রবিবার ২৫ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ১০ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

প্রমাণ করুক, আমরাও সরে দাঁড়াবো: শোভন-রাব্বানী

মে ১৬, ২০১৯ | ৪:২৫ পূর্বাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী মাদকসেবী বা বিবাহিত এটা কেউ প্রমাণ করতে পারলে তারা দুজনেই পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। যারা এই অভিযোগ করছে তাদের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জও ছুঁড়ে দেন এই দুই নেতা।

বুধবার (১৫ মে) দিবাগত রাতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের নেতাদের সঙ্গে কয়েক ঘন্টার বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের শীর্ষ এই দুই নেতা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন।

অভিযোগের সত্যতা পেলে ২৪ ঘণ্টায় অব্যাহতি: শোভন-রাব্বানী

ছাত্রলীগের একাংশের দাবী রেজওয়ানুল হক শোভন বিবাহিত, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সেই ছবি পাওয়া যায়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে শোভন বলেন, `আমি গণমাধ্যমকে বলতে চাই, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেউ করলে তার যে বান্ধবী থাকতে পারবে না, এমনটি কিন্তু কোথাও লেখা নেই। এই বিষয়গুলো নিয়ে আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি হওয়ার আগেও অনেক গুজব শুনেছেন আপনারা। সে আমার বান্ধবী। এর বেশি আপাতত কিছু বলছি না। আপনারা সময় হলেই বুঝতে পারবেন। আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতির পদ থেকে যখন চলে যাবো, তারপরে আপনারা বুঝতে পারবেন।’

গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধেও মাদক সংশ্লিষ্টতা নিয়ে অভিযোগ করেছে একটি পক্ষ। সে বিষয়েও জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে তিনি বলেন, `আমিও শুনেছি। এই অভিযোগটা আগেও এসেছিল। আমি যখন বঙ্গবন্ধু হলের শিক্ষার্থী ছিলাম, হলের সর্বোচ্চ ব্লাড ডোনার হিসেবে সার্টিফিকেট পেয়েছি। যারা এই ধরনের অভিযোগ করে, আমি আইনের ছাত্র হিসাবে বলছি, যে অভিযোগ তুলবে, সে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ করার দায়িত্ব কিন্তু তার উপরেই বর্তায়।‘

বিজ্ঞাপন

এই ধরনের কাদা ছোঁড়াছুঁড়ির খেলা বিশেষ একটি গোষ্ঠী করছে বলে অভিযোগ করেন গোলাম রাব্বানী। তিনি বলেন, `এরা বিশেষ কারও এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। তাদের সুতো কিন্তু অন্য কোথাও রয়েছে।‘

এসময় যারা অভিযোগ করছে তাদের উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে রাব্বানী বলেন, `আমার বিরুদ্ধে বা আমার সভাপতির বিরুদ্ধে যে অভিযোগ— চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলাম, প্রমাণ করুক, আমরাও অব্যাহতি দেবো। কিন্তু এইভাবে মিথ্যাচার করে যারা সংগঠনের বদনাম করছে, সর্বোচ্চ বডিকে যারা প্রশ্নবিদ্ধ করছে তাদেরকেই বহিষ্কার করা উচিত।‘

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগ উত্তর ও দক্ষিণ শাখার সভাপতি ও সাধাররণ সম্পাদক। তার আগে ৯টার পর থেকে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনে দেখভালে দায়িত্বশীল চার নেতার সাথে দুই ঘন্টাব্যপী রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। বৈঠকে আওয়ামী লীগের যু্গ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম উপস্থিত ছিলেন।

সারাবাংলা/এনআর/ইএইচটি/এসএমএন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন