শুক্রবার ১৯ জুলাই, ২০১৯ ইং , ৪ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৫ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

ঘর সাজাতে গাছ, বৃক্ষমেলায় নগরচাষীদের ভিড়

জুন ২১, ২০১৯ | ১০:২০ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীতে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বারান্দা ও ছাদ বাগান। বহুতল ভবনগুলোর দিকে তাকালেই চোখে পড়বে নানা জাতের গাছ। ইট-পাথরের জঙ্গলে স্বস্তির শ্বাস নিতে কেউবা ছাদে গড়ে তুলছে এক টুকরো সবুজ, শখের ছাদ বাগান।

বৈঠকখানা, শোবার ঘরেও রয়েছে গাছের সমারোহ। নানা জাতের ক্যাকটাস, অর্কিড, পাতাবাহার হয়ে উঠছে ইন্টেরিয়র ডিজাইনের উপাদান। নগরীর রেস্টুরেন্টগুলোতে প্রাকৃতিক পরিবেশের আবহ তৈরি করতে রাখা হচ্ছে গাছ।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের (বিআইসিসি) পাশে বাণিজ্য মেলার মাঠে শুরু হয়েছে ‘বৃক্ষমেলা’। যারা বাগান করবেন ভাবছেন তারা ঘুরে আসতে পারেন মেলায়।

বিজ্ঞাপন

মেলা ঘুরে দেখা গেছে, অধিকাংশ স্টলে ফুলের চারার আধিক্য। সেই অনুযায়ী ফলের চারা ওঠেনি মেলায়।

উত্তরা থেকে মেলায় এসেছেন শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘মেলায় এসেছি মূলত ঘর সাজানোর জন্য ফুল গাছ কিনতে। ছাদে একটি শখের বাগান করেছি আমি, সেখানেই আমি এসব গাছগুলো রাখব। দুই জাতের অর্কিডের চারা কিনেছি, ক্যাকটাসগুলো দেখছি।’

দ্বীপ্ত অর্কিডস লিমিটেড স্টলের বিক্রেতা রাজীব আহমেদ বলেন, ‘আমাদের এখানে বিভিন্ন প্রকারের অর্কিডের চারা রয়েছে। এসব গাছের ফুল দেখতে সুন্দর আর সহজে চাষযোগ্য হওয়ায় ক্রেতারা আগ্রহ দেখাচ্ছেন বেশি।’

সোনিয়া, কিং ড্রাগন, ব্লু, রুবি, অ্যানা পিংক, ক্রিস্টিয়ান হোয়াইট, এরান্ডা সানসেট, লিটল স্টার ইয়েলো বার্ড, লিটল স্টার হোয়াইটসহ আরও অনেক জাতের বাহারি অর্কিডের চারা পাওয়া যাচ্ছে মেলাটিতে। আকার ও জাত ভেদে একেকটি অর্কিডের চারার দাম নেওয়া হচ্ছে ৫শ’ থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত। রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির ক্যাকটাস। ক্রিসমাস, সলকু, রেবুসিয়াস, ফারোডিয়া, ফণীমনসা, মাবিলেরিয়াস, লুবিভিয়া জাতের ছোট-বড় ক্যাকটাস পাওয়া যাচ্ছে ২০০ থেকে ৩৫০ টাকায়। নয়নতারা, জিনিয়া, বেলী, জারবেরা, গাঁদার মতো গুল গাছের চারা বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে।

ফল গাছের মধ্যে রয়েছে আম, করমচা, লেবু, থাই মাল্টা, থাই জাম্বুরা, ডালিম, লেবু, লটকন। তবে ফল গাছের ক্রেতার সংখ্যা কম দেখা গেছে।

বাংলাদেশ বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক খন্দকার মো. জাকারিয়া সারাবাংলাকে বলেন, ‘মেলায় প্রায় ৭০টি নার্সারির ১০০টি স্টল রয়েছে। এবার নার্সারিগুলো ফুল গাছের চারাই বেশি এনেছে মেলায়। রাজধানীবাসী ঘর সাজাতে এখন ছোট গাছ কেনে। বিক্রেতারাও তাই ফুল গাছের দিকে নজর দিয়েছে বেশি। সেই তুলনায় ফলের গাছের সংখ্যা এবার কম।’

‘শিক্ষায় বন প্রতিবেশ, আধুনিক বাংলাদেশ’, এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষ্যে গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) থেকে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী এই বৃক্ষমেলা। মেলায় মোট ১০৪টি স্টল রয়েছে। এর মধ্যে সরকারি ছয় প্রতিষ্ঠানের জন্য রাখা হয়েছে ১২টি স্টল। আর বেসরকারি সংস্থা ও ব্যক্তি মালিকানাধীন নার্সারির জন্য রয়েছে আরও ৯০টি স্টল। বাকি দু’টি স্টলের মধ্যে একটি মেলা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও অন্যটি তথ্যকেন্দ্র।

মেলা চলবে আগামী ২০ জুলাই পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের জন্য বৃক্ষমেলা উন্মুক্ত থাকবে।

সারাবাংলা/ওএম/এটি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন