বুধবার ১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ১ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বাজেট বাড়লেও কমেছে ধারাবাহিক বাস্তবায়নের হার

মে ১৪, ২০১৯ | ৯:৫৬ পূর্বাহ্ণ

গোলাম সামদানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আওয়ামী লীগ সরকারের আগের দুই মেয়াদে যে গতিতে বাজেটের আকার বেড়েছে ঠিক তার উল্টো গতিতে কমেছে বাস্তবায়নের হার। প্রতি অর্থবছরেই হয়েছে বাজেট কাঁটছাট বা সংশোধন। চলতি অর্থবছরেও প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা কমানো হতে পারে মূল বাজেট থেকে। গত এক দশকের মধ্যে শুধু ২০১০-১১ অর্থবছরে বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছিল প্রায় ৯৭ শতাংশ। অন্য অর্থবছরগুলোতে বাস্তবায়নের হার অনেক কম। তবে, খোদ অর্থবিভাগ বলছে, সংশোধিত বাজেটও বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে যায়।

২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯-২০১০ অর্থবছরে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের বাজেটের আকার এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। ২০০৯-২০১০ অর্থবছরে বাজেট ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার ১৭০ কোটি টাকা। এরপর পর্যায়ক্রমে বাজেটের আকার বেড়ে যথাক্রমে দুই, তিন ও চার লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। আগামী (২০১৯-২০২০) অর্থবছরে বাজেটের আকার প্রথমবারের মতো ৫ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। অথচ প্রতিবছর বাজেটের আকার বাড়লেও কমছে বাস্তবায়নের হার।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০১০-২০১১ অর্থবছরে বাজেট বাস্তবায়নের হার ৯৭ শতাংশ থাকলেও ধারাবাহিকভাবে বাজেট বাস্তবায়নের হার কমছে। সর্বশেষ চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে প্রথম ছয় মাসে বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে মাত্র ২৭ দশমিক ৫১ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-১৮ থেকে মার্চ-১৯) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়ন হয়েছে ৪৭ দশমিক ২৪ শতাংশ। ফলে, বছর শেষে চলতি অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নের হার আগের বছরের চেয়েও কম হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম সারাবাংলাকে বলেন, প্রতিবছর বাজেটের আকার বাড়লেও বাজেট বাস্তবায়নের হার কমছে। বাজেটের গুণগত মান এবং বাস্তবায়নের হার বিবেচনায় এসব বাজেটকে উচ্চাবিলাসী বাজেট বলা যায়। তিনি বলেন, বাজেটের আকার বাড়ানোর আগে আমাদের প্রশাসনিক দক্ষতা এবং সচেতনা বাড়াতে হবে।

বিজ্ঞাপন

অর্থমন্ত্রণালয়ের হিসাব বলছে, ২০১০-১১ থেকে চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থবছর পর্যন্ত নয় বছরে বাজেট বাস্তবায়নের হার ৯৭ শতাংশ থেকে কমে ৭০ শতাংশের ঘরে নেমেছে। প্রতিবছর বাজেটের আকার বাড়লেও তার পুরো সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। অর্থনীতিবিদদের মতে, বাজেট বাস্তবায়নের হার কমে যাওয়ার প্রধান কারণগুলো হলো, লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী প্রতিবছর রাজস্ব আহরণ করা যাচ্ছে না। প্রত্যাশা অনুযায়ী বিদেশি সাহায্য না পাওয়া। এছাড়াও, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে না পারায় বাজেট বাস্তবায়নের হার কমে গেছে। অন্যদিকে, দক্ষ জনবলের অভাব এবং সময়মত অর্থের ছাড় না হওয়ায় বাজেট বাস্তবায়নের হার কমে যাওয়ার আরেকটি প্রধান কারণ।

বাজেটের আকার বাড়ছে, বাড়ছে ঘাটতিও

অর্থমন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১০-১১ অর্থবছরে ১ লাখ ৩২ হাজার ১৭০ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়। অর্থবছর শেষে বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে ৯৭ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ। বাজেটের খরচের পরিমাণ দাঁড়ায় ১ লাখ ২৮ হাজার কোটি টাকা। ২০১১-১২ অর্থবছরে বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। অর্থবছর শেষে ব্যয় করা অর্থের পরিমাণ ১ লাখ ৫২ হাজার ৬৬৪ কোটি টাকা। বাস্তবায়নের হার ৯৩ দশমিক ১৮ শতাংশ।

২০১২-১৩ অর্থবছরে বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা। অর্থবছর শেষে ব্যয় হয় ১ লাখ ৭৪ হাজার কোটি টাকা। ২০১২-১৩ অর্থবছরে বাজেট বাস্তবায়নের হার ৯০ দশমিক ৭৬ শতাংশ। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রথমবারের মতো বাজেটের আকার ২ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে ২ লাখ ১৬ হাজার কোটি টাকা হয়। বছর শেষে মোট বাজেটের মধ্যে ব্যয় করা যায় ১ লাখ ৮৮ হাজার কোটি টাকা। বাজেট বাস্তবায়নের পরিমাণ ৮৪ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাজেট ঘোষণা করা হয় ২ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা। বাস্তবায়ন করা হয় ২ লাখ ৪ হাজার কোটি টাকা। অর্থবছর শেষে বাজেট বাস্তবায়নের হার ৮১ দশমিক ৫৯ শতাংশ। আর ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়। পরে তা কমিয়ে ২ লাখ ৬৪ হাজার ৫৬৫ কোটি টাকা নির্ধারণ করলেও শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়েছে ২ লাখ ৩১ হাজার ৬৫৩ কোটি টাকা। বাজেট বাস্তবায়নের হার ৭৮ দশমিক ৫০ শতাংশ।

অন্যদিকে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাজেট আকার ছিল ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা।  বছর শেষে বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে ৭৬ শতাংশ। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট আকার ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এর আকার ২৮ হাজার ৭৭১ কোটি টাকা কাটছাঁট করা হয়। বছর শেষে বাজেট বাস্তবায়নের হার দাঁড়ায় ৭০ শতাংশের কিছু বেশি।

অন্যদিকে, চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাজেটের আকার ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। এই বাজেটেও রাজস্ব আদায় ও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ায় মূল বাজেট থেকে প্রায় ২১ হাজার ৯০০ কোটি টাকা কাটছাঁট করা হচ্ছে। এবার মূল বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এর আকার দাঁড়াচ্ছে ৪ লাখ ৪২ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা। এদিকে কাটছাঁটের পর সংশোধিত বাজেটও বাস্তবায়িত হয় না। সংশোধিত বাজেটের চেয়ে প্রকৃত বাস্তবায়নের হার আরও কম। চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে জুলাই-ডিসেম্বর) বাজেট বাস্তবায়ন হয়েছে ২৭ দশমিক ৫১ শতাংশ। অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে ৪৭ দশমিক ২৪ শতাংশ। ফলে বছর শেষে বাজেট বাস্তবায়নের হার গত অর্থবছরের চেয়েও কম হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সারাবাংলা/জিএস/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন