মঙ্গলবার ২৩ জুলাই, ২০১৯ ইং , ৮ শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯ জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

বিজ্ঞাপন

শিশুদের জন্য ইন্টারনেট নিরাপদ করতে হবে: মোস্তাফা জব্বার

জুলাই ১০, ২০১৯ | ৬:১৯ অপরাহ্ণ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সরানো নয় শিশুদের জন্য ইন্টারনেট নিরাপদ রাখতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

মন্ত্রী বলেন, ‘আগামী দিনের প্রযুক্তির অভাবনীয় বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শিশুদের উপযোগী করে গড়ে তুলতে ইন্টারনেট নিরাপদ রাখতে হবে। পাশাপাশি শিশুদের জন্য ইন্টারনেট নিরাপদ রাখতে প্যারেন্টাল গাইডেন্স ব্যবস্থা প্রবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হবে।’

বুধবার (১০ জুলাই) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আইন ও সালিশ কেন্দ্রে আয়োজিত ইন্টারনেটে শিশু যৌন নির্যাতন: ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারীদের অধিকার ও কর্তব্য শীর্ষক অধিবেশনে এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশে ইন্টারনেট প্রসারের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে ইন্টারনেটের প্রসার ঘটেছে গত এক দশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে। ২০০৮ সালে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা ছিল মাত্র ৮ লাখ। গত দশ বছরে তা সাড়ে নয় কোটি অতিক্রম করেছে।

বিজ্ঞাপন

দেশে তথ্যপ্রযুক্তি বিকাশে অভাবনীয় রূপান্তর হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমরা ডিজিটাল হবো নিরাপদও থাকবো। তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রসংগ তুলে ধরে বলেন, রাষ্ট্র, সমাজ, পরিবার বা সন্তানের জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটা খুব প্রয়োজন ছিল। এটা এখন প্রমাণিত হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, যারা ইন্টারনেট সেবা দিবে তাদেরকে প্রচলিত আইনের আওতায় না আনলে নাগরিকদের নিরাপদ রাখা সম্ভব নয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অপব্যবহার বড় উদ্বেগের কারণ। তবে সরকারের সফল প্রচেষ্টায় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ আমাদের সংস্কৃতি ও কৃষ্টি এবং প্রচলিত আইন মেনে কন্টেন্ট প্রকাশে সম্মত হয়েছে। ভবিষ্যতে ইউটিউবসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনুরূপ ভূমিকা রাখতে সরকারের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী, ২২ হাজার পর্নো সাইট বন্ধ করাসহ নির্বাচনকালিন সময়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির জন্য রাষ্ট্রীয় স্পর্শকাতর প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিদের নামে ব্যবহৃত ৭শ ফেক আইডি বন্ধের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, নিরাপদ ইন্টারনেট নিশ্চিত করতে সরকার বদ্ধ পরিকর।

মোস্তফা জব্বার বলেন, দেশের দুর্গম অঞ্চলসহ প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ করা হয়েছে। সেজন্য ডিজিটাল অপরাধ নিয়ন্ত্রণে দেশের প্রতিটি অঞ্চলে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করার প্রয়োজনে আইনশৃঙ্গলা রক্ষাকারি বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টদের দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির প্রয়োজনীয়তার ওপর মন্ত্রী গুরুত্বারোপ করেন।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক শিপা হাফিজার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি আলিমুজ্জামান, সাইবার ট্রাইব্যুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর সাইমুম রেজা তালুকদার, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী এডভোকেট রেজাউল করিম সিদ্দিকী, টিডিএইচ নেদারল্যান্ডের কান্ট্রি ডিরেক্টর মাহমুদুল কবির এবং বিটিআরসি কমিশনার ইঞ্জিনিয়ার মো: মহিউদ্দিন।

সারাবাংলা/ইএইচটি/জেএএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন