মঙ্গলবার ১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ইং , ৩০ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৫ সফর, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

স্বর্ণ মেলায় বৈধ হলো ১৭৫ কোটি টাকার সোনা, রূপা ও হীরা

জুন ২৫, ২০১৯ | ১০:২১ অপরাহ্ণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত ‘স্বর্ণ মেলায়’ ১৭৫ কোটি টাকার অবৈধ সোনা, রূপা ও হীরা বৈধ করেছেন স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাতে তিন দিনব্যাপী স্বর্ণ মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়াল।

রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালসহ দেশের আটটি বিভাগে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) যৌথভাবে এ মেলার আয়োজন করে।

দিলীপ কুমার আগারওয়াল বলেন, ‘স্বর্ণ মেলায় এখন পর্যন্ত ১ হাজার ২০০ ব্যবসায়ী তাদের ডায়মন্ড, সোনা ও রূপা বৈধ করতে এসেছেন। এছাড়া মেলায় এখন পর্যন্ত ১৭৫ কোটি টাকার সোনা, রূপা ও ডায়মন্ড বৈধ হয়েছে। আগামী ৩০ জুনের মধ্যে ব্যবসায়ীরা তাদের অঘোষিত সোনা, রূপা ও ডায়মন্ড বৈধ করবে। আমরা চাই ভ্যাট কমর্কতার্দের হয়রানির শিকার যেন আর না হই। সোনায় পাঁচ শতাংশ ভ্যাট কেউ দিতে চাই না। এজন্য আমরা ভ্যাট কমানোর দাবি করছি। আর ভ্যাট কমলে কর আদায় দ্বিগুণ হবে।’

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘সোনা সাদা করতে মানুষের উৎসাহ আছে। সরকারের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আমাদের সোনা কারিগররা অনেক বেশি অভিজ্ঞ। এজন্য তাদের প্রশিক্ষণ দরকার। আগামী মাসে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে স্বর্ণের ব্যবসায়ীদের একটি জায়গার জন্য বাংলাদেশ ইকোনমিক জোনে চিঠি দেওয়া হবে।’

এছাড়া সোনায় পাঁচ শতাংশ ভ্যাট বেশি হয়ে যায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এজন্য এটা সহনীয় মাত্রা থাকা ভালো। আমাদের দেশের মানুষ যেন কলকাতামুখী না হয়। এজন্য সোনা ব্যবসায়ীদের সযাগ থাকতে হবে।’

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া বলেন, ‘সোনা আমদানি এখন সহজ হবে। প্রতি ভরি ২ হাজার টাকা দিয়ে আমদানি করা যাবে। আশা করছি অবৈধভাবে দেশে আর সোনা আসবে না। সোনা ব্যবসায়ীদের জন্য একটি অথর্নৈতিক জোন করার জন্য জুলাইতে এনবিআর থেকে বাংলাদেশ ইকোনমিক জোনের কাছে চিঠি দেব। এছাড়া সোনায় ভ্যাট কমানোর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে জানানো হবে।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাজুসের সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার ও এনবিআর সদস্য কানন কুমার রায়সহ অনেকে।

সারাবাংলা/এসজে/এমআই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন