মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৮ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

রুমিন ফারহানার শপথ রোববার

জুন ৮, ২০১৯ | ৮:৪০ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচিত বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা রোববার (৯ জুন) শপথ নেবেন। এই আসনে দলের একমাত্র প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হন তিনি।

বিজ্ঞাপন

স্পিকারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জাতীয় সংসদ ভবনে নিজ কার্যালয়ে দুপুর ১২টায় তাকে শপথবাক্য পাঠ করাবেন।

এদিকে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রেসউইং সদস্য শায়রুল কবির খানও রুমিন ফারহানার শপথ নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রুমীন ফারহানার শপথ হলে জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত ৫০টি আসন পূর্ণ হবে।

এর আগে, সংখ্যানুপাতে বিএনপির জন্য বরাদ্দ সংরক্ষিত এই আসনটিতে ১৬ জুন পদটিতে ভোটের তারিখ নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী ২০ মে ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ছিল। সেদিন বিএনপির একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন রুমিন ফারহানা। মনোনয়নপত্রে সংযুক্ত তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাছাই শেষে মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুরে তার প্রার্থিতা বৈধ ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেম।

পরে এই পদে রুমিন ফারহানার কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় এবং তিনি নিজেও নির্ধারিত সময় ২৮ মে’র মধ্যে প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করায় নির্বাচন কমিশন তাকে বিজয়ী ঘোষণা করেন।

সংবিধান অনুযায়ী জাতীয় সংসদের ৩০০ আসনের বিপরীতে ৫০টি সংরক্ষিত আসন বণ্টন করা হয়। অর্থাৎ সরাসরি ভোটে নির্বাচিত ছয় আসনের বিপরীতে একটি সংরক্ষিত আসন বণ্টন হয়। দলীয় একটি সংরক্ষিত আসনের বিপরীতে একাধিক প্রার্থী থাকলে সরাসরি নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের ভোটে সংরক্ষিত আসনের প্রার্থী নির্বাচিত হন। আর একাধিক প্রার্থী না থাকলে একক প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ছয়টি আসনে জয় পেয়েছিল। সেই হিসাবে তাদের জন্য একটি সংরক্ষিত নারী আসন বরাদ্দ হয়।

রুমিন ফারাহানা শপথ নিলে সংসদে বিএনপির প্রতিনিধি হবে ছয় জন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলটির ছয় জন প্রার্থী বিজয়ী হয়েছিলেন। এর মধ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া বাকি সবাই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শপথ নিয়েছেন। আর মির্জা ফখরুল নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শপথ না নেওয়ায় তার আসনটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। ওই আসনে আগামী ২৪ জুন ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

সারাবাংলা/এসআই/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন