শুক্রবার ২৪ মে, ২০১৯ ইং , ১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ রমজান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

টিম ইন্ডিয়া ব্যালান্সড দল: রাহুল দ্রাবিড়

এপ্রিল ২৫, ২০১৯ | ২:০০ অপরাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

এখন আইপিএল নিয়ে ব্যস্ত ভারতীয় ক্রিকেটাররা। বিশ্বকাপ আর আইপিএলের আগে টিম ইন্ডিয়া সবশেষ ওয়ানডে সিরিজে হেরেছে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুটিতে জিতেছিল বিরাট কোহলির দল। এরপর টানা তিনটি ম্যাচে হেরে সিরিজ খুঁইয়েছে স্বাগতিক ভারত। তবে, দল সবশেষ সিরিজ হারলেও বিশ্বকাপে সেটি বাজে কোনো প্রভাব ফেলবে না, এমনটি মনে করেন ভারতের সাবেক দলপতি কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান রাহুল দ্রাবিড়।

গত কয়েক বছরে দারুণ খেলে র‌্যাংকিংয়ের দুই নম্বর স্থানটি ধরে রেখেছে ভারত। এটিকেও বেশ বড় চোখেই নিচ্ছেন দ্রাবিড়। আসন্ন বিশ্বকাপে নিজের উত্তরসূরিদের ফেভারিট হিসেবেই মানছেন দ্য ওয়াল খ্যাত দ্রাবিড়।

দল নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আইসিসির কাছে দ্রাবিড় জানান, গত ৩০ মাসে ভারত সত্যিই দুর্দান্ত খেলেছে। তারা জিতেছে, হেরেছে। সবশেষ অস্ট্রেলিয়ার কাছে সিরিজ হেরেছে, অজিরা সত্যিই ভালো খেলেছে। একটা ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে কোহলির দলটি। দলটি দারুণ ব্যালান্সড। যদি বিশ্বকাপ জিতে ঘরে ফিরতে পারে তাহলে কে ২-৩ ব্যবধানে জিতলো আর কে ৩-২ ব্যবধানে হারলো সেটা নিয়ে কোনো আলোচনা থাকবে না। একটা ভালো সিরিজ হেরেছে ভারত। কিন্তু আইসিসির র‌্যাংকিং প্রমাণ দেয় ভারত কতটা ভালো দল। বিশ্বকাপ জিতলে তারা র‌্যাংকিংয়ে এক নম্বর জায়গাটি দখল করবে।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বকাপের ১৫ জনের স্কোয়াডে সুযোগ হয়নি কিছুদিন আগে আইপিএলে সেঞ্চুরি করা আজিঙ্কা রাহানে আর রিশব পান্তের। জায়গা হয়নি আম্বাতি রাইডুর। এসব নিয়ে সমালোচনার শেষ নেই। দ্রাবিড় জানালেন, ভারতীয় নির্বাচকরা যে দলটি দিয়েছে সেটি ব্যালান্সড দল। দলটির কম্বিনেশন আর পজিশনে অনেক অপশন আছে। টুর্নামেন্টে ভালো পারফর্ম করার প্রশ্ন উঠতেই পারে আর দুই একটি নাম এদিক-ওদিক হতেই পারে। তারপরও আমি বলবো নির্বাচকরা যে দল গঠন করেছে সেটি সত্যিই দারুণ একটি দল।

১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের আয়োজক ছিল। সেই টুর্নামেন্টে দ্রাবিড় ছিলেন সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। দুই সেঞ্চুরিতে ৬৫.৮৫ গড়ে করেছিলেন ৪৬১ রান। তখনকার বিশ্বকাপের চেয়ে এখনকার বিশ্বকাপ আলাদা জানিয়ে দ্রাবিড় বলেন, আমি মনে করি এখনকার বিশ্বকাপ ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপের থেকে পুরোপুরি ভিন্ন। সেবার ইংলিশ কন্ডিশনে বিশ্বকাপ হয়েছিল। তখন ছিল লো-স্কোরিং ম্যাচ হতো। এবারের বিশ্বকাপ বিগ স্কোরিংয়ের হবে বলে মনে হচ্ছে। ইংলিশ কন্ডিশন প্রতিনিয়ত পাল্টে যায়, বিশেষ করে ওয়ানডে ম্যাচের ক্ষেত্রে। গত বছর জুনিয়র দলকে নিয়ে সেখানে গিয়েছিলাম। তখন ৩০০ প্লাস স্কোর হয়েছিল, আবার সেটি তাড়া করে দল জিতেছিল।

কপিল দেবের হাত ধরে ১৯৮৩ সালে প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পায় ভারত। ২০১১ সালে ২৮ বছর পর দেশকে আরেকটি বিশ্বকাপ এনে দেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। এবার অবশ্য বিরাট কোহলির নেতৃত্বে বিশ্বকাপে নামবেন ধোনি। ৩০ মে বিশ্বকাপ শুরু হলেও ভারত বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে ৫ জুন, সাউদাম্পটনে টিম ইন্ডিয়ার প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা।

সারাবাংলা/এমআরপি

** ‘ধোনিকে সম্মান জানানো উচিত ভারতীয়দের’
** বিশ্বকাপে সেমি থেকে পাকিস্তানের বিদায়: শোয়েব আখতার

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন