর সম্পর্কে তথ্য দিয়ে কারাজা বলেন, বিশ্বের অন্যতম বড় বিমানবন্দরের তালিকায় স্থান পাওয়া ইস্তানবুল বিমানবন্দরটি তার্কিশ এয়ারলাইন্স এর নতুন হাব পয়েন্ট হিসেবে চালু হবে আগামী ৬ এপ্রিল। এর মাধ্যমে ইউরোপ-এশিয়ার মধ্যবর্তী ভৌগলিক অবস্থানকে ভিত্তি করে আন্তঃমহাদেশীয় যাত্রী পরিবহনে নতুন অধ্যায়ের উন্মোচন করতে যাচ্ছে বলে মনে করে তার্কিশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ।

অনুষ্ঠানে তার্কিশ এয়ারলাইন্স নিবন্ধিত ১৫০টি ট্রাভেল এজেন্সি ও ৫০ কার্গো এজেন্সির প্রতিনিধি যোগ দেন।

সারাবাংলা/আরডি/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন