বুধবার ২২ মে, ২০১৯ ইং , ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ রমজান, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

‘৫৯ এলাকায় ওয়াসার পানিতে ময়লা’

মে ১৬, ২০১৯ | ৬:২৭ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা ওয়াসায় গত তিন মাসে ১০টি জোনের ৫৯ এলাকার পানিতে ময়লার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান স্বাক্ষরিত এক প্রতিবেদনেই এই তথ্য উঠে এসেছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) আদালতে এ প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান স্বাক্ষরিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ঢাকার ১০টি জোনের ৫৯টি এলাকার পানি সবচেয়ে দূষিত। গত তিন মাসে পাওয়া ২৯২ জন গ্রাহকের অভিযোগ থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের পক্ষে এ প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (পাস) এবং ‘বাসা-বাড়ির ট্যাপে পানি পরীক্ষা করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল সংক্রান্ত কমিটি’র আহ্বায়ক মো. জহিরুল ইসলামের কাছে গত ১৩ মে ঢাকা ওয়াসা এ প্রতিবেদন দিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ওয়াসা লিংক ১৬১৬২ -এ গত ৩ (তিন) মাসের ময়লা পানির অভিযোগের তালিকা এর সঙ্গে সংযুক্ত করা হল। অভিযোগের তালিকা বিশ্লেষণ করে যেসব এলাকায় ময়লা পানির প্রবণতা বেশি লক্ষ্য করা যায় সেগুলো হলো-

মডস জোন-১: যাত্রাবাড়ী, বাসাবো, মুগদা, রাজারবাগ, কুসুমবাগ, জুরাইন, মানিকনগর, মান্ডা, ধোলাইপাড় ও মাতুয়াইল।

মডস জোন-২: ভাগলপুর, লালবাগ, বকশীবাজার এবং শহীদনগর।

মডস জোন-৩: জিগাতলা, ধানমন্ডি, শুক্রাবাদ, কলাবাগান, ভূতেরগলি এবং মোহাম্মদপুর।

মডস জোন-৪ শেওড়াপাড়া, পীরেরবাগ, মনিপুর, পাইকপাড়া, কাজীপাড়া এবং মিরপুর।

মডস জোন-৫: মহাখালী এবং তেজগাঁও।

মডস জোন-৬: সিদ্ধেশ্বরী, শাহজাহানপুর, খিলগাঁও, মগবাজার, নয়াটোলা, রামপুরা, মালিবাগ এবং পরীবাগ।

ওয়াসার পানি পরীক্ষা নিয়ে বিশেষজ্ঞ মতামত নেবেন হাইকোর্ট

মডস জোন-৭: কদমতলী, ধনিয়া, শ্যামপুর, রসুলবাগ, মেরাজনগর, পাটেরবাগ, শনিরআখড়া, কোনাপাড়া এবং মুসলিম নগর।

মডস জোন-৮: বসুন্ধরা, বাড্ডা, আফতাবনগর, ভাটারা।

মডস জোন-৯: উত্তরা, খিলক্ষেত, ফায়েদাবাদ, মোল্লারটেক এবং রানাভোলা।

মডস জোন-১০: কাফরুল, কাজীপাড়া, মিরপুর, কচুক্ষেত এবং পল্লবী।

এদিকে, হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক ঢাকা ওয়াসা কর্তৃক সরবরাহকৃত বাসা-বাড়ির ট্যাপে পানি পরীক্ষার প্রতিবেদন দাখিলের জন্য গঠিত কমিটিরও একটি প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়।

সারাবাংলা/এজেডকে/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন