শনিবার ১৯ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৩ কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বিএসএমএমইউ’র মেডিকেল অফিসার নিয়োগে মৌখিক পরীক্ষা চলবে

জুন ১৩, ২০১৯ | ১:১৪ অপরাহ্ণ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল অফিসার পদে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা চলবে। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে ডাক্তার মিল্টন হলে সিন্ডিকেট বৈঠক শেষে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

বিজ্ঞাপন

সভা শেষে বিএসএমএমইউ'র  উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, যত দ্রুত সম্ভব এই পরীক্ষার তারিখ জানানো হবে।

এছাড়া গত ১১ জুন বিএসএমএমইউ'তে ঘটা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিন্ডিকেট সভা। এই কমিটি আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দেবে।

বিএসএমএমইউ'তে ওইদিনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে জানিয়ে উপাচার্য বলেন, ওই ঘটনার কারণেই আজকের এই  জরুরি সিন্ডিকেট মিটিং। সেদিন যারা ভাঙচুর চালিয়েছিল তদন্ত কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে বৈঠক ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয়ে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা। নিয়মিত আনসার সদস্য ছাড়াও পুরো নিচতলা ও প্রশাসনিক ভবনের বাইরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছেন বিপুল সংখ্যক পুলিশ।

আরও পড়ুন: কঠোর নিরাপত্তায় বিএসএমএমইউ’তে সিন্ডিকেট বৈঠক চলছে

মেডিকেল অফিসার নিয়োগে লিখিত পরীক্ষার অনুত্তীর্ণ আন্দোলনরত চিকিৎসকরা সারাবাংলাকে জানিয়েছেন, বৈঠকের সিদ্ধান্ত যদি তাদের পক্ষে না যায় তাহলে তারা কঠোর আন্দোলনে যাবেন।

এর আগে গত মঙ্গলবার (১১ জুন) মেডিকেল অফিসার পদে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা চলার দ্বিতীয় দিনে তা ‘আপাতত’ স্থগিত করার কথা জানিয়েছিলেন বিএসএমএমইউ'র  উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া।

বিশ্ববিদ্যালয়টির মেডিকেল অফিসার পদে লিখিত পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীরা গত প্রায় এক মাস ধরে পরীক্ষা বাতিল ও পুনঃনিরীক্ষণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন।

গত ১১ জুন সকাল থেকে ফের বিক্ষোভ শুরু করেন আন্দোলনরত চিকিৎসরা। এ সময় পুলিশের বাধা অতিক্রম করে তারা বিএসএমএমইউ ভবনের দ্বিতীয় তলায় ভিসির রুমের সামনে চলে যান। পরে আন্দোলনরতদের কয়েকজন প্রতিনিধি ভিসির সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আলোচনার পর ভিসি তাদের নিয়োগ পরীক্ষা আপাতত স্থগিত করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন।

সে সময় মেডিকেল অফিসার পদে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা স্থগিতের বিষয়টি জানিয়ে বিএসএমএমইউ উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া সারাবাংলাকে বলেন, ‘সিন্ডিকেটের মিটিংয়েই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ভবিষ্যতে কি করবো।’

এরপর তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্যদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। সেখানেও এই নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত করার সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়। এছাড়া এই নিয়োগ নিয়ে ভবিষ্যতে কি করা হবে সে বিষয়েও আলোচনা করা হয় সেখানে। বৈঠকটি এখনও চলছে।

আন্দোলনরত চিকিৎসকদের অভিযোগ, এদিনও পুলিশ তাদের লাঠিপেটা করেছে, হামলা চালিয়েছে। এ সময় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলেও দাবি করেন তারা। তবে ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত পুলিশের কর্মকর্তা বলছেন, হামলার ঘটনা হয়নি। উপাচার্যের নির্দেশ ছিলো কোনো বহিরাগত যেন প্রবেশ করতে না পারে। তাই ধস্তাধস্তির কিছু ঘটনা ঘটেছে।

প্রসঙ্গত, ২০০টি মেডিকেল অফিসারের পদে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয় বিএসএমএইউ কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে ১৮০ জন এমবিবিএস ও ২০ জন বিডিএস চিকিৎসক চাওয়া হয়। প্রথম দফায় নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হলেও সেটি পিছিয়ে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে পরীক্ষার দিন ঠিক করা হয়। পরীক্ষা নেওয়ার জন্য প্রশ্নপত্রও ছাপানো হয়। কিন্তু অনিবার্য কারণ দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পরীক্ষা স্থগিত করে। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাপা হওয়ার দেড় বছর পর গত ২২ মার্চ সেই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর থেকেই আন্দোলনে নামেন চিকিৎসকদের একাংশ।

সারাবাংলা/জেএ/জেডএফ 

বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন