রবিবার ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩১ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৫ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

ডিআইজি মিজানকে থানায় নিতে লিখিত নির্দেশের অপেক্ষায় পুলিশ

জুলাই ১, ২০১৯ | ৫:২৮ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দুর্নীতি মামলায় পুলিশের বরখাস্ত হওয়া উপমহাপরিদর্শক মিজানুর রহমান মিজানকে নিজেদের হেফাজতে নিতে হাইকোর্টের লিখিত নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ডিআইজি মিজানকে নিজেদের হেফাজতে নিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আদেশের অপেক্ষা করছেন তারা। সরাসরি শাহবাগ থানা পুলিশ নয় বরং ঊর্ধ্বতন কোনো কর্মকর্তার মাধ্যমে মিজানকে থানায় নেওয়া হবে।

হাইকোর্টের নির্দেশ প্রসঙ্গে রমনা জোনের ডিসি মারুফ হোসেন সরদার বলেন, ‘আমরা লিখিত নির্দেশের অপেক্ষায় আছি। নির্দেশ পেলে ডিআইজি মিজানকে নিয়ে যাব।’

সোমবার (১ জুলাই) আগাম জামিন নিতে গেলে হাইকোর্ট জামিন আবেদন খারিজ করে মিজানকে পুলিশ হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশে ডিআইজি মিজানকে হাইকোর্ট বেঞ্চে বসিয়ে রাখা হয়।

সেখানে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান ও পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা রয়েছেন। তবে ডিআইজি মিজানকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার বিষয়ে তাৎক্ষণিক কোনো উদ্যোগ দেখা যায়নি শাহবাগ থানা পুলিশের পক্ষ থেকে।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে জানতে শাহবাগ থানার ওসিকে ফোন দেওয়া হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন: ডিআইজি মিজানকে পুলিশে দিলেন হাইকোর্ট

এদিকে শাহবাগ থানার একজন উপপরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম জানান, ‘আমরা হাইকোর্টে আছি। স্যারেরা এখন কী করবে তা জানি না। আমাদের এখনও কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি।’

মিজানের বিরুদ্ধে তিন কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন এবং ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওই মামলায় আগাম জামিন নিতে গিয়েছিলেন তিনি।

ডিআইজি মিজানের আইনজীবী মমতাজ উদ্দিন মেহেদী জামিন চেয়ে বলেন, ‘জঙ্গি দমনে ডিআইজি মিজানের অনেক ভূমিকা রয়েছে। এই বিবেচনায় আসামি জামিন পেতে পারে।’

এরপর বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এস কুদ্দুস জামানের বেঞ্চ বলেন, ‘ডিআইজি মিজান দুদক সম্পর্কে প্রকাশ্যে যে কথাবার্তা বলেছেন তা পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে। এক বিভাগের লোক সরকারি আরেক বিভাগের বিপক্ষে এভাবে সরাসরি বলতে পারে না। তার জামিন হবে না। আমরা তাকে পুলিশে দেব।’ এই বলে ডিআইজি মিজানের জামিন আবেদন নাকচ করেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান সারাবাংলাকে বলেন, ‘হাইকোর্ট এলাকা শাহবাগ থানার আওতাধীন। আদালত ডিআইজি মিজানকে পুলিশ কাস্টডিতে নিতে নির্দেশ দিয়েছেন। তাই ডিআইজি মিজানকে শাহবাগ থানা পুলিশের হেফাজতে থাকতে হবে। পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে বিচারিক আদালতে হাজির করতে হবে।’

ডিআইজি মিজানের পাশাপাশি তার ভাগ্নে মাহমুদুল হাসানকে তিনদিনের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্টের একই বেঞ্চ। জামিনের মেয়াদ শেষ হলে তাকে আত্মসমর্পণ করতে বলেছেন আদালত।

ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি, চাকরির শৃঙ্খলাবিধি ভঙ্গের অভিযোগ রয়েছে। দুর্নীতির অভিযোগে গত ২৪ জুন ডিআইজি মিজান, তার স্ত্রী, ভাই ও ভাগ্নের বিরুদ্ধে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওইদিন কমিশন বৈঠকে মামলার অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দুদকের পরিচালক মঞ্জুর মোর্শেদ মামলা করেন। মামলা নম্বর: ১।

গত ২৫ জুন পুলিশের বিতর্কিত উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সারাবাংলা/এজেডকে/ইউজে/একে

আরও পড়ুন

আসলেন না ডিআইজি মিজান, ৮ জুলাই ফের তলব
হাইকোর্টে আগাম জামিন আবেদন ডিআইজি মিজানের
ডিআইজি মিজানের অস্ত্রের লাইসেন্স জব্দে দুদকের চিঠি
পরোয়ানা থাকলে ডিআইজি মিজান গ্রেফতার হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত
ডিআইজি মিজান ও বাছিরকে দুদকে তলব
ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা
‘ডিআইজি মিজান আইনের ফাঁক দিয়ে বের হতে পারবেন না’
ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন