শুক্রবার ২১ জুন, ২০১৯ ইং , ৭ আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

পরিবহনে গুরুত্ব দিয়ে ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার এডিপি

জুন ১৩, ২০১৯ | ৪:২০ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকা। পরিবহন খাতে সর্বোচ্চ প্রাধান্য ও স্থানীয় সরকার বিভাগে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দিয়ে সম্প্রতি এই এডিপি অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি)। বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে বাজেট উপস্থাপনের সঙ্গে সঙ্গে এ অংশও জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এতে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার ৯২১ কোটি টাকা ও বিদেশি উৎস থেকে ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। অবশ্য স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প ব্যয়ের ১২ হাজার ৩৯৩ কোটি টাকা যোগ করে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের হিসাবে এডিপির আকার দাঁড়ায় ২ লাখ ১৫ হাজার ১১৪ কোটি টাকায়।

চলতি অর্থবছরের শুরুতে ১ লাখ ৮০ হাজার ৮৬৯ কোটি টাকার এডিপি প্রণয়ন করা হয়েছিল। এ হিসাবে নতুন বছরের এডিপিতে বরাদ্দ বাড়ছে ৩৪ হাজার ২৪৫ কোটি টাকা। শতকরা হিসাবে এডিপি বাড়ছে ১৮.৯৩ ভাগ। অবশ্য সংশোধিত এডিপি (আরএডিপি) ১ লাখ ৭৬ হাজার ৬২০ কোটি টাকার নামিয়ে আনা হয়েছে। এ হিসাবে নতুন এডিপিতে ৩৮ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা বা ২১ দশমিক ৭৯ শতাংশ বাড়তি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সারাবাংলাকে জানান, বাংলাদেশের উন্নয়ন রূপকল্প-২০২১, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা, ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা, জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ (এসডিজি) বিদ্যমান বিভিন্ন নীতিমালার আলোকে অগ্রাধিকার খাতসমূহে পর্যাপ্ত সম্পদ বরাদ্দ নিশ্চিতের মাধ্যমে উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জন, দারিদ্র্য হ্রাস তথা জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একুশ শতকের উপযোগী একটি উন্নত দেশে উত্তরণের লক্ষ্যকে সামনে রেখে এডিপি প্রণয়ন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

নতুন এডিপিতে বরাদ্দসহ অনুমোদিত ১ হাজার ৫৬৪ প্রকল্প রয়েছে। এর মধ্যে বিনিয়োগ খাতের ১ হাজার ৩৫৮টি ও কারিগরি সহায়তা খাতের ১১৬ প্রকল্প রয়েছে। জাপান ঋণ মওকুফ সহায়তা তহবিলের (জেডিসিএফ) একটি এবং স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা ও করপোরেশন নিজস্ব অর্থায়নে ৮৯ প্রকল্প থাকছে এডিপিতে।

আগামী অর্থবছরের এডিপিতে সর্বোচ্চ ৫২ হাজার ৮০৬ কোটি টাকা বরাদ্দ আছে পরিবহন খাতে। দ্বিতীয় অগ্রাধিকার পাওয়া বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দ ২৬ হাজার ১৭ কোটি টাকা। অগগ্রাধিকারে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ণ খাতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে প্রায় ২৪ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা।

এছাড়া শিক্ষা ও ধর্ম খাতে প্রায় ২১ হাজার ৩৭৯ কোটি টাকা, বিজ্ঞান, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে ১৭ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা, পল্লী উন্নয়ন ও পল্লী প্রতিষ্ঠান খাতে ১৫ হাজার ১৫৭ কোটি টাকা, স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ খাতে ১৩ হাজার ৫৫ কোটি, কৃষি খাতে ৭ হাজার ৬১৬ কোটি, পানি সম্পদে ৫ হাজার ৬৫৩ কোটি ও জনপ্রশাসন খাতে ৫ হাজার ২৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে আগামী অর্থবছরের এডিপিতে সর্বোচ্চ ২৯ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগে। বিদ্যুৎ বিভাগে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৬ হাজার ১৪ কোটি টাকা। আর তৃতীয় অবস্থানে থাকা সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ পেয়েছে ২৫ হাজার ১৬৩ কোটি টাকা। এছাড়া বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় ১৫ হাজার ৯০৮ কোটি টাকা, রেলপথ মন্ত্রণালয় ১২ হাজার ৫৯৯ কোটি টাকা এবং স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ ৯ হাজার ৯৩৬ কোটি টাকা।

আইএমইডি সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে ৫৪.৯৪ শতাংশ। এ সময়ে ব্যয় হয়েছে ৯৭ হাজার ৩০ কোটি টাকা। গত বছরের একই সময়ে এডিপি বাস্তবায়ন হয়েছে ৫২.৪২ শতাংশ, ওই সময়ে ব্যয় হয়েছিল ৮২ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা।

সারাবাংলা/জেজে/এমও

Advertisement
বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন