বুধবার ২৬ জুন, ২০১৯ ইং , ১২ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২২ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

ঈদে ঝলমলে ত্বক ও চুল পেতে…

মে ২৮, ২০১৯ | ১২:৫২ অপরাহ্ণ

তিথি চক্রবর্তী

ঈদের দিন সবাই চায় নিজেকে উজ্জ্বল দেখাতে, ছিমছাম ও পরিপাটি রাখতে। কিন্তু গরমের এই রোজায় রোদ, ধূলা আর পানিশূন্যতার কারণে ঈদের দিন ত্বক দেখাতে পারে মলিন। তাই ঈদের দিন ঝলমলে থাকতে প্রস্তুতি নেওয়া দরকার বেশ কিছুদিন আগে থেকেই।

ঈদ আসতে আরও কিছুদিন বাকি। ঈদের সময়ে ত্বক ও চুল স্বাস্থ্যজ্জ্বল রাখতে তাই বাড়তি যত্ন শুরু হোক আজ থেকেই।

ঈদের আগে ত্বক ও চুলের যত্ন নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন বিউটি পার্লার মিউনিস ব্রাইডাল এর স্বত্তাধিকারী তানজিমা শারমিন মিউনি ও গীতিস বিউটি পার্লারের সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ সাবাবা বিল্লাহ। 

শারমিন মিউনি বলেন, ‘রোজার ঈদ মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। গত কয়েক বছর থেকে রোজার সময় প্রচন্ড গরম থাকে। এসময়ে ভাজাপোড়া বেশি খাওয়া হয়। অন্যদিকে, ত্বক সুন্দর রাখার জন্য শাক-সবজি যে পরিমাণে খাওয়া দরকার, তা খাওয়া হয় না। তাই ঘাটতি থেকেই যায় যার প্রভাব পড়ে ত্বকে।’

বিজ্ঞাপন

তবে যেহেতু ঈদের খুশি সবার ভেতর থেকেই আসে তাই ঈদের দিন মানুষের সৌন্দর্য ভেতর থেকেই আসে বলে জানান তিনি। মিউনি বলেন, ‘তারপরও রোজায় কিছু বিষয়ে সচেতন থাকা জরুরী। তাতে নিজের ত্বকের সুস্থতার প্রতি আত্মবিশ্বাস পাওয়া যায়।’

ইফতারে খান স্বাস্থ্যসম্মত খাবার
ইফতারে ভাজা পোড়া যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে। ফলমূল, শরবত, ডাবের পানি এসব বেশি করে খেতে হবে।

রোদ এড়িয়ে চলুন
এসময় রোদের তীব্রতা বেশি। তাই যতটা সম্ভব রোদ এড়িয়ে চলতে হবে। রোদ থেকে ত্বককে রক্ষা করতে সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। ছাতা ব্যবহার করতে হবে।

কেমন হবে ফেসিয়াল?
এই গরমে যেকোন ফেসিয়াল ত্বকের জন্য ভালো। ফেসিয়াল বয়সের ছাপ প্রতিরোধে সাহায্য করে, রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া ভালো করে ও ত্বকের কালো ভাব দূর করে। তবে কিছু ফেসিয়াল কারো কারো ত্বকের উপযোগি নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে ফেসিয়াল করানো ভালো।

ত্বক শুষ্ক হলে
প্রচন্ড গরম ও রমজান মাস, এই গরমে সারাদিন পানি খাওয়া হয় না বলে ত্বকে এর প্রভাব পড়তে পারে। ত্বক শুষ্ক ও মলিন হয়ে যেতে পারে। তাই ত্বকের ব্যাপারে সচেতন হবে। ত্বকের উপযোগি মাসাজ ক্রিম ব্যবহার করতে হবে। নিয়মিত ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে। বিশেষত, রাতে ত্বক পরিষ্কার করে ত্বকের ধরন অনুযায়ী ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে ঘুমাতে হবে।

চুলের যত্ন নিন
একেকজনের চুলের ধরন একেকরকম। আবার কাজের ধরনে ভিন্নতা থাকার কারণে অনেকে বাইরে যান বেশি। ফলে চুলে ধুলাবালি জমে যায়। ঘামে ভিজে ময়লা হয়ে যায়। যেহেতু রমজান মাস, কাজের অনেক ব্যস্ততা থাকে। ফলে বাসায় প্যাক লাগানো হয়ে ওঠে না অনেকসময়।

তাছাড়া, চুলের প্যাক বানানোর জন্য কোন উপাদান কতটুকু পরিমাণে লাগে, তা অনেকেই জানেন না। তাই ঈদের দিন ঝলমলে স্বাস্থ্যজ্জ্বোল চুল পেতে এসময়ে হেয়ার ট্রিটমেন্ট করাতে পারেন। তার জন্য কোন পার্লারে গিয়ে সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞের পরামর্শে হেয়ার ট্রিটমেন্ট করানোই ভালো হবে।

প্রচুর পানি খেতে হবে
প্রায় ১৫ ঘন্টা রোজা রাখতে হয়। সময়টাও যেহেতু প্রচন্ড গরমের, তাই ত্বক সহজেই মলিন হয়ে যায়। ইফতারের পর থেকে ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত প্রচুর পানি খেতে হবে। ডাবের পানি, শরবত এসময়ে অত্যন্ত কার্যকরী। পানি খেলে গরমেও ত্বকে আর্দ্র ভাব বজায় থাকবে।

গীতিস বিউটি পার্লারের সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ সাবাবা বিল্লাহ বলেন, ‘ঈদ বাঙালিদের বিশেষ উৎসব। ঈদের পোশাক ও সাজ নিয়ে প্রত্যেকেরই নানারকম পরিকল্পনা থাকে। তবে ঈদের আগে ত্বকের যত্নও সঠিক হওয়া দরকার।’ তিনি বলেন, ‘ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে হলে এই রমজানে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে ত্বকের আর্দ্র ভাব ধরে রাখার প্রতি।’

ত্বকে ব্যবহার করুন অ্যালোভেরা
এই সময় যেহেতু প্রচন্ড গরম, ফলে ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য অ্যালোভেরা কার্যকরী। অ্যালোভেরা ফ্রিজে রেখে দিন। বাইরে থেকে আসার পর এই অ্যালোভেরা ত্বকে লাগাতে পারেন। এতে ত্বক যেমন আর্দ্র হবে, তেমনি ত্বক থাকবে ঠান্ডা। এই গরমে বাইরে গেলে অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। এই গরমে ব্রণ ও ত্বকের কালো ভাব দূর করতে নিয়মিত মুখ পরিষ্কার রাখতে হবে।

ফেসিয়াল করা ভালো
এই সময় ত্বকের ধরণ বুঝে ফেসিয়াল করাতে হবে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর জন্য কিছু ফেসিয়াল আছে, যা ঈদের আগে করতে পারেন।

চুলের যত্নে অবহেলা নয়
চুলের স্টাইলে পরিবর্তন আনতে চাইলে তা করতে হবে ঈদের বেশ কিছুদিন আগেই। অনেকে এই সময় পছন্দমতো হেয়ার কালার করে নেন। চুলের ধরন অনুযায়ী শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করতে হবে। চুল রুক্ষ হলে অবশ্যই হেয়ার ট্রিটমেন্ট করতে হবে।

হাত ও পায়ের যত্ন
গ্রীষ্ম কিংবা শীত, সব ঋতুতেই হাত ও পায়ের যত্ন নেওয়া উচিত। এতে হাত-পায়ে আর্দ্র ভাব বজায় থাকে। বাইরে যাওয়ার আগে হাত, পায়ের যে অংশ খোলা থাকে তাতে সানন্ত্রিন লাগাতে হবে।

ঈদের আগে হাত-পায়ের বিশেষ যত্ন দরকার। এজন্য ঈদের ২ থেকে ৩ দিন আগেই পেডিকিওর ও মেনিকিওর করানো উচিৎ তাতে ঈদের দিন মসৃণ লাগবে। তবে এসময়ে ব্লিচিং করানো উচিত নয়। এতে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হয়। ঘরে বানানো কিছু প্যাক বা বাজারে কিনতে পাওয়া ভালো মানের উপটান হাত-পায়ে ব্যবহার করা যায়। এতে ত্বক হবে মসৃণ। রাতে ঘুমানোর আগে মুখের পাশাপাশি হাত-পায়েও অবশ্যই ত্বকের ধরণ বুঝে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে।

সামনেই ঈদ। উৎসবের এই সময়ে সবাই চায় নিজেকে উজ্জ্বল দেখাতে। তাই ঈদের দিন নিজেকে উজ্জ্বল আর আত্মবিশ্বাসী দেখাতে সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী ত্বক ও চুলের যত্ন নিতে শুরু করুন আজ থেকেই।

ছবি- সারাবাংলা

সারাবাংলা/টিসি /আরএফ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন