মঙ্গলবার ২৫ জুন, ২০১৯ ইং , ১১ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২১ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

আরসিবিসি’র ৫ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ফিলিপাইন সরকারের মামলা

মে ২২, ২০১৯ | ৭:৩৫ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ চুরির ঘটনায় ম্যানিলা ভিত্তিক রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংক করপোরেশনের (আরসিবিসি) পাঁচ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের অভিযোগে মামলা করেছে ফিলিপাইন সরকারের দ্য ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস।

বুধবার (২১) সংবাদমাধ্যম সিএনএন-এর খবরে একথা বলা হয়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা মার্ক প্রেতে বলেন, মামলায় যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে তারা হলেন ব্যাংকটির ট্রেজারার রায়ুল ভিক্টর তান, ন্যাশনাল সেলস ডিরেক্টর ইসমাইল রায়েস, রিওজিনাল সেলস ডিরেক্টর ব্রেগেট্টি কাপিনা, জুপিটার বিজনেস সেন্টার কাস্টমার সার্ভিস হেড রমলাদো আগারেদ্দ, সিনিয়র কাস্টমার রিলেশনশিপ অফিসার অ্যাংগেলা রুথ তোরেস। তারা সবাই আরসিবিসি ব্যাংক গ্রুপের কর্মকর্তা।

অভিযোগ পত্রে বলা হয়েছে, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা তাদের দায়িত্ব এড়িয়েছেন এবং যথাযথ তদন্ত করেননি। যা সন্দেহজনক ও অগ্রহণযোগ্য।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি করে নেয় হ্যাকাররা। যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক থেকে সুইফট কোডের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এই অর্থ চুরি করা হয়। চুরি হওয়া অর্থের মধ্যে শ্রীলঙ্কায় ২ কোটি ডলার এবং বাকি ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার প্রথমে ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় অবস্থিত রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনের (আরসিবিসি) একটি শাখায় পাঠানো হয়। পরে এই অর্থ আরসিবিসি থেকে চলে যায় ফিলিপাইনের জুয়ার আসরে।

এই ঘটনায় জড়িত থাকার কারণে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে, আরসিবিসি-এর সাবেক ব্যবস্থাপক মায়া দেগুইতোকে। এছাড়া, জরিমানা করা হয়, ১০ কোটি ৯ লাখ ডলার। রায়ে আদালত জানান, হ্যাকিং এর অর্থ লেনদেনে মায়া দেগুইতোর সম্পৃক্ততরা প্রমাণ মিলেছে। তিনি অবৈধ ব্যাংক লেনদেনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

সারাবাংলা/ এনএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন