বিজ্ঞাপন

সুপ্রভাত পরিবহনের মালিক-চালকের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ২৭ জুন

May 21, 2019 | 1:10 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সুপ্রভাত বাস চাপায় বিইউপি শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ২৭ জুন দাখিলের দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২১ মে) মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির ক্যান্টনমেন্ট জোনাল টিমের পরিদর্শক কাজী শরীফুল ইসলাম প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এজন্য ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারী প্রতিবেদন দাখিলের নতুন এ তারিখ ঠিক করেন।

বাসটির মালিক ননী গোপাল সরকার, চালক সিরাজুল ইসলাম, কন্ডাক্টর মো. ইয়াছিন আরাফাত এবং হেলপার মো. ইব্রাহীম হোসেন আদালতেই বিভিন্ন সময়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। আসামিরা এখন কারাগারে রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, গত ১৯ মার্চ সকাল ৭টার দিকে বেপরোয়া গতির বাস চাপায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যু হয়। সুপ্রভাত পরিবহনের ওই বাসের (মেট্টো-ব-১১-৪১৩৫) মালিক ননী গোপাল সরকার। ওই দিন সকাল ৬ টার দিকে সদরঘাট থেকে গাজীপুরের উদ্দেশে ছেড়ে আসে সুপ্রভাত পরিবহনের ওই বাস। বাসটি শাহজাহাদপুরের বাঁশতলা এলাকায় পৌঁছালে মিরপুর আইডিয়াল গার্লস কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী সিনথিয়া সুলতানা মুক্তাকে ধাক্কা দিয়ে গুরুতর আহত করে। এ ঘটনায় সাধারণ জনতা চালক সিরাজুলকে আটক করে ট্রাফিক পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পরে ট্রাফিক পুলিশ তাকে গুলশান থানায় পাঠায়। এরপরে বাসটি চালিয়ে নিয়ে যান কন্ডাক্টর। যদিও পরে বসুন্ধরা গেট এলাকায় আবরারকে চাপা দেওয়ার সময় ধারণা ছিল, বাসের চালক সিরাজুলই আরবারকে চাপা দেন। তবে পুলিশ তদন্ত শেষে জানিয়েছে, সিরাজুল নন, বাসটির কন্ডাক্টর ইয়াসিন আরবারকে চাপা দেন।

ওই ঘটনায় গত ১৯ মার্চ রাতে আবরারের বাবা অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আরিফ আহাম্মেদ চৌধুরী গুলশান থানায় মামলা করেন

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এআই/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন