শুক্রবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৫ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২০ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

খালার বাড়ি থেকে ফেরার পথে প্রাণ গেল শিশুর

জুন ১২, ২০১৯ | ১:৪২ পূর্বাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীর শ্যামপুরের মুন্সীবাড়ীতে সড়কে হঠাৎ করে সুয়ারেজ লাইনে বিস্ফোরণে আবীর হোসেন নামে আট বছর বয়সী এক শিশু প্রাণ হারিয়েছে। এ ঘটনায় শিশুটির মা ও বোনসহ আরও একজন পথচারী আহত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১১ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পৌনে ৮টার দিকে চিকিৎসক আবীরকে ‍মৃত ঘোষণা করেন।

আবীর স্থানীয় একটি স্কুলের প্রথম শ্রেণির  ছাত্র ছিল। তার বাবার নাম সজীব আহমেদ।

ওই দুর্ঘটনায় শিশুটির মা আহত সাথী আক্তার (৩০), তার মেয়ে আদিবা আক্তার (১০) এবং ভ্যান চালক রুবেলকে (৩০) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, শ্যামপুরের মুন্সীবাড়ী তিন রাস্তার মোড় দিয়ে লোকজন হেঁটে যাচ্ছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হঠাৎ করেই সেখানে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। সুয়ারেজ লাইনে থাকা লোহার একটি ঢাকনা উড়ে যায়। আশপাশের মাটি ও রাস্তায় থাকা কংক্রিটও উড়ে যায়। এতে ওই চারজন আহত হলে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

বিজ্ঞাপন

হাসপাতালে আসা আবীর হোসেনের খালু মো. মাসুদ জানান, আবীর তার বাবা-মা ও বোনের সঙ্গে ধূপখোলা এলাকার বাসায় থাকতো। মঙ্গলবার সকালে তারা জুরাইনে খালার বাড়িতে বেড়াতে আসে। সন্ধ্যার দিকে সেখান থেকে বাসায় ফেরার পথে মুন্সীবাড়ী তিন রাস্তার মোড়ে যেতেই হঠাৎ করে সুয়ারেজ লাইনে বিস্ফোরণ হয়। তিনজন একটু আগে থাকায় তারা আহত হন। পরে তাদেরকে ঢামেক হাসপাতাল নিয়ে আসা হয়।

শ্যামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, দীর্ঘদিনে পরিস্কার না করায় সড়কের পাশের সুয়ারেজ লাইনে গ্যাস জমে গিয়েছিল। হয়তো কোনো পথচারী জ্বলন্ত সিগারেটের অংশ ফেলার পর সেখানে বিস্ফোরণ হয়ে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে পুরো বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের টেলিফোন অপারেটর আব্দুর রহমান জানান, পাইপরাস্তার মোড়ে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে ঘটনা ঘটেছে। এতে তিনজন আহত হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ বক্সের ইনজার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া শিশুটির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। আহতদের হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সারাবাংলা/এসএসআর/ এমএইচ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন