বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ইং , ১২ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ শাবান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

নাগরিকত্বের মামলায় আইনি সহায়তা পেলেন আইএস বধূ শামিমা

এপ্রিল ১৫, ২০১৯ | ৮:৪৫ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

‘আইএস বধু’ শামিমা বেগমের নাগরিকত্ব ফিরে পাওয়ার মামলায় আইনি সহায়তা প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে তার নাগরিকত্ব কেড়ে নেয় যুক্তরাজ্য সরকার।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ১৯ বছর বয়সী শামিমা বেগম চার বছর আগে ২০১৫ সালে যুক্তরাজ্য ছেড়ে জঙ্গি গোষ্ঠি আইএস-এর সঙ্গে যোগ দিতে সিরিয়ায় পালিয়ে যান। পরে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে সিরিয়ার এক শরণার্থী শিবিরে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়। ইতোমধ্যে, আইএস ব্রাইড (আইএস বধূ)  হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন তিনি।

গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাজ্যে ফেরত যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন শামিমা। এর কয়েকদিন পরই জারাহ নামের এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন তিনি। কিন্তু তিন সপ্তাহের কম বয়সের শিশু সন্তানটি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। জারাহ-এর মৃত্যু নিয়ে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ দেশে ও বিদেশে তীব্র সমালোচনার শিকার হন। কেন না, এর কয়েকদিন আগেই শামিমার নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করে নেয় ব্রিটিশ সরকার। উল্লেখ্য, জারাহর আগেও সিরিয়ায় আরও দুটি সন্তানের মৃত্যু হয় শামিমার।

বিজ্ঞাপন

শামিমার পরিবারে আগেই জানিয়েছিল, তারা ব্রিটিশ সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ জানাবে।

এ বিষয়ে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, শামিমাকে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে লিগ্যাল এইড এজেন্সি। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য হচ্ছে এমন একটি দেশ যেখানকার বিশ্বাস হচ্ছে, সীমিত সুযোগ থাকা কেউ যদি রাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ করতে চায় তাহলে তাদের রাষ্ট্র প্রদত্ত সহায়তা পাওয়ার অধিকার রয়েছে।

উল্লেখ্য, আইনি সহায়তার আওতায় যেসকল ব্রিটিশ নাগরিক নিজেরা আইনজীবীর ব্যয় বহন করতে সক্ষম নন, তাদের জন্য সরকারি খরচে আইনজীবী নিয়োগ দেওয়া হয়।

সারাবাংলা/আরএ/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন