রবিবার ২১ জুলাই, ২০১৯ ইং , ৬ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

সুপার লিগেও মোহামেডানকে হারালো আবাহনী

এপ্রিল ১৭, ২০১৯ | ৫:৪৫ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের চলতি আসরের লিগ পর্বে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে হারিয়েছিল আবাহনী লিমিটেড। জয়ের সেই ধারাবাহিকতা সুপার লিগেও ধরে রাখলো কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের শিষ্যরা। ৪৫ রানের ব্যবধানে হারালো মঞ্জুরুল ইসলামের শিষ্যদের। আকাশী নীলদের দেয়া ৩০৫ রানের বড় লক্ষ্য ছুঁতে নেমে সাদা-কালোরা ৪৬.৩ ওভারে গুটিয়ে গেছে ২৫৯ রানে।

এই ম্যাচেই লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে অনন্য মাইলফলকে পৌঁছেছেন আবাহনী পেসার মাশরাফি বিন মুত্তর্জা। আবদুর রাজ্জাকের পর দেশের দ্বিতীয় বোলার হিসেবে তুলে নিয়েছেন ৪শ উইকেট।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকেএসপিতে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে সাব্বির রহমানের ৫৩ বলে ৬৪, মোহাম্মদ মিঠুনের ৫২ বলে ৫৬, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ৫৭ বলে অপরাজিত ৫৪ ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ৩৫ বলে ৪১ রানের মৃদু ঝড়ো ইনিংসে ভর করে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ৩০৪ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ পায় আবাহনী।

তবে প্রত্যাশিত ব্যাটিং উপহার দিতে ব্যর্থ হয়েছেন দুই ওপেনার জহুরুল ইসলাম অমি ও সৌম্য সরকার। জহুরুল ফিরে গেছেন মাত্র ৪ রানের ইনিংস খেলে। আর সৌম্য তার ইনিংসের সমাপ্তি টেনেছেন ১৭ রানে। টপ অর্ডারের ওয়াসিম জাফর থেমেছেন ১৯ রানের সংগ্রহে। আর মিডল অর্ডার নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাট থেকে এসেছে ৩৬ রান।

বিজ্ঞাপন

মোহামেডানের হয়ে দাপুটে বোলিং উপহার দিয়েছেন শফিউল ইসলাম। একাই তুলে নিয়েছেন ৩ ব্যাটসম্যানকে। রাহাতুল ফেরদৌস ২টি ও সোহাগ গাজী নিয়েছেন ১টি উইকেট।

৩০৫ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা মোহামেডান মাশরাফি ও মোসাদ্দেকের বিধ্বংসী বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতে রীতিমতো হিমশিমই খেয়েছে। দলীয় ৬১ রানেই ড্রেসিংরুমের পথ ধরেছেন ৪ ব্যাটসম্যান। ওপেনার আব্দুল মজিদ ০, ইরফান শুক্কুর ৮, অভিষেক মিত্র ৪ ও তুষার ইমরান ক্রিজ ছাড়া হয়েছেন ১৬ রানে।

পঞ্চম উইকেটে দলের হাল ধরেন রকিবুল হাসান ও মোহাম্মদ আশরাফুল। তাদের ১৬১ রানের জুটিতে বিপর্যয় কাটিয়ে জয়ের দিকে ছুটতে থাকে মোহামেডানের ইনিংস। ঠিক তখনই আবার বিপর্যয়। ৭৯ বলে ব্যক্তিগত ৯৬ রানের এক ঝড়ো ইনিংস খেলে মাশরাফির বলে সৌম্যর তালুবন্দি হয়ে ফিরে যান থিতু হওয়া রকিবুল। মোহামেডানের সংগ্রহ তখন ১৮৯ রান।

ষষ্ঠ উইকেটে আশরাফুল-সোহাগ গাজীর সঙ্গে বোঝাপড়ায় বেশ ভালোই চলছিল সাদা-কালোদের ইনিংস। কিন্তু সেখানে বাধ সাধলেন সৌম্য। ব্যক্তিগত ৬৮ রানে আশরাফুলকে তুলে দিলেন নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে। দলের সংগ্রহ তখন রান ২৩০। মূলত আশরাফুলের বিদায়ের মধ্য দিয়েই মোহামেডানের ইনিংসের এপিটাফ লেখা হয়ে যায়। এরপর সোহাগ গাজীর ২৮ বলে ২৮ রানে সবক’টি উইকেটের বিনিময়ে মোহামেডানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৫৯ রান।

উইকেট শিকারে আবাহনীর হয়ে সমান দাপট দেখিয়েছেন মাশরাফি ও মোসাদ্দেক। দুজনই ৩ টি করে উইকেট শিকার করেছেন। সৌম্য ২টি এবং নাজমুল ইসলাম অপু ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ১টি করে উইকেট শিকার করেছেন। ম্যাচ সেরা হয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

সারাবাংলা/এমআরএফ/এমআরপি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন