বৃহস্পতিবার ২৭ জুন, ২০১৯ ইং , ১৩ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

বার্সাকে হারিয়ে কোপা দেল রে’র শিরোপা ভ্যালেন্সিয়ার

মে ২৬, ২০১৯ | ১১:২৮ পূর্বাহ্ণ

স্পোর্টস ডেস্ক

স্প্যানিশ কোপা দেল রে’র ফাইনালে ভ্যালেন্সিয়ার কাছে ২-১ গোলে হেরে শিরোপা হাতছাড়া হয়েছে বার্সেলোনার। টানা চারবার কোপা জয়ের পর সুযোগ ছিল রেকর্ড টানা পঞ্চম শিরোপা জয়ের। লিওনেল মেসিদের ব্যর্থতায় তা হাতছাড়া বার্সার।

সেভিয়ার স্তাদিও বেনিতাওতে রাত একটায় শুরু হয় ম্যাচটি। ম্যাচের শুরু থেকেই ছন্দহীন বার্সেলোনা। এ যেন লিভারপুলের বিপক্ষে সেমি ফাইনালের সেই দুর্দশাগ্রস্ত বার্সেলোনার আর এক প্রতিচ্ছায়া। অচেনা এই বার্সাকে দেখে বড্ড অসহায় লেগেছে কাতালান সমর্থকদের কাছেই।

ভ্যালেন্সিয়া যেন এক অন্যরকম রাত উপহার দিল ফুটবলপ্রেমীদের। ম্যাচের শুরু থেকেই অসাধারণ ফুটবল খেলে বার্সাকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছে। তাই তো প্রথম গোলের দেখা পেতেও অপেক্ষা করতে হয়নি ভ্যালেন্সিয়াকে। ম্যাচের ২১ মিনিটের সময়ে হোসে গায়ার পাস থেকে কেভিন গ্যামেইরোর দুরপাল্লার শট। বার্সার জালে প্রথম গোল ভ্যালেন্সিয়ার।

রেফারির ঘড়ির কাটাতে তখন ৩৩ মিনিট, ভ্যালেন্সিয়ার ডান প্রান্ত থেকে কার্লোস সোলারের ভাসানো ক্রস। কেবল মাথা ছোঁয়ালেই গোল! ভুল করেননি রদ্রিগো, ঠিক মাথা ছুয়িয়ে আবারও বল মেসিদের জালে। ভ্যালেন্সিয়া এগিয়ে ২-০ গোলের ব্যবধানে।

বিজ্ঞাপন

পিকে, লেংলেটদের তাকিয়ে তাকিয়ে দেখা ছাড়া কিছুই যেন করার নেই। বিমর্ষ মেসি আবারও মুছছেন কপালের ঘাম। আবারও সেই বিমর্ষ বার্সেলোনা। হারটা যেন মেনে নিয়েছে তখনই। তবে দলে যখন একজন লিওনেল মেসি থাকেন তখন স্বপ্নটা শেষ বাঁশি না বাজা পর্যন্ত দেখতে নেই কোন মানা।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ধার বাড়াতে নেলসন সেমেডোকে তুলে নিয়ে কোচ ভালভার্দে নামালেন ম্যালকমকে। আর আর্থারের জায়গাবদল করলেন আর্তুরো ভিদালকে। আর তার ফলাফল দৃশ্যমান। আক্রমণের ধার বাড়লো বার্সার।

তবে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা যেন এক দুঃস্বপ্ন বার্সার জন্য। মেসি চেষ্টাও বৃথা যাচ্ছিলো একের পর এক। ভ্যালেন্সিয়ার সমর্থকদের মনে কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছিলেন মেসি। তবে সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়ায় গোলবার। বা পায়ের বাঁকানো শট গোলকিপারকে ফাঁকি দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলো জালের দিকে। আর তখনই বাধা হয়ে দাঁড়ায় গোলবার।

এরপরও আক্রমণ চালিয়ে যায় বার্সা। ম্যালকম, কৌতিনহোকে সাথে নিয়ে চেষ্টা করতে থাকেন মেসি। তবে গোলের দেখা পাচ্ছিল না কাতালানরা। মাঠে তখনো যে ছিলেন লিওনেল মেসি, আর্জেন্টাইন এই জাদুকরের গোলেই আবারও ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত বার্সার।

ম্যাচের ৭২ মিনিটে লেংলেটের করা হেড ফিরিয়ে দেন ভ্যালেন্সিয়া গোলকিপার জাউমে। ফিরতি বল পেয়ে ভুল করেননি মেসি, ঠিকই বল জালে জড়িয়ে দলকে ম্যাচে ফেরার সুযোগ তৈরি করেন। শেষদিকে এক তরফা ম্যাচ খেলে বার্সেলোনা। কিন্তু গোলের দেখা আর মেলেনি।

অতিরিক্ত সময়ের তৃতীয় মিনিটে বার্সা গোলকিলার চিলেসেনকে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ ভ্যালেন্সিয়া। আর ম্যাচের শেষ বাঁশির আগে ভ্যালেন্সিয়া ডি বক্সে যখন বার্সা গোলকিপার চিলেসেন। ফাকা গোলবার পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ ভ্যালেন্সিয়া ফরোয়ার্ড। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয় নিয়ে শিরোপা উল্লাসে মাতে ভ্যালেন্সিয়া।

শেষবার বার্সেলোনা কিংবা রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়া কোপা দেল রের শিরোপা জয় করেছিল সেভিয়া। সেটিও আট বছর আগে ২০০৯-১০ মৌসুমে। এরপর কোপা দেল রে যেন বার্সার নিজস্ব সম্পত্তি হয়ে যায়। টানা চারবার কোপার শিরোপা জয়ের পর হাতছাড়া এবার। আর ১১ বছর পর স্প্যানিশ কোপা দেল রে জয়ের আনন্দে উচ্ছ্বাসিত ভ্যালেন্সিয়া।

সারাবাংলা/এসএস

 

 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন