রবিবার ২১ জুলাই, ২০১৯ ইং , ৬ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

জব্বারের বলীখেলা: জীবনকে হারিয়ে মধুর প্রতিশোধ নিল শাহজালাল

এপ্রিল ২৬, ২০১৯ | ৩:২৫ পূর্বাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলীখেলার ১১০তম আসরের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কুমিল্লার হোমনার শাহজালাল। ২৩ মিনিটের দ্বৈরথে কক্সবাজারের চকরিয়ার তারিকুল ইসলাম জীবনকে ফাইনাল রাউন্ডে হারিয়ে তিনি চ্যাম্পিয়ন হন। এর মধ্য দিয়ে গতবারের পরাজয়ের মধুর প্রতিশোধও নিয়েছেন এই বলি।

গতবারের জব্বারের বলীখেলার ফাইনালে প্রাণপণ লড়াইয়ের পরও ‘অ-খেলোয়াড়সুলভ’ আচরণের অভিযোগে জয়ের ট্রফি হাতে নিতে পারেননি শাহজালাল। বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছিল কক্সবাজারের চকরিয়ার তারিকুল ইসলাম জীবনকে।

এবারের জব্বারের বলীখেলার ফাইনাল রাউন্ডে সুঠাম দেহের এই দুই বলীর মুখোমুখি হওয়াতে দর্শকদের মাঝেও ছিল টানটান উত্তেজনা। ম্যাচের শুরুতে পুরো মাঠজুড়ে হাজার হাজার দর্শকের অধীর প্রতীক্ষা। ম্যাচ শেষে দর্শকরা হাততালি দিয়ে ঢোল, বাঁশি, ভুভুজেলা বাজিয়ে উল্লাস প্রকাশ করে বিজয়ী শাহজালালকে অভিনন্দন জানান।

প্রতিযোগিতার বিচারক আবদুল মালেক বলেন, ‘ফাইনালে জীবনের চেয়ে শাহজালাল টেকনিকে এগিয়ে ছিল। তাই তাকে হারাতে পারেনি জীবন।’

বিজ্ঞাপন

বিজয়ী শাহজালাল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আমি আনন্দিত। বিচারকেরা সঠিক বিচার করেছেন।’

শাহজালাল আনসার-ভিডিপির হয়ে পেশাদার কুস্তিগীর হিসেবে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের মো. মাহবুবুর রহমান বেলুন উড়িয়ে বলীখেলার উদ্বোধন করেন। এসময় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আমেনা বেগম, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ ফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাজ্জাদ হাবিব, মেলা উদযাপন কমিটির সভাপতি ওয়ার্ড কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ উপস্থিত ছিলেন।

ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে যুবসমাজকে জাগাতে ১৯০৯ সালে শুরু হওয়া আব্দুল জব্বারের বলীখেলার ১১০তম আসরের খেলা অনুষ্ঠিত হয় নগরীর লালদিঘীর মাঠে। প্রতিবছরের মত এবারও চট্টগ্রামসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার দর্শক আসে এই প্রতিযোগিতা দেখতে। মাঠ ছাপিয়ে আশপাশের গাছ, দালান এবং ভবনের ছাদেও অনেক উৎসুক মানুষের ভিড় দেখা যায়।

জব্বারের বলীখেলার এবারের আসরে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা কিশোর-তরুণ বয়সীরাও অংশ নেন। পাঁচ ফুট উঁচু ও ৪০০ বর্গফুটের বালির মঞ্চে দুই রাউন্ডে বিভক্ত হয়ে এবারের আসরে অংশ নেন ১১১ জন বলী। এর মধ্যে প্রথম রাউন্ডে অংশ নিয়েছেন ৯৫ জন এবং চ্যালেঞ্জ রাউন্ডে ১৬ জন। চ্যালেঞ্জ রাউন্ড থেকেই নির্ধারিত হয় চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ।

প্রথম রাউন্ড শেষে সেমিফাইনালের মধ্য দিয়ে চ্যালেঞ্জ রাউন্ডের খেলা শুরু হয় বিকেল ৫টা ১০ মিনিটে। চ্যালেঞ্জ রাউন্ডে অংশগ্রহণকারীরা হলেন- জীবন, শাহজাহান, শাহজালাল, মো.ইসলাম, মো.সজীব. মাহফুজ, বাদশা, মো.হোসেন, মো.লালু, কাঞ্চন, নজরুল, মো.বজল, মাহবুব, শাহাব উদ্দিন, লেয়াকত এবং বিষু।

সেমিফাইনালে ১১ মিনিটের লড়াইয়ে শাহাবুদ্দিনকে হারান শাহজালাল। অন্যদিকে জীবন ও হোসেনের মধ্যকার সেমিফাইনালে মাঠের লড়াইয়ে কেউ কাউকে হারাতে না পারলে ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারিত হয় মুদ্রা নিক্ষেপে। মুদ্রা ভাগ্যে জয়ী হয়ে জীবন ফাইনাল রাউন্ডে খেলার যোগ্যতা লাভ করে।

নিবন্ধিত ১১ জনের মধ্যে ৫২ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। চ্যাম্পিয়ন শাহজালালকে ২০ হাজার টাকাসহ ট্রফি এবং রানারআপ জীবনকে ১৫ হাজার টাকাসহ ট্রফি দেওয়া হয়। বাকিদের এক হাজার টাকা করে পুরস্কৃত করা হয়। তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

এবারের জব্বারের বলীখেলা নিয়ে মেলা উদযাপন কমিটির সভাপতি ওয়ার্ড কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী সারাবাংলা ডট নেটকে বলেন, ‘বলীখেলায় পেশাদার বলির অভাব কমে আসছে। তবে সৌখিন বলিরা আগ্রহ নিয়ে খেলতে আসছে। বলীখেলাকে কেন্দ্র করে তিনদিনব্যাপী বৈশাখী মেলাও চলছে। তীব্র গরম উপেক্ষা করে লাখো মানুষ মেলায় আসছেন।’

বলীখেলা ও মেলা উপলক্ষে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি)। চট্টগ্রাম কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন সারাবাংলাকে বলেন, ‘বলীখেলার মাঠ এবং মেলা জুড়ে প্রায় ৫০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মেলার সব প্রবেশপথে চেকপোস্ট আছে। আর্চওয়েও বসানো রয়েছে। মেলার ভেতরে যেখানে জনসমাগম বেশী হবে সেখানে পিকেট টিম ও ফুট পেট্রোল টিম আছে। এছাড়াও কমিশনারের নির্দেশে সাদা পোশাকের গোয়েন্দা দলও কাজ করছে।’

নগরীর আন্দরকিল্লা থেকে লালদিঘী পর্যন্ত সড়কজুড়ে চলছে আব্দুল জব্বারের বলীখেলা উপলক্ষে মেলা। সেই মেলাতে গৃহস্থালি পণ্য থেকে শুরু করে আসবাবপত্র, ঘর সাজানোর মাটির জিনিস, মজাদার খাবার, গাছের চারা সহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বিকিকিনি ছিল এই মেলাতে।

সারাবাংলা/আরডি/এসবি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন