সোমবার ২৬ আগস্ট, ২০১৯ ইং , ১১ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৪ জিলহজ, ১৪৪০ হিজরি

বিজ্ঞাপন

৪ দিন পর পুঁজিবাজারের সূচক ঊর্ধ্বমুখী

মে ১৬, ২০১৯ | ২:৪৯ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অবশেষে পুঁজিবাজারে পতন থেমেছে। টানা চার দিন দরপতনের পর ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরছে দেশের দুই পুঁজিবাজার। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দিনশেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সবগুলো সূচক বেড়েছে।  সূচকের এই ঊর্ধ্বমুখী ধারা চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) অব্যাহত ছিল। দিনশেষে উভয় পুঁজিবাজারে আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে আর্থিক ও শেয়ার লেনদেন।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, টানা চার দিন পুঁজিবাজারে সূচকের নিম্নমুখী ধারা বজায় থাকায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে অস্থিরতা দেখা দেয়। এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে পুঁজিবাজারের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে স্টেক হোল্ডারদের সঙ্গে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড কমিশনের (বিএসইসি) বৈঠকের ঘোষণা রয়েছে। বৈঠকে পুঁজিবাজার বিষয়ে ইতিবাচক কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারে— এমন খবরেই এদিন ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরেছে দেশের দুই পুঁজিবাজার।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে মোট ৩৩৯টি কোম্পানির ১০ কোটি ৭৭ লাখ ২৪ হাজার ৬২১টি শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া এসব শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে দাম বেড়েছে ১৯৯টির, কমেছে ৫১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৮৯টির দাম। দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের কার্যদিবসের চেয়ে ৩৪ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ২৩০ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। ডিএস-৩০ মূল্য সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৮১৮ পয়েন্ট ও ডিএসইএস শরীয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। এদিন ডিএসইতে আর্থিক লেনদেন হয়েছে ২৯০ কোটি ৬৮ লাখ ২০ হাজার টাকা। আগের দিন ডিএসইতে  লেনদেন হয়েছিল ২৫৬ কোটি ২৭ লাখ টাকা।

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২১২টি কোম্পানির ৬৫ লাখ ২২ হাজার ৭১৯টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। লেনদেন হওয়া এসব শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে দাম বেড়েছে ১১২টির, কমেছে ৬৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির কোম্পানির শেয়ারের দাম। দিনশেষে সিএসইতে ১২ কোটি ৯২ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আগেরদিন বুধবার সিএসইতে কেনাবেচা হয়েছিল ১১ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট। এদিন সিএসইর প্রধান সূচক আগের দিনের চেয়ে ১০৫ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ১৭ পয়েন্ট উন্নীত হয়। আগের দিন সিএসইর সূচক ছিল ১৫ হাজার ৯১২ পয়েন্ট।

সারাবাংলা/জিএস/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন